LatestsNews
# আমিরাত থেকে বিশাল বিনিয়োগ আসছে বাংলাদেশে# ঈদের খরচ হিসেবে ‘ন্যায্য পাওনা’ চেয়েছিলাম: রাব্বানী# বন্যার কারণ দেখিয়ে পেঁয়াজ রপ্তানির মূল্য প্রায় তিনগুণ বাড়িয়েছে ভারত।# আগামীকাল রাজশাহী যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী# ছাত্রলীগকে দেওয়া দেড় কোটি টাকার বিষয়টি ‘সাজানো গল্প’: জাবি ভিসি# মন্ত্রিত্ব গেলে আবার সাংবাদিকতায় ফিরব: সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।# নবম ওয়েজবোর্ডের গেজেট প্রকাশ, ৮৫ শতাংশ বৃদ্ধি করে নতুন বেতন কাঠামো# টঙ্গীতে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের অধীনে প্রশিক্ষণকেন্দ্রের জন্য কম্পিউটার সামগ্রী বিতরণ# বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বহরে আজ যুক্ত হচ্ছে চতুর্থ বোয়িং ড্রিমলাইনার # কর ফাঁকির মামলায় গুগলকে ৫৫ কোটি ডলার জরিমানা# মিয়ানমার সেনাবাহিনীর পৃষ্ঠপোষকতায় কক্সবাজারের ক্যাম্পকে ঘিরে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে রোহিঙ্গাসন্ত্রাসীরা# অবশেষে কাশ্মীর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলো মোদি সরকার# বিশাল সুখবর পেলেন পুলিশ সদস্যরা- কমিউনিটি ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের কার্যক্রম শুরু # হজ-ওমরাসহ সব ধরনের ভিসা ফি নির্ধারণ করেছে সৌদি# প্রতিহিংসার রাজনীতি করে বিএনপি ও খালেদা জিয়া: তথ্যমন্ত্রী# আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী# আফিফের ব্যাটে লজ্জা এড়িয়ে জয় পেল বাংলাদেশ# প্রধানমন্ত্রী ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করবেন মঙ্গলবার# এক কিলোমিটার দৌড়ে ছিনতাইকারী ধরলেন ম্যাজিস্ট্রেট# ৮৬ কোটি টাকার লোভ কাল হলো শোভন-রাব্বানীর!
আজ মঙ্গলবার| ১৭ sep ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

জাতীয় ফুল শাপলার বংশ বিস্তারে নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের উদ্যোগ



এম.এ সাজেদুল নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর)

ইসলাম শাপলা ইংরেজিতে যাকে বলা হয় Water lily যার বৈজ্ঞানিক নাম

Nymphea nouchali। বাংলাদেশের জাতীয় ফুল শাপলা। অথচ অযতœ আর অবহেলায় হারিয়ে যেতে বসেছে এ নয়নাভিরাম বিলে-ঝিলে ভাসা ফুল। শুধুমাত্র বাংলাদেশেই নয়, শ্রীলংকারও জাতীয় ফুল এ শাপলা। শ্রীলংকায় শাপলাকে বলা হয় নীল-মাহানেল। খাল-বিল ও আবদ্ধ জলাশয় ভরাটের কারণে উত্তর জনপদের বিভিন্ন এলাকা থেকে ক্রমান্বয়ে বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে জাতীয় ফুল শাপলা।

সংরক্ষনের নেই কোনো উদ্যোগ। নবাবগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবু রেজা মোঃ আসাদুজ্জামান জানান- জাতীয় ফুল শাপলা সাধারণত আবদ্ধ অগভীর জলাশয়, খাল-বিলে জন্মে থাকে। শাপলা একটা জলজ উদ্ভিদ, যা প্রায় ৩’শ খ্রিস্টপূর্ব পুরনো।

বাংলাদেশের আবহাওয়ায় সাধারণত পাঁচ প্রকার শাপলা ফুল দেখা যায়। সাদা, লাল, বেগুনি, হলুদ ও নীল রঙের। এর মধ্যে সাদা শাপলা হলো বাংলাদেশের জাতীয় ফুল। গ্রামবাংলার আনাচে কানাচে হাওড়ে বিলে ঝিলে পুকুরে ডোবায় অহরহ দেখা যেত এ জলে ভাসা ফুল। তবে এখন অযতœ অবহেলায় আর কৃষি জমিতে মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক ও রাসায়নিক সার ব্যবহারের কারণে জাতীয় ফুল শাপলা হারিয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। উত্তর জণপদে দু’ধরনের শাপলা দেখতে পাওয়া যেত।

একটি সাদা আরেকটি লাল। স্থানীয় ভাষায় সাদা শাপলাকে শাপলা আর লাল শাপলাকে রক্ত শাপলা বলা হয়ে থাকে। কৃষি জমি বালু দিয়ে ভরাট, প্রতি বছর ইরি জমি থেকে ইট ভাটার জন্যে মাটি কেটে নেয়া ইত্যাদি কারণে শাপলা আজ দিনাজপুরের নবাবগঞ্জের পুকুর, খাল-বিল থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে। এ শাপলা ফুল যখন আবদ্ধ জলাশয়ে অনেক ফুটে থাকে তখন সেখানে এক অপরূপ সৌন্দর্য্যরে সৃষ্টি হয়।

ব্যবসায়ী পারভেজ রানা বলেন, আমার স্কুল পড়ুয়া ছোট বোন জাতীয় ফুল শাপলা চিনেনা। তাকে ছবি দেখিয়ে শাপলা চেনাতে হয়। খয়েরগুনি স:প্রা: বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নওশীন তাবাসসুমকে জিজ্ঞেস করলে সে বলে- শাপলা ফুল দেখিনি, চিনি না।

শিক্ষকদের কাছে শুনেছি এবং বইয়ে পড়েছি শাপলা আমাদের জাতীয় ফুল। খাল-বিল ও আবদ্ধ জলাশয়গুলো বালু দিয়ে ভরাটের কারণে সেখানে আর শাপলা জন্মাতে পারে না। এছাড়া আবদ্ধ জলাশয়গুলোতে আধুনিক পদ্ধতিতে মাছ চাষ করার ফলে শাপলা জন্মানোর ক্ষেত্রগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। নবীন-প্রবীনদের অনেকেই বলেন, জাতীয় ফুল শাপলা এক সময় হয়তো কাগজে-কলমে, পাঠ্য বইপত্রে লেখা থাকবে।

দ্রæত বিলুপ্তির কারণে বাস্তবে আর হয়তো শাপলা খুঁজে পাওয়া যাবে না। উপজেলার ইসলামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুহাম্মদ আব্দুর রউফ বলেন- এক সময় বিলে ঝিলে পুকুরে বর্ষা মৌসুমে নানা রঙের শাপলার বাহারী রূপে মানুষের নয়ন জুড়িয়ে যেত। শাপলা ছোটদের খুব প্রিয় ফুল। শাপলার ঢ্যাপ শিশুদের প্রিয় খাবার। গ্রামের মানুষের কাছে সবজি হিসেবেও খুব জনপ্রিয় ছিল এ শাপলা।

অনেকে আবার বিল থেকে শাপলা তুলে বাজারে বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করতো। এদিকে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মশিউর রহমান জাতীয় ফুল শাপলা যখন হারিয়ে যেতে বসেছে, তখন তিনি জাতীয় উদ্যান উন্মুক্ত আশুড়ার বিলে এ ফুলের বংশবিস্তার করতে উপজেলা স্কাউট দলের সদস্যদের নিয়ে তিনি শোভাবর্ধনে লাল শাপলা ফুলের চারা রোপন করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। নির্বাহী অফিসার তার এমন উদ্যেগ বাস্তবায়নে সমাজের সচেতন ব্যক্তিবর্গদের এগিয়ে আসার আহব্বান জানান।


1