LatestsNews
# বহিষ্কার যেন স্থায়ী হয়: আবরারের বাবা# ফের উত্তপ্ত বুয়েট, নতুন করে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ# ‘আবরার হত্যাকে কেন্দ্র করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায় অশুভ শক্তি’# এজাহারভুক্ত বুয়েটের ১৯ আসামিকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বুয়েট কর্তৃপক্ষ।# ‘পাগলা মিজানে’র বাসা থেকে ৬ কোটি ৭৭ লাখ টাকার চেক উদ্ধার# আবরার হত্যায় কারো সংশ্লিষ্টতা থাকলেই গ্রেফতার# বুয়েটে প্রশাসন সতর্ক থাকলে আবরার হত্যা হতো না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী# আবরার হত্যা: অমিত-তোহা ৫ দিনের রিমান্ডে# বুয়েটে সব ধরনের রাজনীতি নিষিদ্ধ: উপাচার্য# আবরার হত্যার প্রতিবাদে বিএনপির কর্মসূচি# স্কুলছাত্রী রিশা হত্যায় ওবায়দুলের মৃত্যুদণ্ড# আমি তো অন্যায় করিনি, পদত্যাগ করবো কেন : বুয়েট ভিসি# আবরার হত্যা মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করা হবে : আইনমন্ত্রী# আবরারকে হত্যার কথা স্বীকার করলেন সকাল# আবরারের হত্যাকারীরা উপযুক্ত শাস্তি পাবে: আইনমন্ত্রী# বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ চান আনিসুল হক# সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, অপরাধীদের শাস্তি পেতেই হবে। # আবরার হত্যাকে পুঁজি করে সাম্প্রদায়িক রাজনীতি হচ্ছে: শিক্ষা উপমন্ত্রী# সময়মত চিকিৎসা পেলে বেঁচে যেত আবরার !# গ্রামের বাড়িতে নেয়া হয়েছে আবরারের মরদেহ, পারিবারিক কবরস্থানে দাফন আজ
আজ মঙ্গলবার| ১৫ অক্টোবর ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

কালিয়ায় দরিদ্রের ঘর নিয়ে অর্থ বাণিজ্যের অভিযোগ : দেখার যেন কেউ নেই



নিজস্ব প্রতিনিধি, গোপালগঞ্জ 

নড়াইল জেলার কালিয়া উপজেলায় হতদরিদ্রদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর “জমি আছে ঘর নেই” আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর পাইয়ে দেয়ার নাম করে ৫৫ জন হতদরিদ্রের কাছ থেকে প্রায় ৩ লাখ টাকা অর্থ বানিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে। একটি প্রতারক চক্র গৃহহীন ওইসব দরিদ্র মানুষকে প্রলোভনের ফাঁদে ফেলে হাতিয়ে নিয়েছে ওই অর্থ। ফলে অসহায় ওই দরিদ্ররা সুদে কারবারিদের দেনায় পড়ে সর্বস্ব হারাতে বসেছে বলে জানা গেছে।


অর্থ বানিজ্যের ঘটনায় অভিযুক্ত ডহর চাঁচুড়ী গ্রামের কানাই গাজী গৃহহীনদের কাছ থেকে টাকা নেয়ার সত্যতা স্বীকার করেছেন।


কালিয়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর আওতায় সারাদেশের ন্যায় কালিয়া উপজেলায়ও জমি আছে, ঘর নেই প্রকল্পের আওতায় অসহায় গৃহহীন মানুষের জন্য সরকারি খরচে গৃহ নির্মাণের কাজ চলছে।

পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের কর্মকর্তা কর্মচারিদের মাধ্যমে সংগৃহীত তালিকা অনুযায়ী গৃহহীনদের নামের তালিকা ইউএনওর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রেরন করা হয়ে থাকে। সে অনুযায়ী গত (২০১৭-১৮) অর্থ বছরে ৩২ টি ঘর বরাদ্দসহ মোট ১৯৭টি ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। চলতি অর্থ বছরের বরাদ্দ এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। সেই সুযোগটি কাজে লাগিয়ে উপজেলার ডহর চাঁচুড়ী গ্রামের মৃত হামিদ গাজীর ছেলে কানাই গাজী সরকারি ঘর পাইয়ে দেয়ার নামে স্থানীয় গৃহহীন অসহায় মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন ওই বিপুল অংকের টাকা বলে উপজেলার চাঁচুড়ী ইউনিয়নের ডহর চাঁচুড়ী গ্রামের ঋষি পল্লীর বিধবা জোসনা বিশ্বাস (৫০) অভিযোগ করে বলেন, স্বামীর মৃত্যুর পর থেকেই তিনি জরাজীর্ন একটি ঘরে বসবাস করে আসছেন।

এরই মধ্যে গত প্রায় এক সপ্তাহ আগে একই গ্রামের কানাই গাজী তাকে একটি সরকারি ঘর পাইয়ে দেয়ার জন্য ১৫ হাজার টাকার চুক্তিতে তার কাছ থেকে ৭ হাজার টাকা, হাসান শেখের স্ত্রী রাস্তায় কাজ করা মহিলা শ্রমিক হালিমা বেগমের কাছ থেকে ৫ হাজার টাকাসহ একই চুক্তিতে ওই গ্রামের পিকুল মোল্যার স্ত্রী আনজিরা বেগম, মৃত তালেব শেখের ছেলে মিজান শেখ, মৃত তালেব শিকদারের ছেলে ইলু শিকদার,

হাদিস শিকদার, লায়েব শিকদার, মৃত আকুববরের ছেলে রজিবুল শেখ, মকবুল শেখের ছেলে ইসমাইল শেখ, মৃত নয়ন মোল্যার ছেলে আলাউদ্দিন মোল্যা, মৃত আজোয়ার মোল্যার ছেলে আল-আমিন মোল্যা, মৃত আনসার শেখের ছেলে শরিফুল শেখ, সবুর বিশ্বাসের ছেলে লিটু বিশ্বাস, মৃত কমল বিশ্বাসের ছেলে অশোক বিশ্বাস, শংকর বিশ্বাস, মৃত লক্ষীকান্তের ছেলে দিলীপ বিশ্বাস, হিরু শেখের ছেলে হাসমত শেখ ও লিয়াকত শেখ, মৃত তোফাজ্জেল মোল্যার ছেলে ওসমান মোল্যা ও মৃত উতার উদ্দিন মোল্যার ছেলে মাসেম মোল্যা, চাঁচুড়ী গ্রামের মৃত বদিয়ার মোল্যার ছেলে আলমগীর মোল্যা, মৃত ছলেমান শেখের ছেলে হেমায়েত শেখ, ওই গ্রামের বেপারী পাড়ার মোন্তাজ খাঁর মেয়ে জাহেদা বেগম ও কৃষ্ণপুর গ্রামের আজিজ শেখের ছেলে নাসির শেখ ও মৃত আবু সাঈদ শেখের স্ত্রী রোজিনা বেগমের নিকট থেকে কানাই গাজী ও তার ভাতিজা আলমগীর গাজী জনপ্রতি ৫ থেকে ৮ হাজার হারে ২ লাখ ৭৬ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে ভুক্তভোগীদের অভিযোগ রয়েছে। ঘর পাইয়ে দেয়ার পর চুক্তির বাকি টাকা পরিশোধ করার কথা রয়েছে।


অভিযুক্ত কানাই গাজী বলেন, সরকারি ভাবে ঘর পাইয়ে দেয়ার জন্য তিনি ওইসব দরিদ্রের কাছ থেকে ১৫ হাজার টাকা হারে চুক্তির মাধ্যমে অনুমোদনের খরচা বাবদ প্রথম বারে জন প্রতি ৩ থেকে ৬ হাজার করে অগ্রিম নিয়েছেন। ঘর নির্মাণের সামগ্রী পৌছানোর পর চুক্তির বাকি টাকা নেবেন।
চাঁচুড়ী ইউপির চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম হিরক বলেছেন, তিনি ঘটনাটি শুনেছেন। বিষটিতে তিনি ইউএনও সাহেবের সাথে পরামর্শ করে আইনী পদক্ষেপ নেবেন।


কালিয়া ইউএনও মো: নাজমুল হুদা বলেছেন, গরীবের ঘর দেয়ার নামে অর্থ বানিজ্যের কথা তিনি শুনেছেন। সুনির্দিষ্ট ও লিখিত অভিযোগ পেলে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেবেন।


1