LatestsNews
# এবছর শিক্ষা খাতে বাজেটের আকার বাড়লেও তা শতাংশে কমেছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।# পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে বাংলাদেশি ও চীনা শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষে ৮ চীনা শ্রমিক আহত হয়েছেন।# দেশে ফলের উৎপাদন বাড়াতে প্রতিনিয়ত চলছে নানা গবেষণা- কৃষকদের উৎসাহিত করতে যত আয়োজন# মোবাইল ফোনে বাংলায় এসএমএস (মেসেজ) পাঠালে খরচ অর্ধেক ছাড় দেয়া হবে।# বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য হলেন সেলিমা ও টুকু# মানুষের খাদ্য তালিকার প্রাণীর এসব খাবার এ যেন মানুষ মারার কারখানা# রাজধানীর বায়তুল মোকাররম মার্কেটে আগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে।# আমিরাতে প্রথম বাংলাদেশির গোল্ডেন ভিসা অর্জন# 'মোবাইল রিচার্জে শুল্ক বাড়ানোয় ক্ষতিগ্রস্ত হবে ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা'# কামারখন্দ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী শহিদুল্লাহ সবুজ নির্বাচিত# লাকসামে স্কুলছাত্রী ধর্ষনের শিকার, ধর্ষনকারী গ্রেপ্তার# দেশে সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়া কঠিন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম।# রাজধানীতে বিশৃঙ্খলভাবে দেয়াল লিখন ও গাছে বিজ্ঞাপন লাগালে কঠোর ব্যবস্থা'# পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের শেষ বা পঞ্চম ধাপের ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে এখন চলছে গণনা।# খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি নির্ভর করছে আদালতের ওপর।# রাজধানীর কল্যাণপুরের রাজিয়া পেট্রোল পাম্পে আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে।# সালথায় জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহে বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্র শিক্ষকদের মাঝে পুরস্কার বিতরন# ঝিনাইদহে মসজিদের মোয়াজ্জিনকে কুপিয়ে ও গলাকেটে হত্যা !# অবশেষে বড় অংকের অর্থের বিনিময়ে মিশরের ইজিপ্ট এয়ার থেকে লিজ নেয়া নষ্ট দুটি উড়োজাহাজ ফেরত দেয়া হচ্ছে।# শুধু সেমির আশা বাঁচিয়ে রাখার জন্যই নয়, দলের আত্মবিশ্বাস ফিরে পাওয়ার জন্য জয়ই দরকার ছিল
আজ বুধবার| ১৯ জুন ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

মহিষও দেশের অর্থনীতির চাকা সচলে রাখতে পারে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা



নোয়াখালী প্রতিনিধি Channel 4TV :
রৌদ্রের প্রখর তাপদাহ প্রকৃতিকে করে রেখেছে ভীষন অস্থির। এখানে-সেখানে বয়ে যাওয়া খাল-বিল-হাওর সাদা রঙের বকেরা ডানা মেলে হাওয়ায় ভেসে বেড়াচ্ছে। আবার কখনো কখনো পা ডুবিয়ে শিকার করছে পুঁটি-টেংরা। খালের পাড় ঘেঁষে মহিষের পাল নিয়ে ছুটে চলছে রাখাল ছেলেরা। যা আবহমান বাংলার চিরায়ত রূপ। শস্য-শ্যামল সোনার বাংলার এমন দৃশ্য খুব কমই চোখে পড়ে।
মহিষের এ অপরূপ দৃশ্যটি জেলার সুবর্ণচর উপজেলাধীন রূপ মাধুর্যের এক স্বপ্নীল রূপায়ন। এ চরের বেশিরভাগ এলাকাই মেঘনা নদীর তীর ঘেঁষে। ফলে প্রকৃতির নিজস্ব বলয় আর স্বকীয়তা এখানকার চরাঞ্চলকে করে তুলেছে উপজীব্য।
অন্যদিকে এখানকার মানুষকে করে তুলেছে সংগ্রামী চেতনায় বলীয়ান। লাঙ্গলের ফলা থেকে উঠে আসা মাটির ঘ্রাণ মানুষকে করে তোরে আন্দোলিত এবং শিহরিত। এখানকার মানুষের জীবনযাত্রার মান একসময় খুব নি¤œমানের হলেও কালের বিবর্তনে পরিবর্তনের হাওয়া তাদেরকে পাল্টে দিয়েছে।
স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়গুলোতে এখানকার চারণভূমিগুলো ছিল নিভৃত ছায়াবেষ্টিত। জনমানবহীন এক ধূ-ধূ বালুচর। নদীর বুক থেকে জেগে ওঠা চরগুলো তখন ছিল বসবাসের অযোগ্য। আস্তে আস্তে কিছু নদীভাঙা ছিন্নমূল জনগোষ্ঠী যাদের কিনা মাথা গোঁজার কোনো ঠাঁই ছিল না, তারা চরে এখানে-সেখানে বিক্ষিপ্তভাবে বসতি স্থাপন করেন এবং মাটির বুকে লাঙ্গল চালিয়ে, নোনা মাটিকে ফসল ফলানোর উপযোগী করে সোনালি ফসল ফলানোর আপ্রাণ চেষ্টা করে এক সময় সফল হন।
কৃষি এখানকার মানুষের প্রধান পেশা হলেও পশু পালন এদের আয়ের আরেকটি বড় উৎস। গরু-ছাগল-ভেড়া, হাঁস-মুরগি ইত্যাদি পালন করে এখানকার নি¤œ আয়ের মানুষগুলো পরিবারের ভাত-কাপড়ের ব্যবস্থা করে যাচ্ছেন। তবে কিছু অবস্থাশালী গৃহস্থরা মহিষ পালন করে নিজেদের অর্থনৈতিক দৈন্যতা দুরীভূত করার পাশাপাশি দেশের অর্থনীতির চাকা ঘোরাতে বিরাট ভূমিকা পালন করছে। মহিষ পালন মূলতঃ লাভজনক একটি পেশা। চরাঞ্চলের তৃণভোগী পশুর মধ্যে মহিষের মূল্য সবচেয়ে বেশি। এর পালন প্রক্রিয়াটা খুব একটা জটিল নয়। কেননা মহিষের লালন-পালনে বাড়তি খাদ্য কিংবা যতœ খুব একটা প্রয়োজন হয় না। অথচ অন্যান্য পশুর চেয়ে মহিষ পালন সবচেয়ে লাভজনক। একেকটা মহিষের বাজার মূল্য লক্ষাধিক টাকা। যা দু’তিনটি গরুর মূল্যের সমান। মহিষের দুধ থেকে তৈরি দধি, ছানা, মিষ্টি খুবই সুস্বাদু। চরাঞ্চলে যারা আতিথেয়তা গ্রহণ করেন তারা মহিষের দুধের তৈরি উপাদেয় খাদ্যগুলোর স্বাদ-আস্বাদন না করে খুব একটা ফেরেন না। এসব খাদ্য গুণে-মানে ও পুষ্টিতে অতুলনীয় মহিষের পাল যখন চরাঞ্চলের চারণভূমিতে বিচরণ করে, তখন চরের সৌন্দর্য ও বৈশিষ্ট্যতা এক স্বকীয়তা স্পষ্ট হয়ে ওঠে।
চরের মানুষের সংস্কৃতির এক অনিবার্য নিদর্শন যেন এই মহিষের পাল। এই বিচিত্র নিদর্শনটি দেশের অন্য কোথাও দেখা যায় কি-না সন্দেহ আছে। জীববৈচিত্র্যের দিক দিয়ে মহিষের একটা নিজস্বতা রয়েছে। কিছু প্রাণীর মতো মহিষকে উভয়চর বললেও খুব একটা ভুল হবে না। কারণ মহিষ ঘণ্টার পর ঘণ্টা পানিতে থাকতে ভালোবাসে। এমনিতে শান্ত প্রকৃতির একটি প্রাণী মহিষ। তবে মাঝে মাঝে এই প্রাণীর মস্তিষ্ক অনেক সময় বিকৃত হয়ে গেলে এরা আক্রমণাত্মক হয়ে উঠে। এ সময় এর আক্রমণে অনেক হতাহতের ঘটনাও ঘটে থাকে। মহিষ পালনের সাথে জড়িত এমন কয়েকজন গৃহস্থ জানান, মহিষ পালন লাভজনক হলেও অনেক ক্ষেত্রে কিছু বনদস্যু গভীর রাতে এসে মহিষের পাল নিয়ে যায়। এ সময় তাদের কাছে বিভিন্ন অস্ত্রশস্ত্র থাকার কারণে কিছুই করার থাকে না। আবার গ্রীষ্মের প্রচন্ড- খরার সময় যখন খাল-বিল-হাওর শুকিয়ে যায় তখন প্রচন্ড- তাপদাহে মহিষকে টিকিয়ে রাখা খুব কষ্টকর হয়ে পড়ে। তারা আরো জানান, খাল-বিল-হাওরে পর্যাপ্ত পানির ধরে রাখার ব্যবস্থা করতে পারলে এই প্রাণীটি চরাঞ্চলের মানুষের জীবন-জীবিকাসহ দেশের অর্থনীতিতে রাখতে পারে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা। চরঞ্চলের মহিষ পালনের বিষয় নিয়ে কথা হয় জেলা পশু সম্পদ কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদের সাথে। তিনি বলেন, নোয়াখালীর সূবর্ণচরের চারণভূমিতে মহিষ পালন কয়েকযুগের প্রথা হিসাবে চলে আসছে। এই শিল্পটি এখানকার প্রকৃতিকে করে তুলেছে নান্দনিক ও সৌন্দয্য মন্ডিত। আমরা সরকারি ভাবে পশুপালনের উপর যে কয়টি প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকি তার মধ্যে মহিষ পালনের বিষয়টি একটি অন্যতম কর্মসূচি। এই শিল্পের সাথে জড়িত জনসাধারনকে আমরা চেষ্টা করি দক্ষ এবং অভিজ্ঞ করে তুলতে।


1