LatestsNews
# গুলশান-১ এর ডিএনসিসি মার্কেটে মেয়াদোত্তীর্ণ শিশু খাদ্য # এডিসের লার্ভা ধ্বংসে বাড়ি বাড়ি অভিযানে নগরবাসীর অসহযোগিতার অভিযোগ# চামড়া নিয়ে টানাপোড়েন থামছেই না - নিয়মিত ক্রেতাদের তৎপরতা দেখা যায়নি। # কাশ্মীর ইস্যুতে মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বিবৃতি প্রকাশ# দাবি-দাওয়া মানলেই মিয়ানমারে ফিরবে রোহিঙ্গারা# ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিচারকের কক্ষে বিরিয়ানি খান রাজসাক্ষী জজ মিয়া# গাইবান্ধার ঝিনুকের তৈরী চুন উৎপাদনকারি যুগি পরিবারগুলো এখন বিপাকে# শিক্ষা নীতিমালা অনুমোদন করায় মোবারক হোসেন প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের অভিনন্দন# এডিস মশার দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের জন্য বাংলাদেশ সফরে আসছেন উচ্চ পর্যায়ের বিদেশি বিশেষজ্ঞ প্রতিনিধিদল। # শেখ হাসিনাকে ভারত সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। # মেঘনা নদীর ভাঙন গাফিলতি করা সেই প্রকৌশলীকে কী শাস্তি দেওয়া হয়েছে? : প্রধানমন্ত্রী# সংসদ সদস্য না হয়েও বিলাসবহুল গাড়িতে শুল্কমুক্ত সুবিধা পেলেন মুহিত# দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) দুর্নীতির বস্তাভর্তি টাকাসহ হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা গ্রেপ্তার# নায়াখালীতে সিএনজিচালিত ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে নারী-শিশুসহ আহত ১২# পচা মাছ মজুদ ও বিক্রির দায়ে স্বপ্ন এক্সপ্রেস সুপার শপকে জরিমানা# ভারতীয় দলের ওপর হামলার শঙ্কা, পিসিবিকে মেইল# ২০২৩ সালের মধ্যে দেশের ৬৬ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুপুরের খাবার পাবে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা# মিন্নির জামিন শুনানি, যা বললেন হাইকোর্ট# ভারতের বহুল আলোচিত ইসলামিক বক্তা ডা. জাকির নায়েক এবার মালয়েশিয়ায় নিষেধাজ্ঞার মুখে# নেত্রীকে মুক্ত করতে ব্যর্থ বিএনপি এখন বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে মন্তব্য : ওবায়দুল কাদের।
আজ শনিবার| ২৪ আগস্ট ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

ঝিনাইদহে এবার মাঠভরা পাকা ধান, দাম না থাকায় কৃষকদের স্বপ্ন ভংঙ্গ



 জাহিদুর রহমান তারিক ঝিনাইদহ 


বৈরী আবহাওয়ায় গত বোরো মৌসুমে কৃষকেরা ক্ষেতের ধান ঠিকমত ঘরে তুলতে পানেননি। ধারদেনায় চাষ করে অনেকের খরচের টাকাটাও তুলতে পারেননি। কেননা তাদের ক্ষেতের অনেক ধান পাকার সময়ে লাগাতর কয়েক দিনের দমকা হাওয়ার সাথে বর্ষার পানিতে একাকার হয়ে পঁচে গলে ক্ষেতেই নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। কৃষকদের সূত্রে জানা গেছে, বোরো মৌসুমে ঝিনাইদহ কালীগঞ্জ উপজেলার কৃষকেরা ঠিকমত পাকাধান ঘরে তুলতে না পেরে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। এ লোকসান কাটিয়ে উঠতে চলতি আমন মৌসুমে কোমর বেধে লেগেছে। মাঠের পর মাঠে চাষ হয়েছে আমন ধান। মাঠ পর্য়ায়ের কৃষি আফিসাররা বলছে, চলতি আমন মৌসুমে কালীগঞ্জ উপজেলাতে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি ধান চাষ হয়েছে।

কালীগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিস জানায়, এ উপজেলাতে চলতি মৌসুমে আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৫ হাজার হেক্টোর জমিতে। কিন্তু চাষ হয়েছে ১৮ হাজার হেক্টোর জমিতে। অর্থাৎ লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩ হাজার হেক্টোর বেশি জমিতে আমন চাষ হয়েছে। সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের মাঠের পর মাঠের আমন ধান নজরে পড়ে। ক্ষেতের ধানগুলো পাকতে শুরু করেছে। কৃষকসূত্রে জানা গেছে, গত বোরো মৌসুমে যখন সারা মাঠের ধান পেকেছিল তখন অভিষাপ হয়ে আসে বৈরি আবহাওয়া।

এ সময় ঝড়ো বাতাসে মাঠের পর মাঠের পাকা ধান ক্ষেতে পড়ে মাটির সাথে মিশে যায়। এরপর কয়েক দফা ভারী বর্ষনে ক্ষেতে হাটুপানি জমে ধান গাছ গুলো পানির নিচে চলে যায়। সব মাঠের ধান এক সাথে পাকার কারণে এবং সব কৃষকের প্রয়োজনের সময়ে বৃষ্টির ধানের ভরা মৌসুমে কৃষি শ্রমিক আয়ত্বে নিতে প্রতিযোগীতা শুরু হয়। এ সুযোগে অধিক মজুরী হাঁকাতে থাকেন শ্রমিকেরা। সাড়ে ৩ থেকে ৪’শত টাকার মজুরীর স্থলে ১ হাজার থেকে ১২’শ টাকা দিয়েও অনেকে কৃষি শ্রমিক মেলাতে পারেননি।

এমন অবস্থায় কৃষকেরা কাঁদামাটি ভরা ভেজা ধান ঘরে তুললেও পারলেও অনেক কৃষক তাদের অপেক্ষাকৃত নিচু জমির ধান গুলো ঘরে তুলতে পারেননি। পানিতে হাবুডুবু খাওয়া ক্ষেত মালিক অনেকে ক্ষেতেই যাননি। ফলে পানিতে পঁচে গলে নষ্ট হয়েছে তাদের পরিশ্রমের ধন। কৃষকদের ভাষ্য বিগত বোরো মৌসুমে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে কমপক্ষে ২৫ ভাগ ধান ঘরে তুলতে না পেরে কৃষকেরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন।

তবে তারা এটাও বলেন, এ ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে কৃষকেরা চলতি আমন মৌসুমে রেকর্ড পরিমানে আমন চাষ করেছেন। ক্ষেতে ধানও হয়েছে ভালো তারা আশা করছেন লোকসান কাটিয়ে উঠতে পারবেন। কালীগঞ্জ উপজেলার জয়নগর গ্রামের বাসিন্দা স্বপন কুমার বিশ্বাস, ও রামনগর গ্রামের মহিদুল ইসলাম জানান, তাদের গ্রামের ফসলী মাঠটি বেশ নিচু। কিন্তু ধান পাকার সময়ে সপ্তাহজুড়ে ভারী বর্ষায় তাদের মাঠের সব ধান পানির নিচে চলে যায়। সে সময়ে জলাবদ্ধ ক্ষেতের ধান কৃষি শ্রমিকদের অর্ধেকটা দেয়ার শর্তেও শ্রমিকেরা রাজি হয়নি। ফলে বেশির ভাগ নিচু জমির ধান ক্ষেতেই পঁচে নষ্ট হয়ে গেছে।

তিনি জানান, কৃষি নির্ভর তাদের এ গ্রামটিতে সে সময়ে বাড়ি বাড়ি হাহাকার চলছিল। সে ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে আমন মৌসুমে কৃষকেরা কোমর বেধে লেগে ধান লাগিয়েছেন। ক্ষেতে ধানও হয়েছে ভালো। গ্রামের কৃষকেরা আশা করছেন বোরো মৌসুমের ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকেরা ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন। কামালহাট গ্রামের কৃষক হাফিজুর রহমান জানান, গত বোরো মৌসুমে ৩ বিঘা বোরো ধানের চাষ করেছিলেন। ক্ষেতে ধানও হয়েছিল ভালো। অর্ধেকটা ধান ভালোভাবে ঘরে তুলেছিলেন।

বাকিটা লাগাতর বর্ষার পানিতে ডোবা ধান ঘরে তুলেছিলেন কৃষি শ্রমিকের অতিরিক্ত টাকা দিয়ে। তারপরও ডোবা জমির ধান বাজারে নিয়ে খুব কম দামে বিক্রি করতে হয়েছে। তিনি বলেন, গ্রামে তার একার নয় অনেক কৃষকেরই তার চেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছিল। অনেকে বিলের মধ্যকার ডোবা জমির পাকা ধান ঘরে তুলতে পানেনি। তিনি বলেন, এ ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে আমন মৌসুমে তাদের গ্রামে রেকর্ড পরিমানে ধান চাষ েেকছন। সারা মাঠের ধান ইতোমধ্যে পাক ধরেছে সপ্তাহ খানেকের মধ্যে কাঁটা শুরু হবে। আশা করছেন বিগত দিনের লোকসান কাটিয়ে উঠতে পারবেন। সাদিকপুর গ্রামের কৃষক সাজেদুল ইসলাম জানান, তিনি গত বোরো মৌসুমে ১১ বিঘা জমিতে বোরোর চাষ করেছিলেন।

দূর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ায় কৃষি শ্রমিকদের দ্বিগুন টাকা মজুরী দিয়ে বহু কষ্ট করে ঘরে তুলতে পেরেছিলেন ৯ বিঘা জমির ধান। আর বাকি ৩ বিঘা পানির নিচে হাবুডুবু খাওয়া ধান তুলতে না পেরে ক্ষেতেই পঁচে গলে নষ্ট হয়েছিল। এটা কাটিয়ে উঠতে আমন মৌসুমে ১৩ বিঘা ধান চাষ করেছেন। ক্ষেতের ধানের অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে এ মৌসুমে বেশ লাভ করতে পারবেন। এ ব্যাপারে কালীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহিদুল করিম জানান, বিগত বোরো মৌসুমে কৃষকেরা প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারণে কৃষকেরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এখানে কারও কিছু করার নেই। কারণ প্রকৃতিতে কারও হাত নেই। তিনি বলেন, বিগত কয়েক বছর ধানের দাম ভালো পাওয়া এবং বোরোর ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে এ উপজেলাতে রেকর্ড পরিমানে আমন ধানের চাষ হয়েছে। তার দাবি, ক্ষেতে যে পরিমানে ধান রয়েছে আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি ধান উৎপাদন হবে এতে কোন সন্দেহ নেই। যা দেশের খাদ্যের চাহিদা মেটাতে ভ’মিকা রাখবে।


1