LatestsNews
# গুলশান-১ এর ডিএনসিসি মার্কেটে মেয়াদোত্তীর্ণ শিশু খাদ্য # এডিসের লার্ভা ধ্বংসে বাড়ি বাড়ি অভিযানে নগরবাসীর অসহযোগিতার অভিযোগ# চামড়া নিয়ে টানাপোড়েন থামছেই না - নিয়মিত ক্রেতাদের তৎপরতা দেখা যায়নি। # কাশ্মীর ইস্যুতে মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বিবৃতি প্রকাশ# দাবি-দাওয়া মানলেই মিয়ানমারে ফিরবে রোহিঙ্গারা# ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিচারকের কক্ষে বিরিয়ানি খান রাজসাক্ষী জজ মিয়া# গাইবান্ধার ঝিনুকের তৈরী চুন উৎপাদনকারি যুগি পরিবারগুলো এখন বিপাকে# শিক্ষা নীতিমালা অনুমোদন করায় মোবারক হোসেন প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের অভিনন্দন# এডিস মশার দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের জন্য বাংলাদেশ সফরে আসছেন উচ্চ পর্যায়ের বিদেশি বিশেষজ্ঞ প্রতিনিধিদল। # শেখ হাসিনাকে ভারত সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। # মেঘনা নদীর ভাঙন গাফিলতি করা সেই প্রকৌশলীকে কী শাস্তি দেওয়া হয়েছে? : প্রধানমন্ত্রী# সংসদ সদস্য না হয়েও বিলাসবহুল গাড়িতে শুল্কমুক্ত সুবিধা পেলেন মুহিত# দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) দুর্নীতির বস্তাভর্তি টাকাসহ হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা গ্রেপ্তার# নায়াখালীতে সিএনজিচালিত ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে নারী-শিশুসহ আহত ১২# পচা মাছ মজুদ ও বিক্রির দায়ে স্বপ্ন এক্সপ্রেস সুপার শপকে জরিমানা# ভারতীয় দলের ওপর হামলার শঙ্কা, পিসিবিকে মেইল# ২০২৩ সালের মধ্যে দেশের ৬৬ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুপুরের খাবার পাবে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা# মিন্নির জামিন শুনানি, যা বললেন হাইকোর্ট# ভারতের বহুল আলোচিত ইসলামিক বক্তা ডা. জাকির নায়েক এবার মালয়েশিয়ায় নিষেধাজ্ঞার মুখে# নেত্রীকে মুক্ত করতে ব্যর্থ বিএনপি এখন বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে মন্তব্য : ওবায়দুল কাদের।
আজ বৃহস্পতিবার| ২২ আগস্ট ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

গোপালগঞ্জে জায়গা আছে ঘর নাই প্রকল্পে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ



নিজস্ব প্রতিনিধি, গোপালগঞ্জ

গোপালগঞ্জের বিভিন্ন ইউনিয়নে জায়গা আছে ঘর নাই প্রকল্পে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সরকারি এ প্রকল্পে বিনামূল্যে ঘর দেওয়ার কথা থাকলেও প্রতিটি উপকারভোগীদের কাছ থেকে ২০/২৫ হাজার টাকা করে হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের বিরুদ্ধে। কোন কোন ইউনিয়নে যাদের সামর্থ্য রয়েছে তাদেরকেও ওই ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে এমন অভিযোগও রয়েছে। সরকারি এ প্রকল্পে বিনামূল্যে হতদরিদ্রদের এ সব ঘর দেওয়ার কথা রয়েছে। অবশ্য সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেছেন জেলা প্রশাসক।


সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার একটি ইউনিয়ন বৌলতলী। এ ইউনিয়নে জায়গা আছে ঘর নাই প্রকল্পের আওতায় ১৩টি ঘরের বরাদ্দ দেওয়া হয়। এ ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী মেম্বার কামনা বিশ্বাস। জায়গা আছে ঘর নাই প্রকল্পে ঘর দেওয়ার কথা বলে টাকা নিয়েছেন কি না এমন প্রশ্নে টাকা নেওয়ার কথা অকপটে স্বীকার করেন তিনি। কার কাছ থেকে কত টাকা নিয়েছেন তা বলে দেওয়ার মাধ্যমে বুঝা যায় জায়গা আছে ঘর নাই প্রকল্পে ব্যাপক দুর্নীতি হয়েছে। এমনকি ঘর দেওয়ার কথা বলে সামর্থ্যবান লোকদের কাছ থেকেও নিয়েছেন টাকা।


জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্রকল্প জায়গা আছে, ঘর নাই প্রকল্পের আওতায় গোপালগঞ্জে ১ হাজার ৫৮১ ঘর বরাদ্দ করা হয়েছে। এর মধ্যে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলায় ৩৩২টি, কাশিয়ানী উপজেলায় ৪৭১টি, কোটালীপাড়ায় ৩০৭টি, মুকসুদপুর উপজেলায় ৩৫৮টি ও টুঙ্গিপাড়ায় ১১৩টি ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়। প্রতি ঘর বাবদ সরকার ১ লাখ টাকা বরাদ্দ করেছে।


এই প্রকল্পে অনুমোদিত ঘরের তালিকা উপজেলা পর্যায়ে আসার পর ইউপি চেয়ারম্যানরা সংশ্লিষ্ট উপজেলা থেকে নিজ নিজ ইউনিয়নের তালিকা সংগ্রহ করে কপি দিচ্ছেন মেম্বারদের। এই সুযোগে মেম্বার ও সংরক্ষিত নারী মেম্বাররা তালিকা ভুক্ত উপকারভোগীদের বাড়িতে গিয়ে তাদেরকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ঘর পাওয়ার সংবাদ দিয়ে ঘর পেতে হলে ২০ থেকে ২৫ হাজার করে টাকা দেওয়ার কথা বলছেন। আর টাকা না দিলে ঘর পাওয়া যাবে না বলে আসছেন।


উপকারভোগীরা তাদের কথা বিশ্বাস করে সুদে এনে বা ধারদেনা করে ঘর বাতিল হওয়ার ভয়ে টাকা দিচ্ছেন মেম্বারদের। মেম্বাররা এই টাকার একটি অংশ দিচ্ছেন সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যারদের। এ ভাবে উপকারভোগীদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বাররা। এমনকি এ টাকা নেওয়ায় কোনো লুকোছাপাও নেই। আবার উপকারভোগী অনেকে টাকা না দিতে পারলে মেম্বাররাই অন্যের কাছ থেকে টাকা নিয়ে ঘর তুলে দিচ্ছেন। এমনকি তালিকায় নাম দেওয়া রয়েছে, তদবির করে আগামীতে ঘর এনে দেওয়া হবে, এমন আশ্বাস দিয়েও অগ্রিম টাকা নেওয়া হচ্ছে প্রায় ইউনিয়নেই।


গোপালগঞ্জ জেলার পাঁচ উপজেলার ৬৮ ইউনিয়নের সর্বত্রই এই অবস্থা বিরাজ করার অভিযোগ উঠেছে। তবে ঘর বরাদ্দ বাতিল হওয়ার ভয়ে দরিদ্র এ সব মানুষ মুখ খুলতে চান না। তবে টাকা দেওয়ার কথা অনেকেই স্বীকার করেছেন।


বৌলতলী এলাকার উপকারভোগী গীতা বিশ্বাস, তন্দ্রা বিশ্বাস ও কাঞ্চন বিশ্বাস জানান, ঘর দেওয়ার কথা বলে জনপ্রতিনিধিরা তাদের কাছে ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা করে দাবি করেন। এ টাকা দিতে না পারলে ঘর দেওয়া হবে না বলে জানিয়ে দেন। পরে তারা ধারদেনা ও ঋণ নিয়ে তাদেরকে টাকা দেন। সদর উপজেলার প্রায় সব ইউনিয়নেই টাকা নিয়ে শুধু দরিদ্রদেরকেই নয়, অনেক অবস্থা সম্পন্নদেরকেও এই প্রকল্পের আওতায় ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।


তালিকায় নাম না থাকলেও ঘর পাওয়া ঝর্ণা বিশ্বাস বলেন, আমার নামে কোনো ঘর বরাদ্দ ছিল না। কিন্তু বৌলতলী ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী মেম্বার কামনা বিশ্বাস আমাকে ঘর দিবেন বলে ২৫ হাজার টাকা দাবি করেন। আমিও তাতে ২৫ হাজার টাকা দেই। পরে ঘরটি আমার জমিতে বানানো হয়।


অভিযুক্ত গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার বৌলতলী ইউনিয়নের সংরক্ষিত ২নং ওয়ার্ড মেম্বার কামনা বিশ্বাস টাকা নেওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, আমাদের অফিসে টাকা দিতে হয়েছে। যে কারণে উপকারভোগীদের কাছ থেকে টাকা নিতে হয়েছে। যে বরাদ্দ পায়নি তাকেও টাকার বিনিময়ে ঘর দেওয়া হয়েছে কেন, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটি যাকে দেওয়া হয়েছে সেই উপকারভোগীর আত্মীয়। তার কাছ থেকে ২৫ হাজার টাকা নিলেও তা ফেরত দিয়ে দিয়েছি।


সদর উপজেলার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মিরান হোসেন মিয়া বলেন, আমি বিভিন্ন ইউনিয়নে এই প্রকল্পে অনিয়মের অভিযোগ শুনেছি। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবশ্যই জানানো হবে।
সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়ে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোখলেসুর রহমান সরকার বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একটি কল্যাণমুখী প্রকল্প গ্রহণ করেছেন। যারা এ প্রকল্পটি নিয়ে প্রশ্নের জন্ম দিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


1