LatestsNews
# কুড়িগ্রামে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় ৬জন গ্রেপ্তার# গাজীরহাট ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম আদালত সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয় # শিরোমণি স্পোর্টিং ক্লাব আয়োজিত ৮দলীয় মিনি ফুটবল টুর্ণামেন্টের উদ্বোধন# শৈলকুপায় অর্ধশত বছরেও আলোর মুখ দেখেনি স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদরাসা!# কালীগঞ্জে পিতা হত্যার দায়ে পুত্রের যাবজ্জীবন কারাদন্ড# ‘আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় শিল্প মন্ত্রণালয়ের কাজে মন্থর গতি’# রাজধানীর সদরঘাটে লঞ্চের ধাক্কায় ডিঙি নৌকা ডুবে নিখোঁজ দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।# ঢাকা-উত্তরবঙ্গ রেলরুটে আন্তঃনগর রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত হয়ে সকল প্রকার ট্রেন চলাচল বন্ধ # পলিথিন থেকে জ্বালানি তেল উৎপাদন উদ্ভাবক জামালপুরের তৌহিদুল ইসলাম।# সিলিন্ডার পুনঃপরীক্ষার সনদ ছাড়া গ্যাস মিলবে না গাড়িতে# প্রতিযোগিতায় এগিয়ে রাখতে দেশীয় মোবাইল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো প্রস্তাবিত বাজেটে বেশকিছু শুল্ক সুবিধা পাচ্ছে।# প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মান বন্ধ রয়েছে গ্রামবাসীদের আবেদন জায়গা পুনঃনির্ধারন# মেহেরপুরের গাংনীতে দু’পক্ষের গোলাগুলিতে মাদক ব্যবসায়ী নিহত# ‘নারী ও কন্যা শিশুর প্রতি সংহতি’ বিষয়ে আলোচনা সভা# পায়রা কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে দেশীয় শ্রমিকদের ক্ষোভের নেপথ্যে চীনাদের 'অকথ্য নির্যাতন'# চাঁপাইনবাবগঞ্জে মনিরুল হত্যা মামলায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড# ডিআইজি মিজানের সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের নির্দেশ# খুলনা শিরোমণি বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালের ডাক্তার-ষ্টাফদের দুই দফা দাবীতে লাগাতর কর্মসুচি শুরু# অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টস হারল বাংলাদেশ# দিনাজপুরের হিলিতে দেশের প্রথম লৌহ খনির সন্ধান পাওয়া গেছে।
আজ মঙ্গলবার| ২৫ জুন ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

হরিণাকুন্ডুর ইউএনও সাইফুল ইসলাম কর্তৃক টিনের পরিবর্তে পাকা ঘর পেল ৬৩ জন হতদরিদ্র পরিবার



জাহিদুর রহমান তারিক,ঝিনাইদহ

ঝিনাইদহে চলছে নির্বাহী কর্মকর্তাদের সততা লড়ায়ের প্রতিযোগীতা। আশ্রয়ন প্রকল্পের টিনের পরিবর্তে বরাদ্ধকৃত অর্থদিয়ে করে দেওয়া হচ্ছে পাঁকা ঘর। হরিণাকুন্ডু উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম এর হাতদিয়ে শুরু টিনের পরিবর্তে পাঁকা ঘর নির্মান। তার দেখাদেখি জেলার ৫ উপজেলাও শুরু হয় টিনের পরিবর্তে পাঁকা ঘর নির্মান।

প্রত্যেকে সততার সাথে প্রকল্পের সম্পুর্ন অর্থদিয়ে পাঁকা ঘর করে দিচ্ছেন হতদরিদ্রদের। ইতিমধ্যে হস্তান্তর করা হয়েছে হরিণাকুন্ডু উপঝেলার বরাদ্ধকৃত ৬৩টি পাঁকা ঘর। জানা যায় ‘জমি আছে ঘর নেই’ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের মাধ্যমে সারা দেশে হতদরিদ্রদের টিন সেডের ঘর নির্মান কাজ চলছে।

এই প্রকল্পে ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলায় বরাদ্ধ আসে ৬৩ টি ঘরের জন্য ৬৩ লাখ টাকা। অর্থাৎ প্রতিটি ঘরের জন্য আসে এক লাখ টাকা। হরিণাকুন্ডু উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সুত্রে জানাযায়, সরকারি ভাবে প্রতিটি ঘরের মাপ দেওয়া হয়েছে সাড়ে ১৬ ফুট লম্বা আর সাড়ে ১০ ফুট আড়। এছাড়া বারান্দা রয়েছে ৫ ফুট।

সঙ্গে আছে একটি বাথরুম। ইট দিয়ে পোতা পর্যন্ত করে তার উপর টিনের বেড়া দেওয়ার কথা ছিল। উপরের চালও হবে টিনের। এভাবে ঘরগুলো ওই এক লাখ টাকা ব্যয় করেই নির্মান শেষ করতে হবে। হরিণাকুন্ডু উপজেলার ৬৩ টি ঘর করার জন্য সরকারি ভাবে নির্দেশ দেয় এবং বাজেট আসে ৬৩ লক্ষ টাকা। এই নির্দেশ পেয়ে উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তাদের নিয়ে দ্বিধায় পড়েন নির্বাহী কর্মকতা। কিভাবে ঘরগুলো বাস্তবায়ন করা যায়।

তারা ভাবতে থাকে ঠিকাদার বা অন্য কারো মাধ্যমে ঘরগুলো তৈরী করলে সব অর্থ ব্যয় করেও ভালো ঘর করা যাবে না আবার এই নি¤œ মানের ঘর নিয়ে জনসাধারনের মনে নানা প্রশ্ন উঠে আসবে। এ সময় নকশা অনুযায়ী টিনের ঘর তৈরী করতে তারা স্থানিয় একটি বাজেট করেন। সেখানে দেখতে পাই সচ্ছতার সঙ্গে কাজ করার পরও টিনের ঘর তৈরীতে তাদের ব্যয় হবে ৭৫ থেকে ৮৫ হাজার টাকা।

বরাদ্ধ এক লাখ টাকার মধ্যে ১৫ থেকে ২৫ হাজার টাকা সাশ্রয় হবে। তখন তারা ইটের পাঁকা ঘর তৈরী করতে কত খরচ হবে তার একটা পৃথক বাজেট করেন। সেখানে দেখা যায় স্থান ভেদে এক লাখের দুই তিন হাজার টাকা বেশী খরচ হবে। শহর থেকে গ্রুামের দুরুত্বের কারনে খরচ কম বেশী হবে। এই বাজেট করার পর তাৎক্ষনিক ভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় তারা ঘরগুলো পাঁকা করবে। হতদরিদ্র টিনের পরিবর্তে পাবে পাঁকা ঘর। যা তাদের সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধি করবে। কিন্তু মুল নকশার বাহিরে এই কাজ। তারপরও পাঁকা ঘর নির্মানে জোর দেয় এবং উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের পরামর্শ নেন। তারপর শুরু হয়ে যায় তাদের কর্মযজ্ঞ। কাপাশাহাটিয়া ইউনিয়নের আক্কাস মন্ডলের ছেলে আলম মন্ডল বলেন, আমি দিনমজুর। হাজার চেষ্টা করেও পাঁকা ঘরে ঘুমানোর স্বপ্ন বাস্তবায়ন সম্ভব ছিল না। মাত্র ২ শতক জমির উপর বেড়ার ঘরে ছেলে মেয়েকে নিয়ে বসবাস করতাম। এই শীতে বেড়ার ভিতর বাতাশ প্রবেশ করায় ঠিকমতো ঘুমানো যেত ন। আমরা এখন পাঁকা ঘরে ঘুমানোর স্বপ্ন দেখি। মান্দারতলা গ্রামের মৃত আনছার শেখের স্ত্রী আমেনা বেগম বলেন, মাত্র ৩ শতক জমির উপর মাটির ঘর ছিল।

অটো ব্রিকস্ এর ইট দিয়ে পাঁকা ঘর করে দিচ্ছে সরকার। সেই ঘরে তারা ঘুমাচ্ছেন। যা তাদের কাছে ছিল শুধুই কল্পনা। হরিণাকুন্ডু উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, টিন দিয়ে তৈরী ঘরের জন্য যে বাজেট তারা পেয়েছিলেন সেই বাজেটেই সেমি পাঁকা ঘর নির্মান করেছেন। আর এটা সম্ভব হয়েছে জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ স্যারের পরামর্শে ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শুভাগত বিশ্বাসের সহযোগিতায় এবং বরাদ্ধ পাওয়া টাকার সঠিক ব্যবহারের কারনে। বাড়তি কোনো বরাদ্ধ ছাড়াই অটোব্রিকস্ এর ইট দিয়ে ঘর নির্মান করা হয়েছে। গত সেপ্টেম্বর মাস থেকে শুরু হয়ে এই কাজ শেষ হয়েছে। ইতিমধ্যে উপকারভোগিদের ঘর বুঝে দেওয়া হয়েছে। যা পেয়ে খুশি হতদরিদ্র পরিবারগুলো।

 


1