LatestsNews
# ভবিষ্যতে দেশের সব নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা।# দক্ষিণ আফ্রিকাকে জিততে দিলেন না উইলিয়ামসন# খুলনার শিরোমণি বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালের ডাক্তার-ষ্টাফদের দুই দফা দাবীতে অবস্থান ধর্মঘট পালিত# নড়াইলে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে লোহাগড়ায় মানববন্ধন# নওগাঁয় ২ লাখ ৩২ হাজার জাল টাকা উদ্ধার, গ্রেফতার-১# দিনাজপুর বিরলে দেওয়ানজীদিঘী পুকুরে পোনা মাছ অবমুক্তকরণ # শার্শায় অস্ত্র-গুলিসহ আটক ১ # গাজীপুর শ্রীপুরে পল্লী বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটার বন্ধের দাবীতে মানববন্ধন# নোয়াখালীতে ভুয়া চিকিৎসককে আদালতের নির্দেশে কারাগারে প্রেরণ# জমি সংক্রান্ত পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষের বাড়ি ভাংচুর সহ গাছকর্তন # বেনাপোলে সড়ক দুর্ঘটনায় ট্রান্সপোর্ট ব্যবসায়ী নিহত# এবছর শিক্ষা খাতে বাজেটের আকার বাড়লেও তা শতাংশে কমেছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।# পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে বাংলাদেশি ও চীনা শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষে ৮ চীনা শ্রমিক আহত হয়েছেন।# দেশে ফলের উৎপাদন বাড়াতে প্রতিনিয়ত চলছে নানা গবেষণা- কৃষকদের উৎসাহিত করতে যত আয়োজন# মোবাইল ফোনে বাংলায় এসএমএস (মেসেজ) পাঠালে খরচ অর্ধেক ছাড় দেয়া হবে।# বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য হলেন সেলিমা ও টুকু# মানুষের খাদ্য তালিকার প্রাণীর এসব খাবার এ যেন মানুষ মারার কারখানা# রাজধানীর বায়তুল মোকাররম মার্কেটে আগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে।# আমিরাতে প্রথম বাংলাদেশির গোল্ডেন ভিসা অর্জন# 'মোবাইল রিচার্জে শুল্ক বাড়ানোয় ক্ষতিগ্রস্ত হবে ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা'
আজ বৃহস্পতিবার| ২০ জুন ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

লালমনিরহাটে জনপ্রিয়তায় এগিয়ে আ’লীগের মোতাহার হোসেন



আসাদুজ্জামান সাজু, লালমনিরহাট 


সীমান্তবর্তী পাটগ্রাম ও হাতীবান্ধা উপজেলা নিয়ে গঠিত ১৬-লালমনিরহাট-১ আসন। তিস্তা ও ধরলা নদীর তীরে ভারতীয় সীমান্তে অবস্থিত এই দুই উপজেলা বিভিন্ন কারণে উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত ছিলো দীর্ঘ দিন। এ আসনে দেশ স্বাধীনের পর বঙ্গবন্ধু ও জাতির জনকের সহযোদ্ধা আবেদ আলী এমপি হিসেবে নির্বাচিত হয়ে ছিলেন।

১৯৮৬ সালে এ আসনটি জাতীয় পার্টির দখলে চলে যায়। ৪ বছর পর ক্ষমতার পরিবর্তন হয়েছে বিএনপি ১ বার ও আওয়ামীলীগ ১ বার সরকার গঠন করলেও আসনটি দীর্ঘ ১৪ বছর জাতীয় পার্টির দখলে থাকে। সেই থেকে এই দুই উপজেলা রাজনৈতিক কারণে উন্নয়ন থেকে অনেক পিছে পরে যায়। ২০০১ সালে জাতীয় পার্টির দূর্গ ভেঙ্গে আসনটি দখল করেন আওয়ামীলীগের প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা মোতাহার হোসেন এমপি।

কিন্তু ওই সময় বিএনপি সরকার গঠন করায় উন্নয়ন করতে গিয়ে বিভিন্ন বাধার সম্মুখীন হন তৎকালীন এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোতাহার হোসেন। ২০০৮ সালে মোতাহার হোসেন পুনারায় সংসদ সদস্য নির্বাচত হয় এবং আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসলে পাল্টে যেতে থাকে গোটা লালমনিরহাট জেলার উন্নয়নের চিত্র।

মোতাহার হোসেন এম পি প্রাথমিক ও গণ শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়ে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা, বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোলকান্ড ফুটবল টুর্নামেন্ট চালু এবং দেশের সকল বে-সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সরকারী করণে তিনি ব্যাপক ভুমিকা রাখেন। ফলে প্রাথমিক শিক্ষায় একটি বিল্পব ঘটে। বীর মুক্তিযোদ্ধা মোতাহার হোসেন পর পর ৩ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে বুড়িমারী-লালমনিরহাট রেল পথ ও মহা সড়ক সংস্কার, তিনবিঘা আঙ্গোরপোতা দহগ্রাম হস্তান্তর, তিস্তা নদীতে ২য় সড়ক সেতু নির্মাণ, ধরলা সেতু নির্মাণ, পাটগ্রাম ও হাতীবান্ধা রাবারড্যাম নির্মান, লালমনিরহাট সদর হাসপাতাল ভবন, নার্স টেনিং ভবন ও শিক্ষক প্রশিক্ষন কেন্দ্র স্থাপন ও ভবন নির্মাণ, হাতীবান্ধায় ৬ তলা বিশিষ্ট উপজেলা পরিষদ ও থানা ভবন নির্মাণ, প্রতিটি ইউনিয়নের ভবন নির্মাণ, বিলুপ্ত ছিটমহল গুলো ব্যাপক উন্নয়ন, জেলার প্রতিটি উপজেলায় ফায়ার সার্ভিস নিমার্ণসহ হাতীবান্ধা ও পাটগ্রাম উপজেলার সকল প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও কলেজ গুলোতে ভবন নির্মাণে তার অবদান ছিলো উল্লেখ করার মত। হাতীবান্ধা ও পাটগ্রাম উপজেলা তিস্তা নদীর তীরে অবস্থিত হওয়া এই দুই উপজেলার হাজার হাজার মানুষ প্রতিবছর নদী ভাঙ্গণের শিকার হয়ে আসছে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা মোতাহার হোসেন প্রতিটি নদী ভাঙ্গনের শিকার পরিবারকে পুর্ণবাসন করেছেন। যে কারণে বীর মুক্তিযোদ্ধা মোতাহার হোসেন রাজনৈতিক জনপ্রিয়তার উর্দ্ধে গিয়ে সাধারণ মানুষের ভালোবাসায় ডুবে আছেন।

হাতীবান্ধা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বদিউজ্জামান ভেলু বলেন, মোতাহার হোসেন শুধু এলাকার উন্নয়ন করেনি। দেশের উন্নয়নেও তার ভুমিকা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে অনেক দায়িত্ব দিয়েছিলেন। তিনি সেই দায়িত্ব গুলো সফলতার সাথে পালন করেছেন। তিনি ২০০১ সালে বিরোধী দলীয় হুইপ ছিলেন, ২০০৮ সালে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ও ২০১৪ সাল থেকে ওই মন্ত্রাণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্বে আছেন। মোতাহার হোসেন ২০০৫ সাল থেকে পর পর দুই বার জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে সিনেট সদস্য, রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট সদস্য, জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের সদস্য এবং বানিজ্য মন্ত্রণালয় সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

হাতীবান্ধা সরকারী আলিমুদ্দিন ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ সরওয়ার হায়াত খান বলেন, মোতাহার হোসেন রাজনৈতিক ভাবে যেটুকু জনপ্রিয় তার চেয়ে বেশি জনপ্রিয় ব্যাক্তি মোতাহার হোসেন হিসেবে। তার কাছে কোনো সমস্যায় শুধু স্বাধীনতা বিরোধী ছাড়া সবাই সহযোগিতা পেয়েছেন। তিনি তার ১৫ বছর সংসদ সদস্য থাকাকালীন গোটা জেলাসহ হাতীবান্ধা ও পাটগ্রাম উপজেলার যে উন্নয়ন করেছেন। তা বলে শেষ করা যাবে না। এখন শুধু বাকি তিস্তা নদীর বাঁধ নিমার্ণ। তিনি কথা দিয়েছেন, আওয়ামীলীগ আবার ক্ষমতায় এলে তিস্তা নদীর বাঁধ নিমার্ণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।

পাটগ্রাম উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম লাজু বলেন, হাতীবান্ধা-পাটগ্রামের উন্নয়নে বীর মুক্তিযোদ্ধা মোতাহার হোসেন এমপি’র বিকল্প নেই। তার আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন নিশ্চিত, তবে জোট গত ভাবে নির্বাচন হলে কে মহাজোটের প্রার্থী হবেন, সেটা দেখার বিষয়। মোতাহার হোসেন ছাড়া বিকল্প কেউ প্রার্থী হলে আসনটি আমাদের হাত ছাড়া হয়ে যেতে পারে। 


1