LatestsNews
# কুড়িগ্রামে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় ৬জন গ্রেপ্তার# গাজীরহাট ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম আদালত সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয় # শিরোমণি স্পোর্টিং ক্লাব আয়োজিত ৮দলীয় মিনি ফুটবল টুর্ণামেন্টের উদ্বোধন# শৈলকুপায় অর্ধশত বছরেও আলোর মুখ দেখেনি স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদরাসা!# কালীগঞ্জে পিতা হত্যার দায়ে পুত্রের যাবজ্জীবন কারাদন্ড# ‘আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় শিল্প মন্ত্রণালয়ের কাজে মন্থর গতি’# রাজধানীর সদরঘাটে লঞ্চের ধাক্কায় ডিঙি নৌকা ডুবে নিখোঁজ দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।# ঢাকা-উত্তরবঙ্গ রেলরুটে আন্তঃনগর রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত হয়ে সকল প্রকার ট্রেন চলাচল বন্ধ # পলিথিন থেকে জ্বালানি তেল উৎপাদন উদ্ভাবক জামালপুরের তৌহিদুল ইসলাম।# সিলিন্ডার পুনঃপরীক্ষার সনদ ছাড়া গ্যাস মিলবে না গাড়িতে# প্রতিযোগিতায় এগিয়ে রাখতে দেশীয় মোবাইল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো প্রস্তাবিত বাজেটে বেশকিছু শুল্ক সুবিধা পাচ্ছে।# প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মান বন্ধ রয়েছে গ্রামবাসীদের আবেদন জায়গা পুনঃনির্ধারন# মেহেরপুরের গাংনীতে দু’পক্ষের গোলাগুলিতে মাদক ব্যবসায়ী নিহত# ‘নারী ও কন্যা শিশুর প্রতি সংহতি’ বিষয়ে আলোচনা সভা# পায়রা কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে দেশীয় শ্রমিকদের ক্ষোভের নেপথ্যে চীনাদের 'অকথ্য নির্যাতন'# চাঁপাইনবাবগঞ্জে মনিরুল হত্যা মামলায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড# ডিআইজি মিজানের সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের নির্দেশ# খুলনা শিরোমণি বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালের ডাক্তার-ষ্টাফদের দুই দফা দাবীতে লাগাতর কর্মসুচি শুরু# অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টস হারল বাংলাদেশ# দিনাজপুরের হিলিতে দেশের প্রথম লৌহ খনির সন্ধান পাওয়া গেছে।
আজ মঙ্গলবার| ২৫ জুন ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

কুড়িগ্রামে ধানের দাম নেই ঈদ কেনাকাটা নিয়ে সংশয়ে কৃষক



কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি
 
কুড়িগ্রামে এক মণ ধান বিক্রি করে এক কেজি মাংস কিনতে পারছেনা কৃষক। পরিবার পরিজনদের ঈদ কেনাকাটা নিয়েও দুশ্চিন্তায় ধান চাষীরা। ধানের দাম না থাকায় অনেকেই ঋণ করে ধান চাষ করলেও ঋণ পরিশোধ করতে বিপাকে পড়ছেন কৃষক।
 
ফলে এক প্রকার ঈদ আনন্দ নিয়ে উদ্বিঘœ সময় পার করছে চাষী। ধানের ন্যায্য মূল্য না পেলে ধান চাষে কৃষক আগ্রহ হারিয়ে ফেলার আশংকা কর্তৃপক্ষের।
 
জেলায় আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় চলতি বোরো মৌসুমে ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। ধানের বাজারে নজির বিহীন ধস নামার কারণে নেই কৃষকের মুখে হাসি। বর্তমানে ৪৩০ হতে ৫০০ টাকায় প্রতি মণ ধান বিক্রি হলেও বাজারে এক কেজি গরুর মাংস ৫০০ টাকা, খাসির মাংস ৭০০টাকাসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ কেজি প্রতি ৪০০ টাকার উর্দ্ধে বিক্রি হচ্ছে।
 
শাড়ি ৬০০টাকাসহ ছোট-বড়দের ঈদ পোশাকও বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। ফলে দরিদ্র চাষীরা এক মণ ধান বিক্রি করেও কিনতে পারছে না এসব সামগ্রি।
 
এতে করে অনেক চাষী ঈদের কেনাকাটা করতে পারেনি। আসন্ন ঈদুল ফিতরে পরিবার পরিজনদের ঈদ আনন্দ নিয়ে দুশ্চিন্তায় দিন পার করছেন কৃষক। এবারে বিঘা প্রতি ১০/১২ হাজার টাকা খরচ করে ফলন পেয়েছে ২০/২৩ মণ ধান।
 
বাজারে ধানের দাম না থাকায় কৃষকদের বিঘা প্রতি লোকসান গুণতে হচ্ছে দু/আড়াই হাজার টাকা। ধান বিক্রি করে সার, তেল, কীটনাশকসহ শ্রমিক মজুরির দাম উঠাতেই হিমশিম খাচ্ছেন কৃষক।
 
প্রতিবছরের ন্যায় এবারো অনেকেই ধার দেনা করে চাষ করলেও সেই ঋণ পরিশোধ করতে বিপাকে পড়ছেন। এমন অবস্থা বিরাজ করলে আগামীতে ধান চাষে বিমুখ হবেন সাধারণ কৃষকগণ।
 
চিলমারী উপজেলার মাচাবান্দা গ্রামের কৃষক মকবুল হোসেন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, হামার কি কেউ খবর নিবে হামার ক্ষতি হইলেই কি আর লাভ হইলেই বা কি?
 
রাজারহাট উপজেলার টগরাইহাটের কৃষক নজির মিয়া বলেন, এক বিঘা জমি বোরো ধান চাষ করতে এবার খরচ গেছে প্রায় ১০হাজার টাকা। ফলন পাইছি প্রায় ২১মণ। বর্তমান ধানের দাম হিসেবে ২১মণ ধান বিক্রি করলে হয় সাড়ে ৯হাজার টাকা। এলা বোঝো ধান চাষ করিয়া হামার লাভ কত?
ফুলবাড়ি উপজেলার নাওডাঙ্গার কৃষক আব্দুল সাত্তার,বাদশা মিয়াসহ অনেকেই বিঘা প্রতি জমিতে বোরো ধান আবাদের খরচ তুলে ধরেন। তারা বলেন, দেড় প্যাকেট বীজ ৫০০টাকা, জমিতে হালচাষ ও বীজ রোপন করা মজুরীসহ সাড়ে ৩ হাজার টাকা, সেচ ও মেশিন ভাড়া আড়াই হাজার টাকা, সার-কীটনাশক স্প্রে করা আড়াই হাজার টাকা, জমি নিরানী ৫০০ টাকা,ধানকাঁটা-মাড়াইসহ সাড়ে ৩ হাজার টাকা।
 
এতে করে এবার ধান চাষ করে লোকসানে পড়তে হচ্ছে। এমন লোকসান হলে কৃষক ধান আবাদ করবে না। এক মণ ধান বিক্রি করে ১ কেজি মাংসও মেলে না।
 
ঈদের কেনাকাটা কিভাবে করব।
সদর উপজেলার কাঁঠালবাড়ীর শিবরাম এলাকার কৃষক হাছেন,মিজান জানান,যে ঋণটা করছি। ধানের ফলন দেখিয়া মনে করছি বিক্রি করিয়া দেনা শোধ করমো। কিন্তু ্ঋণতো শোধ করা দূরের কথা আরো ঋণ করিয়া ধান কাটা নাগে। ঋণতো শোধ তো দূরের কথা উল্টো আরো ঋণে পরছি।
 
সরকার ১ হাজার ৪০ টাকা দাম ঠিক করে দিলেও সাধারণ কৃষক তো পায় না। তাই কৃষকদের দাবী ধানের দাম কমপক্ষে ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা মণ হলে ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে পারবেন।
 
ধানের বাম্পার ফলন হওয়ায় পুরুষ শ্রমিকরা চুক্তিভিত্তিক আর নারী শ্রমিক দিন মজুরি হিসেবে ধান কাটছেন।
 
শ্রমিক লীলাবতি, বুলবুলি খাতুন বলেন, ভাল ফলন হওয়া ৩শ টাকা এবং পুরুষ শ্রমিক ইয়াকুব, মজিবর জানান, আমরা ১২জনের একটি দল আছি।
 
চুক্তিভিত্তিক বিঘায় ধানকাটা-মাড়াইসহ ২হাজার ৮০০ টাকা নিচ্ছি। এতে করে সংসারে মোটামুটি স্বচ্ছলতা এসেছে।
 
কৃষি বিভাগ সূত্রে জানাযায়, চলতি বোরো মৌসুমে আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১ লাখ ১৪ হাজার ৪৮২ হেক্টর।
 
অর্জিত হয়েছে ১ লাখ ১৫ হাজার ৭৯১ হেক্টর। ফলন উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ৪ লাখ ৭১ হাজার মেট্রিক টন।
 
যা ৫ হাজার মেট্রিক টন ছাড়িয়ে যাবে।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ড. মো: মোস্তাফিজুর রহমান প্রধান বলেন, বোরো মৌসুমে বাম্পার ফলন হয়েছে।
 
লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি আবাদ হয়েছে। এই কর্মকর্তা স্বীকার করেন,ধানের মূল্য না থাকায় কৃষক আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।
 
এমন অবস্থা বিরাজ করলে আগামীতে ধান চাষে কৃষক আগ্রহ হারিয়ে ফেলার আশংকা প্রকাশ করেন তিনি।


1