LatestsNews
# ব্যাচেলর খ্যাত সালমান খান অবশেষে বিয়ের জন্য নায়িকা পাত্রী খুঁজে পেয়েছেন# সন্ত্রাসীদের অতর্কিত হামলায় ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আহত # নকশা জালিয়াতির অভিযোগে কাসেম ড্রাইসেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাসভীর-উল-ইসলামকে গ্রেফতার।# ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে নার্স ও স্টাফদের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা# রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করতে মিয়ানমারকে আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ।# হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর জাতীয় পার্টির বিভক্তি আরো স্পষ্ট হয়ে উঠছে।# ডেঙ্গু মোকাবিলায় সতর্কতা ও সচেতনতা আরো বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা# ঈদের আগে পরে মোট ১৩ দিনে এবার সড়ক, নৌ ও রেল পথে ২৪৪টি দুর্ঘটনায় মোট ২৫৩ জন নিহত ও ৯০৮ জন আহত।# গাইবান্ধা আধুনিক হাসপাতালের বেহাল অবস্থা # ভারতে নিহত মাইনুল ও তানিয়া মরদেহ দেশে আনা হয়েছে# যেভাবে চামড়ার দাম কমানো হয়েছে তা দূরভিসন্ধিমূলক:মসিউর রহমান রাঙ্গা।# বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে রূপপুরে নির্মাণাধীন পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প দেশের দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধ।# চলনবিলে পর্যটকের ঢল# চলনবিলে পর্যটকের ঢল# সৌদি আরবে বাংলাদেশি হাজিদের বহনকারী একটি বাস দুর্ঘটনায় একজন নিহত ও বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন# সৌদি আরবে বাংলাদেশি হাজিদের বহনকারী একটি বাস দুর্ঘটনায় একজন নিহত ও বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন# পশ্চিমবঙ্গের কলকাতায় মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন বাংলাদেশের দুজন নাগরিক। # জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ‘ফ্রেন্ড অব দ্য ওয়ার্ল্ড’ বা ‘বিশ্ববন্ধু’ হিসেবে আখ্যা দেয়া হলো# ডেঙ্গু প্রতিরোধ-সচেতনতায় 'স্টপ ডেঙ্গু' অ্যাপ চালু # অবশেষে টাইগারদের নতুন কোচ হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার রাসেল ডোমিঙ্গাকে।
আজ সোমবার| ১৯ আগস্ট ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

ধুনটে মোবাইল জুয়ায় আকৃষ্ট কোমলবতি শিক্ষার্থীরা



কারিমুল হাসান লিখন, ধুনট

বগুড়ার ধুনটে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কোমলবতি শিক্ষার্থীদের হাতে হাতে এখন এ্যান্ডয়েড বা স্মাট ফোন। এসকল ফোনে বিভিন্ন সফটওয়ার এ্যাপস এর সাহায্যে গেমস খেলাসহ নানা ধরনের শিক্ষামুলক কিছু কাজ করা যায়।

সম্প্রতি লুডু নামের আরো একটি এ্যাপস খুব অল্প সময়ে অনেক বেশি পরিচিতি লাভ করেছে। এ লুডু কাগজের তৈরী লুডুর মত সহজেই খেলা যায় বলে শিক্ষার্থীরা লুডু এ্যাপসটি ইনষ্টল করে খেলতে পারে। সহজলভ্য আর সহপাঠি নিয়ে খেলা যায় বলে বাজিতে আকৃষ্ট হচ্ছে অনেকে।

বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরজমিনে দেখা যায় ক্লাস ফাকি দিয়েও প্রতিষ্ঠানের ফাকা ঘরে বসে টাকায় বাজি ধরে এ লুডু খেলছে শিক্ষার্থীরা। এসকল শিক্ষার্থীদের পেছনে শিক্ষকদের কতটুকু নজর আছে জানা নেই। প্রতিষ্ঠানের পাঠদান সময় পার হবার পর বিকেল বেলায় মাঠে বসেও টাকায় বাজি ধরে এ লুডু খেলতে দেখা গেছে অনেককেই। প্রাথমিক শিক্ষার্থী ছাড়াও যারা এখনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাওয়া শুরু করেনি তারাও যুক্ত হচ্ছে এ খেলায়।

বিশেষ বাড়ির পাশে যাদের স্কুল মাঠ রয়েছে তাদের কে রাত ১০টা পর্যন্তও এ খেলা খেলতে দেখা গেছে। এ গেমস খেলার পাশাপাশি কমলবতি শিক্ষার্থীরা নেশার দিকেও চলে যাচ্ছে অবচেতন মনে। এ খেলায় শিক্ষার্থী ছাড়াও অনেক যুবক ও যুবতীরাও আকৃষ্ট হয়ে টাকার বিনিময়ে বাজি ধরে খেলছে রাতদিন। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অভিভাবক সমাবেশে এ সকল বিষয় উপস্থাপন করে সচেতনতা সৃষ্টি করা জরুরী।

শিক্ষা এগেও ছিলো শিক্ষা এখনও আছে। পরিবর্তন হয়েছে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকের। আগের দিনে কারো সাথে ঝগড়া হলে মায়েরা নিজের ছেলে/মেয়েকেই মারতো। আর এখন কিছু মায়েরা অন্যের ছেলেকে আঘাত করার উৎসাহ দেয়। আগের দিনে পড়া না পেলে শিক্ষক বেত্রাঘাত করতো। আর এখন বেত যখন নির্দেশনা কাঠি হয়েছে তখন থেকে কিছু শিক্ষার্থী বিপথে যাওয়া শুরু করেছে।

আগে যখন মেধা তালিকায় শিক্ষক নিয়োগ হতো তখন ঠিকই শিক্ষার্থীদের শিক্ষকরা নিয়ন্ত্রন করতো। যখন থেকে টাকার বিনিময়ে শিক্ষক নিয়োগ শুরু হয়েছে, তখন থেকেই কিছু শিক্ষক শিক্ষার্থীদের শাসনে রাখার চেয়ে প্রাইভেট পড়িয়ে টাকা ইনকামে ব্যাস্ত হয়ে পড়েছে। এসকল নানা জটিলতার মধ্যে যদি শিক্ষার্থীরা মোবালে লুডু খেলার নামে টাকার বিনিময়ে বাজি ধরে জুয়া খেলতে থাকে তাহলে শিক্ষার বীজটা অঙ্কুরেই নষ্ট হবার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

এখনই যদি অভিভাবক ও শিক্ষকগন শিক্ষার্থীদের সচেতন না করতে পারে তাহলে শিক্ষা জীবনে ধ্বস নামতে পারে। প্রতিটি এলাকার সচেতন মানুষের উচিত অসময়ে শিক্ষার্থীদের কথাও দেখলে শাসন করা। কিন্তু সমাজ তো এ শাসন গ্রহন করতে নারাজ। কেননা আমার ছেলে এটা করবে তাতে তোমার কি? এভাবেই বলতে পারে অনেক অভিভাবক। নিজে বদলাই, নিজে সচেতন হই, অন্যকে সচেতন করি।


1