LatestsNews
# গুলশান-১ এর ডিএনসিসি মার্কেটে মেয়াদোত্তীর্ণ শিশু খাদ্য # এডিসের লার্ভা ধ্বংসে বাড়ি বাড়ি অভিযানে নগরবাসীর অসহযোগিতার অভিযোগ# চামড়া নিয়ে টানাপোড়েন থামছেই না - নিয়মিত ক্রেতাদের তৎপরতা দেখা যায়নি। # কাশ্মীর ইস্যুতে মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বিবৃতি প্রকাশ# দাবি-দাওয়া মানলেই মিয়ানমারে ফিরবে রোহিঙ্গারা# ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিচারকের কক্ষে বিরিয়ানি খান রাজসাক্ষী জজ মিয়া# গাইবান্ধার ঝিনুকের তৈরী চুন উৎপাদনকারি যুগি পরিবারগুলো এখন বিপাকে# শিক্ষা নীতিমালা অনুমোদন করায় মোবারক হোসেন প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের অভিনন্দন# এডিস মশার দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের জন্য বাংলাদেশ সফরে আসছেন উচ্চ পর্যায়ের বিদেশি বিশেষজ্ঞ প্রতিনিধিদল। # শেখ হাসিনাকে ভারত সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। # মেঘনা নদীর ভাঙন গাফিলতি করা সেই প্রকৌশলীকে কী শাস্তি দেওয়া হয়েছে? : প্রধানমন্ত্রী# সংসদ সদস্য না হয়েও বিলাসবহুল গাড়িতে শুল্কমুক্ত সুবিধা পেলেন মুহিত# দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) দুর্নীতির বস্তাভর্তি টাকাসহ হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা গ্রেপ্তার# নায়াখালীতে সিএনজিচালিত ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে নারী-শিশুসহ আহত ১২# পচা মাছ মজুদ ও বিক্রির দায়ে স্বপ্ন এক্সপ্রেস সুপার শপকে জরিমানা# ভারতীয় দলের ওপর হামলার শঙ্কা, পিসিবিকে মেইল# ২০২৩ সালের মধ্যে দেশের ৬৬ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুপুরের খাবার পাবে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা# মিন্নির জামিন শুনানি, যা বললেন হাইকোর্ট# ভারতের বহুল আলোচিত ইসলামিক বক্তা ডা. জাকির নায়েক এবার মালয়েশিয়ায় নিষেধাজ্ঞার মুখে# নেত্রীকে মুক্ত করতে ব্যর্থ বিএনপি এখন বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে মন্তব্য : ওবায়দুল কাদের।
আজ শুক্রবার| ২৩ আগস্ট ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

রাজধানীসহ দেশের সরকারি হাসপাতালগুলোতে তীব্র আইসিইউ সঙ্কটে দিশেহারা রোগী ও স্বজনরা।



রাজধানীসহ দেশের সরকারি হাসপাতালগুলোতে তীব্র আইসিইউ সঙ্কটে দিশেহারা রোগী ও স্বজনরা। মুমূর্ষু রোগীকে বাঁচাতে তাই যেকোনো মূল্যে বেসরকারি বিভিন্ন হাসপাতালের আইসিইউতে ঠাঁই করে নিতে বাধ্য হচ্ছেন ভুক্তভোগীরা। এতে অর্থক্ষতির সঙ্গে অনেক সময় রোগী পাননা কাঙ্ক্ষিত সেবা। সঙ্কট সমাধানে ২০২২ সালের মধ্যে প্রতিটি জেলায় অন্তত পাঁচটি করে আইসিইউ শয্যা নির্মাণের আশ্বাস স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের।

আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী একটি সরকারি হাসপাতালের মোট বেডের ১০ ভাগ আইসিইউ বেড থাকার কথা থাকলেও সাড়ে আট'শ বেডের সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের রয়েছে মাত্র ১০টি। এর মধ্যে একটি সাড়ে ৮ মাস ও অপর একটি দীর্ঘ দেড় বছর থেকে খালি হয়নি। এছাড়াও আইসিইউ বেড না পেয়ে কত সংখ্যক মানুষ যে মৃত্যুর শিকার হচ্ছে তার কোন সুনির্দিষ্ট হিসাব নেই কারো কাছেই।

ভুক্তভোগী এক শিশু সন্তানের বাবা জানান, আমার বাচ্চাকে বাঁচানো জন্য আমি পাগলের মতো আইসিউতে খুঁজেছি পুরো ঢাকা শহর।

এক নারী জানান, একটা আইসিইউ একটা রোগীর জীবন নয়, একটা আইসিইউে শত শত মানুষের মানুষের জীবন। তাই প্রত্যেকটা হাসপাতালে আইসিইউ সংখ্যা বাড়ানো উচিত।


সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের পরিচালক বলেন, আমার হাসপাতালে আইসিইউ বেডের সংখ্যা দশটা। আর এটা যদি ৫০ শয্যার হয়, তারপরও সংকুলান করা সম্ভব নয়।

দেশের ১৮ টি সরকারী জেলা হাসপাতালে নেই কোন আইসিইউ ইউনিট। রাজধানীসহ প্রতিটি জেলাতেই তীব্র আইসিইউ সঙ্কট থাকায় বাধ্য হয়ে বেসরকারি হাসপাতালের শরণাপন্ন হচ্ছেন রোগীরা।

এতে শুরুতেই লাখ লাখ টাকা শেষ হওয়ায় পরবর্তীতে সরকারি হাসপাতালে আইসিইউ খরচ চালানোর সামর্থ্যও থাকছে না অনেকের। এরপরও এই সোনার হরিণ যাদের ভাগ্যে জুটছে তাদেরও ভোগান্তির যেন শেষ নেই।

আইসিইউ রোগী নিয়ে ভোগান্তি পড়া এক ব্যক্তি জানান, যাদের ভাল কোন লবিং, নেতা-কর্মী আছে তারা ৪-৫ দিন পর তারা সিট পায়।

অন্য আরেকজন জানান, ঢাকা শিশু হাসপাতালে আইসিইউতে বেড না পেয়ে আমি প্রাইভেট যাই। সেখানে আমি  আমার সব শেষ করে দিয়েছি। পরে কোন রকমে বাচ্চার জান নিয়ে এখানে এসেছি।

ঢাকা শিশু হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আবদুল আজিজ বলেন, শুধু শিশু হাসপাতালে নয়, সারা বাংলাদেশসহ ঢাকা শহরে আইসিইউ ও এনআইসিইউ সংকট প্রকট। অতি দ্রুত এর সংখ্যা বাড়ানো দরকার।

এদিকে দ্রুত শয্যা বাড়ানোর পাশাপাশি সীমাবদ্ধ শয্যা বণ্টনে আরও সতর্ক না হলে অনেককেই মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা করা সম্ভব হবে না মত বিশেষজ্ঞদের।

আইসিইউ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক এ কে এম কামরুল হুদা বলেন, কিছু অবাঞ্চিত রোগীর চাপ আমাদের এখানে আসে। এই রোগীগুলো যখন চিকিৎসা দিয়ে ভাল করা যায় না। সেই সাথে মৃত্যু সংখ্যাটাও বেড়ে যায়। যাদের বয়স কম, চিকিৎসা দিয়ে ভাল করার সম্ভাবনা রয়েছে, তাদেরকে বাচাই করা উচিত।

এদিকে দেশের সবকটি জেলায় আইসিইউ সেবা নিশ্চিত করতে আরও ৪টি বছর অপেক্ষা করতে হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল ও ক্লিনিকের পরিচালক অধ্যাপক ডা.কাজী জাহাঙ্গীর আলম।

তিনি বলেন, ২০২০ সালের ৩০ জুনের  মধ্যে আমাদের সরকারের পরিকল্পনা রয়েছে। দেশের প্রত্যেকটা জেলা সদর হাসপাতালে  কম পক্ষে ৫টি আইসিইউ বেড করা হবে।

আইসিইউ সেবা নিশ্চিতে সবচেয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা জনবল। তাই এখন থেকেই দক্ষ চিকিৎসক ও নার্স তৈরিতে জোর প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।


1