LatestsNews
# আর কত গরিব হলে অসহায় প্রতিবন্ধী সহিদ মিয়া সরকারি ঘর পাবে!# যুব মহিলা লীগের বৃক্ষ রোপন ও গাছ বিতরণ কর্মসুচী পালিত# গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে এক কয়েদির “খোঁজ নেই”# এসএসসির স্কোরের ভিত্তিতে কলেজে ভর্তি হবে শিক্ষার্থীরা# টঙ্গীতে পানি বন্দী হাজারো পরিবার# শৈলকুপায় ব্রীজ আছে রাস্তা নেই!# তৃতীয় লিঙ্গ সম্প্রদায়ের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরন।# অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে ২০২০-২১ অর্থবছরের নতুন মুদ্রানীতি ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।# করোনার মধ্যেই বিয়ের পিঁড়িতে বসলেন মেহেদী হাসান# বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ ও আশপাশের এলাকা সংস্কার করা হবে লুই কানের নকশাতেই স্পিকার ড. শিরীন শারমিন # সিটি কর্পোরেশনের সকল কর্মকর্তা কর্মচারীর ঈদ ছুটি বাতিল- মেয়র গাজপুর# সিটি কর্পোরেশনের সকল কর্মকর্তা কর্মচারীর ঈদ ছুটি বাতিল- মেয়র গাজপুর# সিটি কর্পোরেশনের সকল কর্মকর্তা কর্মচারীর ঈদ ছুটি বাতিল- মেয়র গাজপুর# সিটি কর্পোরেশনের সকল কর্মকর্তা কর্মচারীর ঈদ ছুটি বাতিল- মেয়র গাজপুর# গাজীপুরে পোশাক শ্রমিক বিক্ষোভ, মহাসড়ক অবরোধ# নাজিব রাজাকের বিরুদ্ধে আনা দুর্নীতির সব ক’টি অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ১২ বছর কারাদণ্ড ও ২১০ মিলিয়ন রিংগিত জরিমানা# প্রথম মুসলিম রাষ্ট্রদূত নিয়োগ দিল ইসরাইল# অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে অর্থবছরের শুরুতে রেমিট্যান্সের অবিশ্বাস্য চমক# লাইসেন্স না থাকা, নিম্নমানের আইসিইউসহ নানান অনিয়মের অভিযোগে উত্তরার আরেক হাসপাতাল বন্ধ# শৈলকুপায় সংস্কারের নামে রাস্তা কেটে দফারফা ৪০ গ্রামের মানুষের যাতায়াত বন্ধ
আজ সোমবার| ১০ আগস্ট ২০২০
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর ঝিনাইদহের ঐতিহ্যবাহী ঢোল সমুদ্র দীঘি



জাহিদুর রহমান তারিক, ঝিনাইদহ


ইতিহাস ও ঐতিহ্য ভরপুর ঝিনাইদহ। শিক্ষা, সাহিত্য, সংস্কৃতি এবং অর্থনীতির দিক দিয়ে অন্যান্য জেলার থেকে অনেক এগিয়ে আছে ঝিনাইদহ জেলা। ইতিহাস-ঐতিহ্য এক অফুরন্ত ভান্ডার রয়েছে এই ঝিনাইদহে। বিভিন্ন মৌসু্মে হরেক রকমের ফসল রয়েছে সুপ্রাচীন খ্যাতি।

তার মধ্যে উল্লেখ্য হলো ধান, গম, আম,পাট,আখ, খেজুরের গুড়, কলা-পান ইত্যাদি। মনোমুগ্ধকর প্রকৃতি এবং প্রাণজুড়ানো আবহাওয়া ছাড়াও এই জেলায় রয়েছে প্রাচীন বিভিন্ন স্থাপনা মসজিদ, মন্দির ছাড়াও রয়েছে অনেক ঐতিহাসিক স্থান। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে ঝিনাইদহের ঢোল সমুদ্র দীঘি। প্রায় ৫২ বিঘা জমির উপর অবস্থিত এই দীঘি ঝিনাইদহের সর্ববৃহৎ দীঘি। সুন্দর এবং মনোরোম পরিবেশ বিশিষ্ট এই দীঘি।

বহুবছর আগে থেকেই এই দীঘি ঝিনাইদহে বিনোদনের একটি অন্যতম কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। বিভিন্ন উৎসবে যেমন পহেলা বৈশাখ,বিশ্ব ভালোবাসা দিবস,ঈদ,বিভিন্ন পূজায় অনেক মানুষ ভিড় জমায় এই দীঘিতে। আবার অনেকেই দল বেঁধে এই দীঘির পাড়ে পিকনিক করতে আসে। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত তারা সময় কাটায় এই দীঘিতে। দীঘির চারিদিক ছোট ছোট টিলা দ্বারা বিশিষ্ট।

টিলার উপর থেকে নজর কাড়া দৃশ্য উপভোগ করা যায়। যা একজন প্রকৃতিপ্রেমী মানুষের হৃদয় মুহুর্তেই কেড়ে নিবে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে,ঝিনাইদহে রাজা মুকুট রায় নামে এক প্রভাপশালী জমিদার ছিলেন। ঝিনাইদহ তার রাজ্যের রাজধানী ছিলো। তিনি খাঁন জাহান আলী (রাঃ)  এর মত জলাশয় প্রতিষ্ঠায় আগ্রহী এবং যতœবান ছিলেন। রাস্তা নির্মাণ ও জলাশয় খনন করতে করতে তিনি  প্রচুর অর্থ ব্যয় করতেন। তারই ধারাবাহিকতায় এবং রাজ্যের জলকষ্ট লাঘবের জন্য তিনি ঝিনাইদহের ঐতিহ্যবাহী পাগলা কানাই ইউনিয়নে খনন করেন ঢোল সমুদ্র দীঘি। ঢোল সমুদ্র দীঘিটি শতাব্দী পরিক্রমায় পানীয় জলের অফুরন্ত আধার হিসেবে এবং একজন পরাক্রমশালী রাজার রাজকীয় স্থাপনা সমূহের একটি স্মৃতি হিসেবে আজও টিকে আছে ঝিনাইদহের বুকে।

ঢোল সমুদ্র দীঘি খননের পেছনে রূপকথাকে হার মানানো একটি লোকশ্রæতি আছে-রাজা মুকুট রায়ের রাজত্বকালে একবার জলকষ্ট দেখা দেয়। বিল, বাওড়, নদী সব শুকিয়ে গিয়েছিল। কোথাও কোন জল ছিল না। ফলে রাজ্যে জলের সংকট দেখা দিলো। এই জলের সংকট দূর করার জন্য রাজা দীঘি খননের সিদ্ধান্ত নেন। কয়েকশো শ্রমিকে নিয়োগ দেওয়া হয় দীঘি খননের জন্য। শ্রমিকেরা দিন রাত পরিশ্রম করে গভীর হতে গভীরতর এবং চতুর্দিকে প্রশস্ত করে দীঘি খনন করলো।

কিস্তু দীঘিতে জল উঠল না। রাজা হতাশ হয়ে পড়লেন এবং দু চিন্তা ভুগতে লাগলেন। একদিন রাতে রাজা ঘুমের মধ্যে স্বপ্ন দেখলেন, রাণী যদি দীঘিতে নেমে পূজা দেন, তবে দীঘিতে জল উঠবে। স্বপ্নের কথা জেনে রাজা পূজার সকল উপকরণের বন্দবস্ত করে প্রজাকল্যাণের স্বার্থে রানীকে পূজা দেওয়ার উদ্দেশ্য দীঘির তলদেশে নামালেন। রাণী পুকুরের তলদেশে উপস্থিত হয়ে ইষ্টদেবতাকে নিবেদন  করে পূজা আরম্ভ করলেন। আশ্চার্যজনকভাবে দীঘিতে জল ওঠা শুরু হলো এবং প্রার্থনা পূর্ণ হওয়ায় রাণী উপরে উঠতে শুরু করলেন। সহসা প্রবলবেগে দীঘিতে জল উঠতে লাগলো।

দীঘিতে জল দেখে পাড়ে থাকা সকল প্রজারা বাদ্য-বাজনার সাথে উৎসব আনন্দ করতে লাগলো। রাণী দীঘির তলদেশ থেকে পাড়ে উঠতে পেরেছে কিনা সেইদিকে কেউ লক্ষ্যে করেনি। অলক্ষ্যে রাণী অথৈ জলের গভীরে তলিয়ে গেলেন। দুঃসংবাদ পেয়ে রাজা তাৎক্ষণিক দীঘির পাড়ে উপস্থিত হন। রাণীকে খোঁজার জন্য দীঘিতে লোক নামান। কিন্তু অনেক খোঁজখুঁজির পরেও রাণীকে পাওয়া যায়নি। ফলে জলের কষ্ট লাঘব হলেও রাজ্যে নেমে আসে শোকের ছায়া। এই স্মৃতি স্মরণে আজও লোকজন এ দীঘিকে ঢোল সমুদ্র দীঘি বলেই জানে।

কিভাবে যাবেন ঢোল সমুদ্র দীঘি

ঢোল সমুদ্র দীঘি ঝিনাইদহ শহর থেকে মাত্র ৪কিঃমি দূরত্বে পশ্চিমে অবস্থিত। ফলে খুব সহজেই ঝিনাইদহ শহর থেকে ভ্যান রিক্সা, ইজিবাইক যোগে এই ঐতিহ্যবাহী ঢোল সমুদ্র দীঘি যাওয়া যায়।


1