LatestsNews
# কুড়িগ্রামে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় ৬জন গ্রেপ্তার# গাজীরহাট ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম আদালত সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয় # শিরোমণি স্পোর্টিং ক্লাব আয়োজিত ৮দলীয় মিনি ফুটবল টুর্ণামেন্টের উদ্বোধন# শৈলকুপায় অর্ধশত বছরেও আলোর মুখ দেখেনি স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদরাসা!# কালীগঞ্জে পিতা হত্যার দায়ে পুত্রের যাবজ্জীবন কারাদন্ড# ‘আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় শিল্প মন্ত্রণালয়ের কাজে মন্থর গতি’# রাজধানীর সদরঘাটে লঞ্চের ধাক্কায় ডিঙি নৌকা ডুবে নিখোঁজ দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।# ঢাকা-উত্তরবঙ্গ রেলরুটে আন্তঃনগর রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত হয়ে সকল প্রকার ট্রেন চলাচল বন্ধ # পলিথিন থেকে জ্বালানি তেল উৎপাদন উদ্ভাবক জামালপুরের তৌহিদুল ইসলাম।# সিলিন্ডার পুনঃপরীক্ষার সনদ ছাড়া গ্যাস মিলবে না গাড়িতে# প্রতিযোগিতায় এগিয়ে রাখতে দেশীয় মোবাইল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো প্রস্তাবিত বাজেটে বেশকিছু শুল্ক সুবিধা পাচ্ছে।# প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মান বন্ধ রয়েছে গ্রামবাসীদের আবেদন জায়গা পুনঃনির্ধারন# মেহেরপুরের গাংনীতে দু’পক্ষের গোলাগুলিতে মাদক ব্যবসায়ী নিহত# ‘নারী ও কন্যা শিশুর প্রতি সংহতি’ বিষয়ে আলোচনা সভা# পায়রা কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে দেশীয় শ্রমিকদের ক্ষোভের নেপথ্যে চীনাদের 'অকথ্য নির্যাতন'# চাঁপাইনবাবগঞ্জে মনিরুল হত্যা মামলায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড# ডিআইজি মিজানের সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের নির্দেশ# খুলনা শিরোমণি বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালের ডাক্তার-ষ্টাফদের দুই দফা দাবীতে লাগাতর কর্মসুচি শুরু# অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টস হারল বাংলাদেশ# দিনাজপুরের হিলিতে দেশের প্রথম লৌহ খনির সন্ধান পাওয়া গেছে।
আজ বুধবার| ২৬ জুন ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

ধুনটে মোবাইল জুয়ায় আকৃষ্ট কোমলবতি শিক্ষার্থীরা



কারিমুল হাসান লিখন, ধুনট

বগুড়ার ধুনটে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কোমলবতি শিক্ষার্থীদের হাতে হাতে এখন এ্যান্ডয়েড বা স্মাট ফোন। এসকল ফোনে বিভিন্ন সফটওয়ার এ্যাপস এর সাহায্যে গেমস খেলাসহ নানা ধরনের শিক্ষামুলক কিছু কাজ করা যায়।

সম্প্রতি লুডু নামের আরো একটি এ্যাপস খুব অল্প সময়ে অনেক বেশি পরিচিতি লাভ করেছে। এ লুডু কাগজের তৈরী লুডুর মত সহজেই খেলা যায় বলে শিক্ষার্থীরা লুডু এ্যাপসটি ইনষ্টল করে খেলতে পারে। সহজলভ্য আর সহপাঠি নিয়ে খেলা যায় বলে বাজিতে আকৃষ্ট হচ্ছে অনেকে।

বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরজমিনে দেখা যায় ক্লাস ফাকি দিয়েও প্রতিষ্ঠানের ফাকা ঘরে বসে টাকায় বাজি ধরে এ লুডু খেলছে শিক্ষার্থীরা। এসকল শিক্ষার্থীদের পেছনে শিক্ষকদের কতটুকু নজর আছে জানা নেই। প্রতিষ্ঠানের পাঠদান সময় পার হবার পর বিকেল বেলায় মাঠে বসেও টাকায় বাজি ধরে এ লুডু খেলতে দেখা গেছে অনেককেই। প্রাথমিক শিক্ষার্থী ছাড়াও যারা এখনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাওয়া শুরু করেনি তারাও যুক্ত হচ্ছে এ খেলায়।

বিশেষ বাড়ির পাশে যাদের স্কুল মাঠ রয়েছে তাদের কে রাত ১০টা পর্যন্তও এ খেলা খেলতে দেখা গেছে। এ গেমস খেলার পাশাপাশি কমলবতি শিক্ষার্থীরা নেশার দিকেও চলে যাচ্ছে অবচেতন মনে। এ খেলায় শিক্ষার্থী ছাড়াও অনেক যুবক ও যুবতীরাও আকৃষ্ট হয়ে টাকার বিনিময়ে বাজি ধরে খেলছে রাতদিন। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অভিভাবক সমাবেশে এ সকল বিষয় উপস্থাপন করে সচেতনতা সৃষ্টি করা জরুরী।

শিক্ষা এগেও ছিলো শিক্ষা এখনও আছে। পরিবর্তন হয়েছে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকের। আগের দিনে কারো সাথে ঝগড়া হলে মায়েরা নিজের ছেলে/মেয়েকেই মারতো। আর এখন কিছু মায়েরা অন্যের ছেলেকে আঘাত করার উৎসাহ দেয়। আগের দিনে পড়া না পেলে শিক্ষক বেত্রাঘাত করতো। আর এখন বেত যখন নির্দেশনা কাঠি হয়েছে তখন থেকে কিছু শিক্ষার্থী বিপথে যাওয়া শুরু করেছে।

আগে যখন মেধা তালিকায় শিক্ষক নিয়োগ হতো তখন ঠিকই শিক্ষার্থীদের শিক্ষকরা নিয়ন্ত্রন করতো। যখন থেকে টাকার বিনিময়ে শিক্ষক নিয়োগ শুরু হয়েছে, তখন থেকেই কিছু শিক্ষক শিক্ষার্থীদের শাসনে রাখার চেয়ে প্রাইভেট পড়িয়ে টাকা ইনকামে ব্যাস্ত হয়ে পড়েছে। এসকল নানা জটিলতার মধ্যে যদি শিক্ষার্থীরা মোবালে লুডু খেলার নামে টাকার বিনিময়ে বাজি ধরে জুয়া খেলতে থাকে তাহলে শিক্ষার বীজটা অঙ্কুরেই নষ্ট হবার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

এখনই যদি অভিভাবক ও শিক্ষকগন শিক্ষার্থীদের সচেতন না করতে পারে তাহলে শিক্ষা জীবনে ধ্বস নামতে পারে। প্রতিটি এলাকার সচেতন মানুষের উচিত অসময়ে শিক্ষার্থীদের কথাও দেখলে শাসন করা। কিন্তু সমাজ তো এ শাসন গ্রহন করতে নারাজ। কেননা আমার ছেলে এটা করবে তাতে তোমার কি? এভাবেই বলতে পারে অনেক অভিভাবক। নিজে বদলাই, নিজে সচেতন হই, অন্যকে সচেতন করি।


1