LatestsNews
# খুলনার শিরোমণি বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতাল অচলাবস্থা রোগী ও তাদের স্বজনদের চরম ভোগান্তি# ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় আমবোঝাই ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সাথে ধাক্কা নিহত ২# ভারতের গুজরাটে ১৮ বছরের নিচে মোবাইল নিষিদ্ধ# একই পাঞ্জাবির দামে হেরফেরের দায়ে আড়ংয়ে আবারও পাঞ্জাবি কাণ্ড, ফের জরিমানা# যুক্তরাষ্ট্র থেকে এক বাংলাদেশি অভিবাসন ইস্যুতে বহিষ্কার।# রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশকে গঠনমূলক সহায়তার আশ্বাস দিয়েছে চীন।# রোহিঙ্গা সংকটের জন্য মিয়ানমার সরকারই দায়ী বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত রবার্ট মিলার।# নরসিংদীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে ১৩ দিন লড়াই করে হার মানলেন দগ্ধ ফুলন# নোয়াখালীতে ২ জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড # ঝিনাইদহে প্রভাবশালীরা ঘের ও পুকুর কেটে চলেছেন, অবৈধ পুকুর খননে কৃষকরা হচ্ছে ক্ষতিগ্রস্ত# লোহাগড়ায় ৫’শ পিস ইয়াবাসহ মাদক কারবারী আটক# বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মাহমুদুলকে যোগদানে দিনভর উত্তেজনা # শিরোমনি উত্তরপাড়ায় খেলতে গিয়ে পুকুরে ডুবে দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যুঃ এলাকায় শোকের ছায়া# নোয়াখালীর চৌমুহনীতে আধিপত্য বিস্তারের জেরে প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীদের গুলিতে যুবকের মৃত্যু# কুড়িগ্রামে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় ৬জন গ্রেপ্তার# গাজীরহাট ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম আদালত সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয় # শিরোমণি স্পোর্টিং ক্লাব আয়োজিত ৮দলীয় মিনি ফুটবল টুর্ণামেন্টের উদ্বোধন# শৈলকুপায় অর্ধশত বছরেও আলোর মুখ দেখেনি স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদরাসা!# কালীগঞ্জে পিতা হত্যার দায়ে পুত্রের যাবজ্জীবন কারাদন্ড# ‘আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় শিল্প মন্ত্রণালয়ের কাজে মন্থর গতি’
আজ বুধবার| ১৭ জুলাই ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

জয়দেবপুর দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন পালতক আসামি মামুন মামলার বাদীরা ভুগছেন চরম নিরাপত্তাহীনতায়



রবিউল ইসলাম Channel 4TV :
মামুন মন্ডল। পুরো নাম আবদুল্লাহ আল মামুন মন্ডল। গাজীপুর মহানগরে তিনি লাদেন মামুন নামেই পরিচিত। তার নামে আছে খুন, নারী নির্যাতন ও চাঁদাবাজির মামলা। পুলিশ গ্রেফতারের জন্য খুঁজছেও এই পলাতক আসামিকে। কিন্তু এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে জানা গেছে এই মামুন ম-ল দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন এলাকায়। তার ওপর রয়েছে স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতার ছত্রছায়া। এ কারণে তার বিরুদ্ধে ভিন্ন মামলার বাদীরা আছেন চরম নিরাপত্তাহীনতায়।

মামুন ম-ল মানেই গাজীপুর এক মূর্তিমান আতঙ্ক। তিনি গাজীপুর সিটি করপোরেশন ৩৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর। তবে দীর্ঘ এক বছরের বেশি সময় ধরে তিনি নিজ এলাকা ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। তার বিরুদ্ধে জয়দেবপুর থানায় হত্যা মামলাসহ রয়েছে বহু মামলা। ২০০৭ সালে মামুন ম-লের বিরুদ্ধে জয়দেবপুর থানায় রতœা বেগম নামের এক গার্মেন্টসকর্মী ধর্ষণ মামলা করেন। মামুন ম-লের অতীত নির্যাতন ও ভয়ংকর সন্ত্রাসী কর্মকা-ের কথা ভেবে আজো বুক কেঁপে ওঠে সাধারণ মানুষের। তাই তাকে গ্রেফতারের দাবিতে বিগত দিনে বহুবার বিক্ষোভ সমাবেশ, মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হলেও পুলিশ তাকে দেখেও দেখছে না। জানা গেছে, মামুন ম-ল কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার আগেই গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকায় ক্লাব গড়ে তুলেছিলেন। এসব ক্লাবে চিহ্নিত সন্ত্রাসী, মাদকাসক্ত ও বখাটে যুবকদের অবাধ আনাগোনা ছিল। বহু শিল্প-কারখানায় চাঁদাবাজি, ভাঙচুর, নতুন বাসা-বাড়ি ও শিল্প-কারখানা নির্মাণে চাঁদা দাবি, অবৈধ গ্যাস সংযোগ থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের নির্মাণকাজে লাদেন বাহিনীকে চাঁদা দিতেই হতো। অন্যথায় নির্মাণকাজ বন্ধ। এ ছাড়াও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের বিভিন্ন এলাকায় মহাসড়ক দখল করে স্ট্যান্ডবাজি, ফুটপাত দখল করে দোকান ঘর নির্মাণসহ লাদেন বাহিনীর বিরুদ্ধে চুরি-ছিনতাইয়েরও অভিযোগ রয়েছে। এক সময় আওয়ামী লীগের ছত্রছায়ায় থাকা মামুন ম-লের হাত থেকে জয়দেবপুর থানার পুলিশ থেকে শুরু করে নির্বাচিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর, ছাত্রলীগ-যুবলীগের নেতাকর্মীরাও রক্ষা পায়নি। অথচ, নগরের সাইনবোর্ড এলাকায় এলিট আয়রন স্টিল মিলের প্যাকিং শ্রমিক মোমতাজ উদ্দিনের ছেলে মামুন ম-ল ছিলেন দরিদ্র পরিবারের সন্তান। কিন্তু কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার পর তিনি স্বল্প সময়ে তার অপরাধের স¤্রাজ্য বিস্তার করে কোটি কোটি টাকার মালিক বনে যান। চলাচল করতেন বিলাসবহুল পাজেরো গাড়িতে। তার গাড়ির সামনে ও পেছনে প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাসসহ অন্তত ৩০-৪০জনের মোটরসাইকেলের বহর থাকত। তিনি নগরের যেই এলাকাতেই যেতেন না কেন সেই এলাকাতে পিনপতন নীরবতা বিরাজ করত। আতঙ্কে থাকত ওই এলাকার সাধারণ মানুষ। মালেকেরবাড়ি, ভূষির মিল, হাজীর পুকুর, সাইনবোর্ড, বোর্ডবাজার, বড়বাড়ি, এরশাদ নগরসহ লাখো মানুষ লাদেন বাহিনীর কাছে জিম্মি ছিল। তার বেপরোয়া চলাফেরা ও সন্ত্রাসী কর্মকা-ে মহানগরের পরীক্ষিত ও ত্যাগী আওয়ামী লীগ নেতারাও চরম বিরক্ত বলে জানা গেছে। তবে এক প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতার সঙ্গে মামুন ম-লের মধুর সম্পর্ক থাকায় দলীয় নেতা-কর্মীরা বিরক্ত হলেও তা প্রকাশে সাহস পাচ্ছেন না বলেও জানা গেছে।

জয়দেবপুর থানা সূত্রে জানা গেছে, সে একজন ওয়ারেন্টভুক্ত পলাতক আসামি। তার বিরুদ্ধে থানায় ডজনেরও বেশি মামলা রয়েছে। তবে এতগুলো মামলা থাকার পরও তিনি গাজীপুরে অবাধে বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে যোগদান করছেন। সম্প্রতি তিনি এক বিয়ের অনুষ্ঠানে তার কর্মীদের সঙ্গে ছবিও তুলেছেন। পরে সেই ছবি তার এক কর্মী ফেসবুকে পোস্ট করে লিখেছেন, ‘দীর্ঘদিন পর আমার নির্ভরতার মানুষ আবদুল্লাহ আল মামুন ম-ল ভাইয়ের সঙ্গে একটি অনুষ্ঠানে।’ ওই ছবিতে জয়দেবপুর থানায় দায়ের করা মামলার আসামি মোশারফরসহ মামুন ম-লের বেশ কয়েকজন সহযোগীকেও দেখা গেছে। অথচ দীর্ঘ এক বছর ধরে জেলা পুলিশ মামুন ম-লকে গ্রেফতারে অভিযান চালালেও মূলত তিনি পুলিশের সামনে দিয়েই চলাফেরা করছে।

অভিযোগ রয়েছে, মামুন ম-লের এই বিশাল স¤্রাজ্য, সন্ত্রাসী বাহিনী ও জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ রক্ষা করতে বর্তমানে লাদেন বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড হিসেবে কাজ করছেন ইকবাল মোল্লা। ইকবাল মোল্লা মহানগরের ওজারপাড়া এলাকার মৃত ছামাদ মোল্লার ছেলে। ইকবাল মোল্লা জমির দালাল। তিনি মামুন ম-লের ছত্রছায়ায় থেকে সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে কথিত ল্যান্ড ব্যবসার নামে স্বল্প সময়ে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে ভুক্তভোগীরা জানিয়েছে। গত গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইকবাল মোল্লা বিএনপির মেয়র প্রার্থী অধ্যাপক এম এ মান্নানের পক্ষে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছেন বলেও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে। তবে তিনি বর্তমানে আওয়ামী লীগে যোগদানের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছেন। সেই লক্ষ্যে সম্প্রতি ইকবাল মোল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের এক ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতার বাড়িতে তার ইচ্ছার কথা ব্যক্ত করে তিরস্কৃত হয়েছেন বলে প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছ থেকে জানা গেছে। বিভিন্ন সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে ইদানিং মামুন ম-লের সঙ্গে ইকবাল মোল্লাকেও দেখা যাচ্ছে ।

ইকবাল মোল্লা তার বিরুদ্ধে সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি এক সময় বিএনপি করতাম। এখন আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছি। মামুন ম-ল ও তার কর্মীদের আমার কোনো সম্পর্ক নেই।

জয়দেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আমিনুল ইসলাম জানিয়েছেন মামুন ম-লকে গ্রেফতারে নিয়মিত অভিযান চলছে। এ ছাড়াও মামুন ম-লের এলাকাসহ এর আশপাশের এলাকাগুলোতে পুলিশের গোয়েন্দা নজরদারি রয়েছে। মামুন ম-ল তার এলাকায় বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে যোগদান করলেও পুলিশ কেন তাকে আটক করছে না এমন প্রশ্নের জবাবে ওসি বলেন, এ ধরনের কোনো তথ্য তার কাছে নেই।

মহানগরের ওঝাড়পাড়া এলাকার গিয়াস উদ্দিন মিয়া জানান, তার একমাত্র ছেলে মো. সাজেদুল ইসলাম ওরফে রানাকে মামুন ম-ল ও তার সহযোগীরা কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করে। মৃত্যুর আগে তার ছেলে প্রত্যক্ষ্যদর্শীদের কাছে হত্যাকারীদের নাম বলেছে। তিনিও শুনেছেন। এ ঘটনার পর তিনি জয়দেবপুর থানায় হত্যা মামলা করেন। কিন্তু মামলা দায়েরের পর তাকেও হত্যার হুমকি দিয়ে যাচ্ছে মামুন ম-ল ও তার বাহিনীর সদস্যরা। হত্যা মামলার কয়েক বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো হত্যাকারীকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। মামুন ম-লকে ধরতে পুলিশের গড়িমসিতে এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ।

অপরদিকে, মামুন ম-লের বিরুদ্ধে দায়ের করা বেশ কয়েকটি মামলার বাদীদের সঙ্গে আলাপকালে তারা জানান, তারা মামুন ম-লের ভয়ে আছেন


1