LatestsNews
# গুলশান-১ এর ডিএনসিসি মার্কেটে মেয়াদোত্তীর্ণ শিশু খাদ্য # এডিসের লার্ভা ধ্বংসে বাড়ি বাড়ি অভিযানে নগরবাসীর অসহযোগিতার অভিযোগ# চামড়া নিয়ে টানাপোড়েন থামছেই না - নিয়মিত ক্রেতাদের তৎপরতা দেখা যায়নি। # কাশ্মীর ইস্যুতে মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বিবৃতি প্রকাশ# দাবি-দাওয়া মানলেই মিয়ানমারে ফিরবে রোহিঙ্গারা# ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিচারকের কক্ষে বিরিয়ানি খান রাজসাক্ষী জজ মিয়া# গাইবান্ধার ঝিনুকের তৈরী চুন উৎপাদনকারি যুগি পরিবারগুলো এখন বিপাকে# শিক্ষা নীতিমালা অনুমোদন করায় মোবারক হোসেন প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের অভিনন্দন# এডিস মশার দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের জন্য বাংলাদেশ সফরে আসছেন উচ্চ পর্যায়ের বিদেশি বিশেষজ্ঞ প্রতিনিধিদল। # শেখ হাসিনাকে ভারত সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। # মেঘনা নদীর ভাঙন গাফিলতি করা সেই প্রকৌশলীকে কী শাস্তি দেওয়া হয়েছে? : প্রধানমন্ত্রী# সংসদ সদস্য না হয়েও বিলাসবহুল গাড়িতে শুল্কমুক্ত সুবিধা পেলেন মুহিত# দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) দুর্নীতির বস্তাভর্তি টাকাসহ হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা গ্রেপ্তার# নায়াখালীতে সিএনজিচালিত ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে নারী-শিশুসহ আহত ১২# পচা মাছ মজুদ ও বিক্রির দায়ে স্বপ্ন এক্সপ্রেস সুপার শপকে জরিমানা# ভারতীয় দলের ওপর হামলার শঙ্কা, পিসিবিকে মেইল# ২০২৩ সালের মধ্যে দেশের ৬৬ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুপুরের খাবার পাবে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা# মিন্নির জামিন শুনানি, যা বললেন হাইকোর্ট# ভারতের বহুল আলোচিত ইসলামিক বক্তা ডা. জাকির নায়েক এবার মালয়েশিয়ায় নিষেধাজ্ঞার মুখে# নেত্রীকে মুক্ত করতে ব্যর্থ বিএনপি এখন বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে মন্তব্য : ওবায়দুল কাদের।
আজ রবিবার| ২৫ আগস্ট ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

শার্শায় ভাল ফলন ও লাভের আশা করছে গম চাষিরা



শহিদুল ইসলাম,বেনাপাল প্রতিনিধি।

অভাবনীয় পুষ্টিগুণ ভরা একটি ফসলের নাম গম। ভাতের পাশাপাশি গমের রয়েছে ব্যাপক চাহিদা। চিকিৎসকরা বলেন, গম দিয়ে তৈরী হয় রুটি, বিস্কুট,কেক সহ নানা রকম খাদ্য। এটি শরীরের জন্য খুব প্রয়াজনীয় একটি খাবার। 


গম চাষে একটি লাভ জনক ফষল হলেও বর্তমান সময়ে এ চাষের প্রতি মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন চাষিরা।যে গম দেশের মাঠে ব্যাপক ভাবে চাষ হতো সেই গম চাষের প্রতি অনিহা দেখা দিয়েছে চাষিদের মাঝে। গম চাষে ব্যাপক বিস্তার লাভ করা উৎপাদনশীল ফষলটি আজ চাষের অনুপযােগী হয়ে পড়েছে। এই গমই চাষের মধ্যে দেশে দানা ফষল হিসাবে দ্বিতীয় স্হান অধিকার করে। আর আজ ক্রমেই এই গম চাষে ব্যাপক ভাবে হ্রাস পেয়েছে।

গত কয়েক বছর পিছনের দিকে লক্ষ করলে আমরা দেখতে পাই গম চাষের ব্লাষ্ট ভাইরাস কতটা ক্ষতি করেছে এই গম চাষে। চলতি বছর যশোরের শার্শা উপজলায় গমের আবাদ হচ্ছে মাত্র ৭ হেক্টর জমিতে। যা বিগত কয়েক বছর আগে এই উপজেলাতে গম চাষ হয়েছে ৫শ হেক্টরের উপরের। যা তারও আগে ১ হাজার হেক্টর ছাড়িয়ে ছিলো। গম চাষের প্রতি চাষিদের চলতি গম আবাদ এক প্রকার নিরুৎসাহিত করেছেন বলে জানান স্হানীয় কৃষি বিভাগ।

কৃষি বিভাগ সুত্রে জানা যায়, যশােরের শার্শা উপজেলায় কৃষি পণ্য উৎপাদন হিসাবে এক সময় বিখ্যাত ছিলাে। বছরের বিভিন্ন সময়ের নানা প্রতিকুলতার মধ্যেও সব সময় ব্যস্ত থাকতাে কৃষি কাজ। এই উপজেলার চাষিদের চাষযােগ্য ফষলের অন্যতম একটি ফষল হিসাব ছিল এই গমের আবাদ। কি হঠাৎ করেই গত কয়েক বছর ধরেই ব্যাপক ভাটা পড়ে গম চাষে। গমে ক্ষতিকর ব্লাষ্ট ভাইরাস লাগায় ব্যাপক ভাবে ক্ষতির সম্মুখিন হয়ে পড়ে এই উপজেলা সহ দেশর বিভিন্ন চাষযােগ্য অঞ্চল।

প্রথম অবস্হায় ক্ষতিটি পুশিয়ে নিয়ে পুনারাই পরের বছর আবারাে গম চাষ করে একই ভাবে আর্থিক ও মানষিক ভাবে ভেঙ্গে পড়েন কৃষককুল। গম চাষে মন্দা ভাবার কারনে এই চাষের থেকে মুখ ফিরিয়ে নেন গম চাষিরা। আর তারপর গম চাষে থেকে এক বারেই বিরত থাকতে অনুরাধ করেন কৃষি বিভাগ। পরপর কয়েক বছর এ চাষে বিরত থাকার পর আবারাে এই উপজেলায় গম চাষ শুরু হয়েছে। 


যা হয়েছে তা ১শ শতাংশর মধ্যে ১০ শতাংশরও কম। চলতি গম আবাদে মৌসুমে আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় এবং কােন রকম ব্লাষ্ট ভাইরাস না থাকায় গম আবাদে ভালো হয়েছে এবং চাষিরা লাভবান হবে বলে জানান কৃষি বিভাগ পাশাপাশি এখনাে কােন রকম ঝুঁকি না নিয়ে এ বছরও গম চাষিদের নিরুতসাহিত করেছেন কৃষি কর্মকর্তারা।

গম চাষিরা জানান,শত বাঁধা বিপত্তি ভয় ও নানাবিধ প্রতিকুলতাকে দুরে ঠেলে আমরা গম চাষ করছি। কােন রকম দুর্যাগ না আসলে আশা করছি ভালাে ফষল ঘরে তুলতে পারবাে পাশাপাশি লাভের মুখ দেখবাে।

শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবীদ সৈাতম কুমার শীল জানান, চলতি মৌসুমে এ উপজেলায় ৭ হেক্টর জমিতে গম চাষ হয়েছে। বিগত বছর গম ব্লাষ্ট ভাইরাস লাগার কারনে কৃষকদের গম আবাদ থেকে নিরুতসাহিত করেছি এবং এখনও করেছি যার কারনে চলতি ২০১৯ সাল গমের আবাদ পুরাপুরি ভাবে কম গিয়ে মাত্র ৭ হেক্টর জমিতে কৃষক গমের আবাদ করেছে।

ভাইরাস বর্তমানে এখনও লাগেনি যদি না দেখা দেয় তাহলে আবারাে আগামী বছর থেকে আশা করছি কৃষকরা এ চাষের উপর মনােযাগী হবে। আমি এবং আমার কৃষি বিভাগ সর্বদায় গম চাষিদরেকে সঠিক পরিচর্যা পরামর্শ প্রদান ও সহযাোগীতা করছি। আশা করি এবছরে গমের আবাদ ভাল হবে।


1