LatestsNews
# কুড়িগ্রামে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় ৬জন গ্রেপ্তার# গাজীরহাট ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম আদালত সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয় # শিরোমণি স্পোর্টিং ক্লাব আয়োজিত ৮দলীয় মিনি ফুটবল টুর্ণামেন্টের উদ্বোধন# শৈলকুপায় অর্ধশত বছরেও আলোর মুখ দেখেনি স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদরাসা!# কালীগঞ্জে পিতা হত্যার দায়ে পুত্রের যাবজ্জীবন কারাদন্ড# ‘আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় শিল্প মন্ত্রণালয়ের কাজে মন্থর গতি’# রাজধানীর সদরঘাটে লঞ্চের ধাক্কায় ডিঙি নৌকা ডুবে নিখোঁজ দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।# ঢাকা-উত্তরবঙ্গ রেলরুটে আন্তঃনগর রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত হয়ে সকল প্রকার ট্রেন চলাচল বন্ধ # পলিথিন থেকে জ্বালানি তেল উৎপাদন উদ্ভাবক জামালপুরের তৌহিদুল ইসলাম।# সিলিন্ডার পুনঃপরীক্ষার সনদ ছাড়া গ্যাস মিলবে না গাড়িতে# প্রতিযোগিতায় এগিয়ে রাখতে দেশীয় মোবাইল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো প্রস্তাবিত বাজেটে বেশকিছু শুল্ক সুবিধা পাচ্ছে।# প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মান বন্ধ রয়েছে গ্রামবাসীদের আবেদন জায়গা পুনঃনির্ধারন# মেহেরপুরের গাংনীতে দু’পক্ষের গোলাগুলিতে মাদক ব্যবসায়ী নিহত# ‘নারী ও কন্যা শিশুর প্রতি সংহতি’ বিষয়ে আলোচনা সভা# পায়রা কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে দেশীয় শ্রমিকদের ক্ষোভের নেপথ্যে চীনাদের 'অকথ্য নির্যাতন'# চাঁপাইনবাবগঞ্জে মনিরুল হত্যা মামলায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড# ডিআইজি মিজানের সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের নির্দেশ# খুলনা শিরোমণি বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালের ডাক্তার-ষ্টাফদের দুই দফা দাবীতে লাগাতর কর্মসুচি শুরু# অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টস হারল বাংলাদেশ# দিনাজপুরের হিলিতে দেশের প্রথম লৌহ খনির সন্ধান পাওয়া গেছে।
আজ সোমবার| ২৪ জুন ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

রাজধানীসহ দেশের সরকারি হাসপাতালগুলোতে তীব্র আইসিইউ সঙ্কটে দিশেহারা রোগী ও স্বজনরা।



রাজধানীসহ দেশের সরকারি হাসপাতালগুলোতে তীব্র আইসিইউ সঙ্কটে দিশেহারা রোগী ও স্বজনরা। মুমূর্ষু রোগীকে বাঁচাতে তাই যেকোনো মূল্যে বেসরকারি বিভিন্ন হাসপাতালের আইসিইউতে ঠাঁই করে নিতে বাধ্য হচ্ছেন ভুক্তভোগীরা। এতে অর্থক্ষতির সঙ্গে অনেক সময় রোগী পাননা কাঙ্ক্ষিত সেবা। সঙ্কট সমাধানে ২০২২ সালের মধ্যে প্রতিটি জেলায় অন্তত পাঁচটি করে আইসিইউ শয্যা নির্মাণের আশ্বাস স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের।

আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী একটি সরকারি হাসপাতালের মোট বেডের ১০ ভাগ আইসিইউ বেড থাকার কথা থাকলেও সাড়ে আট'শ বেডের সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের রয়েছে মাত্র ১০টি। এর মধ্যে একটি সাড়ে ৮ মাস ও অপর একটি দীর্ঘ দেড় বছর থেকে খালি হয়নি। এছাড়াও আইসিইউ বেড না পেয়ে কত সংখ্যক মানুষ যে মৃত্যুর শিকার হচ্ছে তার কোন সুনির্দিষ্ট হিসাব নেই কারো কাছেই।

ভুক্তভোগী এক শিশু সন্তানের বাবা জানান, আমার বাচ্চাকে বাঁচানো জন্য আমি পাগলের মতো আইসিউতে খুঁজেছি পুরো ঢাকা শহর।

এক নারী জানান, একটা আইসিইউ একটা রোগীর জীবন নয়, একটা আইসিইউে শত শত মানুষের মানুষের জীবন। তাই প্রত্যেকটা হাসপাতালে আইসিইউ সংখ্যা বাড়ানো উচিত।


সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের পরিচালক বলেন, আমার হাসপাতালে আইসিইউ বেডের সংখ্যা দশটা। আর এটা যদি ৫০ শয্যার হয়, তারপরও সংকুলান করা সম্ভব নয়।

দেশের ১৮ টি সরকারী জেলা হাসপাতালে নেই কোন আইসিইউ ইউনিট। রাজধানীসহ প্রতিটি জেলাতেই তীব্র আইসিইউ সঙ্কট থাকায় বাধ্য হয়ে বেসরকারি হাসপাতালের শরণাপন্ন হচ্ছেন রোগীরা।

এতে শুরুতেই লাখ লাখ টাকা শেষ হওয়ায় পরবর্তীতে সরকারি হাসপাতালে আইসিইউ খরচ চালানোর সামর্থ্যও থাকছে না অনেকের। এরপরও এই সোনার হরিণ যাদের ভাগ্যে জুটছে তাদেরও ভোগান্তির যেন শেষ নেই।

আইসিইউ রোগী নিয়ে ভোগান্তি পড়া এক ব্যক্তি জানান, যাদের ভাল কোন লবিং, নেতা-কর্মী আছে তারা ৪-৫ দিন পর তারা সিট পায়।

অন্য আরেকজন জানান, ঢাকা শিশু হাসপাতালে আইসিইউতে বেড না পেয়ে আমি প্রাইভেট যাই। সেখানে আমি  আমার সব শেষ করে দিয়েছি। পরে কোন রকমে বাচ্চার জান নিয়ে এখানে এসেছি।

ঢাকা শিশু হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আবদুল আজিজ বলেন, শুধু শিশু হাসপাতালে নয়, সারা বাংলাদেশসহ ঢাকা শহরে আইসিইউ ও এনআইসিইউ সংকট প্রকট। অতি দ্রুত এর সংখ্যা বাড়ানো দরকার।

এদিকে দ্রুত শয্যা বাড়ানোর পাশাপাশি সীমাবদ্ধ শয্যা বণ্টনে আরও সতর্ক না হলে অনেককেই মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা করা সম্ভব হবে না মত বিশেষজ্ঞদের।

আইসিইউ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক এ কে এম কামরুল হুদা বলেন, কিছু অবাঞ্চিত রোগীর চাপ আমাদের এখানে আসে। এই রোগীগুলো যখন চিকিৎসা দিয়ে ভাল করা যায় না। সেই সাথে মৃত্যু সংখ্যাটাও বেড়ে যায়। যাদের বয়স কম, চিকিৎসা দিয়ে ভাল করার সম্ভাবনা রয়েছে, তাদেরকে বাচাই করা উচিত।

এদিকে দেশের সবকটি জেলায় আইসিইউ সেবা নিশ্চিত করতে আরও ৪টি বছর অপেক্ষা করতে হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল ও ক্লিনিকের পরিচালক অধ্যাপক ডা.কাজী জাহাঙ্গীর আলম।

তিনি বলেন, ২০২০ সালের ৩০ জুনের  মধ্যে আমাদের সরকারের পরিকল্পনা রয়েছে। দেশের প্রত্যেকটা জেলা সদর হাসপাতালে  কম পক্ষে ৫টি আইসিইউ বেড করা হবে।

আইসিইউ সেবা নিশ্চিতে সবচেয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা জনবল। তাই এখন থেকেই দক্ষ চিকিৎসক ও নার্স তৈরিতে জোর প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।


1