LatestsNews
# রাশেদ খান মেনন তার বিতর্কিত বক্তব্যের জন্য পদত্যাগ করবেন না# ক্রি‌কেটার‌দের আন্দোল‌নে না থাকার কারণ জানা‌লেন মাশরা‌ফি# রোহিঙ্গ সমস্যা সু চিকে স্মরণ করিয়ে দিলেন শিনজো আবে# বিশ্বব্যাপী বাণিজ্য যুদ্ধেও বাংলাদেশ এগিয়ে: অর্থমন্ত্রী# খালেদার সঙ্গে দেখা করতে চান ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা# পাক-ভারত পাল্টাপাল্টি হামলা, নিহত ১৬# দুর্নীতি দমন কমিশনে দুর্নীতি নেই সেটা বলতে পারবো না : দুদক চেয়ারম্যান# মেনন মন্ত্রী হলে কি এ কথা বলতেন, প্রশ্ন কাদেরের# ভোলার বোরহানউদ্দিনে পুলিশ ও এলাকাবাসীর সংঘর্ষের ঘটনায় পরিস্থিতি মোকাবেলায় বিজিবি মোতায়েন # সাভারের ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে মহাসড়কে প্রাণ গেলো পাঠাও চালকের# কক্সবাজারে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই রোহিঙ্গা নিহত# যুবলীগ চেয়ারম্যানকে গণভবনে না ডাকার ব্যাখ্যা দিলেন ওবায়দুল কাদের# ঢাকার ট্রাফিক জ্যামকে ধন্যবাদ: ফিফা সভাপতি# বাংলাদেশ এখন বিশ্ব ফুটবলের রাজধানী : ফিফা সভাপতি# টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই মাদক কারবারি নিহত# ৭ম শ্রেনির স্কুলছাত্রী উমামার হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে আজও সোচ্চার মুক্তাগাছার সকল স্তরের জনগন।# সৌদিতে বাসে আগুন লেগে ৩৫ ওমরাহযাত্রী নিহত# ভোলায় চালু হল ক্যাবল ছাড়াই টিভি দেখার ডিটিএইচ সুবিধা # রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাতে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী# যেখানেই দুর্নীতি সেখানেই অভিযান: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
আজ বুধবার| ২৩ অক্টোবর ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

দায়িত্বহীন সাংবাদিকতা বনাম ৫৭ ধারা



৩ মে এমন এক সময়ে আমরা ‘বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস-২০১৭’ পালন করতে যাচ্ছি যখন বাংলাদেশে সাংবাদিকতার নামে উদ্দেশ্যমূলক প্রতিবেদন প্রকাশ এবং তার প্রতিক্রিয়ায় একটি শিল্প প্রতিষ্ঠান প্রেস কাউন্সিলসহ অন্য সংশ্লিষ্ট জায়গায় না গিয়ে ৫৭ ধারা নামক ‘কালো আইনে’র ব্যবহার করায় একজন সাংবাদিক গ্রেফতার হয়ে ‘চাঁদাবাজি’র অন্য একটি মামলায় রিমান্ডে রয়েছেন। দিবসটিকে সামনে রেখে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বিবৃতিতে মুক্তমত পালনের পরিবর্তে দমননীতির কারণে সরকারের সমালোচনা করেছে। তাদের প্রতিবেদনে সংবাদকর্মীদের হেনস্থা, কাজে হস্তক্ষেপ, কঠোর আইনের মাধ্যমে অপরাধী কার্যক্রমের অভিযোগ আনা এবং সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের ঘটনার কথা বলা হয়েছে। এর ফলে সাংবাদিক ও গণমাধ্যমগুলো স্ব-সেন্সরশিপ করতে বাধ্য হয় বলেও তারা অভিযোগ এনেছে। ‘রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারস’ এর করা ‘ওয়ার্ল্ড প্রেস ফ্রিডম ইনডেক্স-২০১৭’ এখানে উল্লেখযোগ্য। ২০১৬ সালে এই সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ১৪৪ এ থাকলেও ১৮০টি দেশের মধ্যে এবার তা ১৪৬। ‘বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস’-কে সামনে রেখে সরকার এ ইনডেক্সকে স্বীকৃতি দিয়ে মুক্ত গণমাধ্যম নিশ্চিত করতে উদ্যোগী হবে বলে আমরা আশা করছি।দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য হচ্ছে- ‘ক্রান্তিকালে সমালোচকের দৃষ্টি: শান্তিপূর্ণ, ন্যায়নিষ্ঠ ও অন্তর্ভুক্তিমূলক সমাজ প্রতিষ্ঠায় গণমাধ্যমের ভূমিকা’। আমরা মনে করি, শান্তিপূর্ণ, ন্যায়নিষ্ঠ ও অন্তর্ভুক্তিমূলক সমাজ প্রতিষ্ঠায় গণমাধ্যমের অবশ্যই ভূমিকা রয়েছে। তবে আমাদের দেশে শান্তিপূর্ণ ও ন্যায়নিষ্ঠ সমাজ প্রতিষ্ঠার বদলে আমরা গণমাধ্যমের নেতিবাচক ভূমিকারও প্রত্যক্ষদর্শী। তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে পত্রিকার প্রিন্ট ভার্সনের বদলে যখন কি-বোর্ড, মনিটর আর ডিভাইস জায়গা দখল করে নিচ্ছে, তখন আমরা অনেকক্ষেত্রেই সংবাদমাধ্যমের দায়িত্বশীলতা উঠে যেতে দেখছি। আমরা বিশ্বাস করি, টেকসই উন্নয়নে মতপ্রকাশের স্বাধীনতার প্রয়োজন রয়েছে। কিন্তু মতপ্রকাশের স্বাধীনতার নামে সংবাদমাধ্যমের পক্ষপাতিত্ব, অসত্য প্রতিবেদন এবং দেশের মৌলিক আদর্শের বিরুদ্ধে জনমত তৈরির অপকর্মকে আমরা কোনভাবেই সমর্থন করি না। মুক্ত গণমাধ্যমের দাবির পাশাপাশি গণমাধ্যমের কাছে আমরা কেন পেশাদারিত্বের এই বিষয়টি আশা করবো না? মুক্ত গণমাধ্যম দিবসের এবারের প্রতিপাদ্যের সঙ্গে ঐক্যমত্য পোষণ করে আমরা শান্তিপূর্ণ, ন্যায়নিষ্ঠ ও অন্তর্ভুক্তিমূলক সমাজ প্রতিষ্ঠায় গণমাধ্যমের অগ্রণী ভূমিকা দেখতে চাই। সেই ভূমিকার ক্ষেত্রে বৈরিভাব নয়, বরং সরকারকে আমরা গণমাধ্যমের সহযোগী হিসেবে পেতে চাই। সেজন্য আমরা দায়িত্বহীন সাংবাদিকতার যেমন সমালোচনা করতে চাই তেমনি এটাও দেখতে চাই যে কোনভাবেই যেন আইসিটি আইনের বিতর্কিত ৫৭ ধারা সংবাদমাধ্যম এবং সংবাদকর্মীদের বিরুদ্ধে ব্যবহার না হয়। একটিও দায়িত্বহীন সাংবাদিকতার বিরুদ্ধে এ আইনের ব্যবহার মানে দায়িত্বশীল এবং সত্যনিষ্ঠ সাংবাদিকতার বিরুদ্ধেও এ কালো আইনের অপব্যবহারের সুযোগ করে দেওয়া।


1