LatestsNews
# পরীক্ষা ছাড়াই উত্তীর্ণের বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিবৃতি # প্রকাশ্যে আসলো প্রভাসের নতুন সিনেমার প্রথম ঝলক# ১১ কোটি ৬ লাখ টাকা রাজস্ব ঘাটতি বেনাপোল বন্দরে # বেনাপোল বন্দরে রাজস্ব ঘাটতি ১১ কোটি ৬ লাখ টাকা# এবার চীনা পলিসিতে ধরা আমেরিকার অ্যাপল# ফোল্ডে আইফোনে থাকছে যেসব নতুন ফিচার# আইপিএল আয়োজনের গুজব উড়িয়ে দিল নিউজিল্যান্ড# কেজিতে ২শ’ টাকা কমেছে ইলিশের দাম# গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ২৯৪৯, মারা গেছেন ৩৭ জন # যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আর কোনো বৈঠক করবে না উত্তর কোরিয়া# শাহেদের নারী কেলেঙ্কারি নিয়ে মুখ খুললেন সাবেক সহকর্মী# ইতালি ফেরতদের পাঠানো হয়েছে হজ ক্যাম্পে # সাহারা খাতুনের মরদেহ আসছে রাতেই, দাফন শনিবার# স্বাস্থ্য খাতের দুর্নীতি অনিয়মের তদন্ত শুরু# বাতিল হওয়া ট্রেনের টিকিটের দাম ফেরত পাবেন যাত্রীরা# ২০২১ সালের মধ্যে হাতে আসবে করোনা ভ্যাকসিন: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা# বিজিবির কড়া প্রতিবাদ ভারতীয় গণমাধ্যমকে# শ্রীপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান, ১০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল জব্দ, জরিমানা# বাবার হা‌তে ছে‌লে খুন স্ত্রী সহ নি‌জেও যখম# টঙ্গীতে ব্রাভো অ্যাপারেলসের ঝুটের গোডাউনে আগুন
আজ শনিবার| ১১ জুলাই ২০২০
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

রাজশাহীতে মাংসের দাম নির্ধারণই করা যায়নি!



মুরাদুল ইসলাম সনেট রাজশাহী Channel 4TV : প্রশাসন যে দামের কথা বলছে সেই দামে ভালো মানের মাংস বিক্রি করা সম্ভব নয়। হয় ব্যবসা বন্ধ করে দিতে হবে, না হলে মানুষকে বোল্ডার (ভারতীয় গরু) আর মহিষের মাংস খাওয়াতে হবে।
প্রশাসনের নির্ধারিত মূল্যে গরুর মাংস বিক্রির বিষয়ে জানতে চাইলে এমন মন্তব্য করেন রাজশাহী গোশত ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম।
রমজানকে সামনে রেখে ঢাকায় সিটি করপোরেশন দাম নির্ধারণ করে দিলেও এখন পর্যন্ত রাজশাহীতে মাংসের দাম নির্ধারণ করা সম্ভব হয়নি। গত বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসনের সঙ্গে এ নিয়ে বৈঠকও হয়। কিন্তু বৈঠক থেকে দাম নির্ধারণের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত আসেনি। তবে আগামী রোববারের মধ্যে দাম নির্ধারণে আশাবাদী জেলা প্রশাসন।
শুক্রবার ও শনিবার সন্ধ্যায় রাজশাহী নগরের বিভিন্ন মাংসের দোকান ঘুরে দেখা যায়, মাংসের মানের ওপর নির্ভর করে প্রতি কেজি গরুর মাংস ৪৬০ থেকে ৪৮০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। আর প্রতি কেজি খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭০০ টাকায়। বকরির (ছাগী) মাংস বিক্রি হচ্ছে ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকায়।
ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দেশি গরু বেশি দামে কিনতে হয় তাদের, কিন্তু মাংস অনেক কম হয়। ফলে দেশি গরুর মাংস ৪৮০ টাকার নিচে বিক্রি করা একেবারেই সম্ভব নয়। করলে তাদের লোকসান গুনতে হবে। কিন্তু দামে কম হওয়ায় ভারতীয় গরুর মাংস ৪৫০,৪৬০, ৪৭০ টাকায় বিক্রি করা সম্ভব হয়।
নগরের সাহেববাজারের খাসির মাংস ব্যবসায়ী ফুল মোহাম্মদ বলেন, ‘ছয় মাস আগেও আমরা এই দামেই মাংস বিক্রি করেছি। এখনো করছি। কিন্তু আগে যখন কম দাম ছিল তখন মানুষ বেশি মাংস কিনত। কিন্তু দাম বেশি হওয়ায় বিক্রি একেবারেই কম। এখনতো ভিআইপি ছাড়া খাসির মাংস কেউ কিনতেই চায় না।’
পাশের গরুর মাংস ব্যবসায়ী মনোয়ার হোসেন বলেন, ২০০, ২৫০ টাকায় যখন মাংস বিক্রি করতাম তখন লাভ অনেক বেশি হতো। মানুষ মাংস কিনতোও প্রচুর। কিন্তু এখন মানুষ গরুর মাংস কিনতে চায় না। বয়লার, লেয়ার মুরগি কিনে খায়। আগের আর সেই ব্যবসা নেই।’
গোশত ব্যবসায়ী সমিতির হিসাব মতে, রাজশাহী সিটি করপোরেশন এলাকায় ছোট বড় মিলিয়ে প্রায় ৩৫০ জন গোশত ব্যবসায়ী আছেন। যাদের মধ্যে ৩৩০ জন এই সমিতির সদস্য। যাদের কেউ গরুর মাংস, কেউ খাসির মাংস আবার কেউ দুটোই বিক্রি করে। কেউ কলিজা, পা, মাথার মাংস বিক্রি করে।
মাংসের বাজারের এমন অবস্থায় স্বস্তির ঢেকুর তুলতে পারছেন না ক্রেতারা। শুক্রবার রাতে সাহেববাজারে কথা হয় নগরের সিপাহীপাড়া এলাকার রাশেদুল হকের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘যে দাম হয়েছে, বাজারে ঢুকে গরুর মাংস কেনার কথা ভাবাও যায় না। নিতান্ত বেকায়দায় না পড়লে গরুর মাংস কেনা হয় না।’ সঙ্গে সঙ্গে পাশে থেকে আরমান আলী নামের আরেক ক্রেতা বলেন, ‘এত টাকা দিয়ে মাংস কিনেও তো স্বস্তি নেই। কেউ দাম বেশি নিচ্ছে, কেউ কম নিচ্ছে; কিন্তু কোন মাংসের কথা বলে কোন মাংস দিচ্ছে তা আমরা বুঝতে পারি না। প্রশাসন দাম নির্ধারণ করে দিয়ে নিয়মিত মনিটরিং করলে আমাদের জন্য সুবিধা।’
রাজশাহী গোশত ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, গত বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসনের সঙ্গে তাদের মিটিং হয়েছে। সেখানে তাদের বলা হয়, ঢাকায় ব্যবসায়ীরা নির্ধারিত ৪৭৫ টাকায় মাংস বিক্রি করতে পারছে, তাহলে রাজশাহীতে তারা কেন ৫ টাকা বেশিতে বিক্রি করছে। জবাবে জাহাঙ্গীর আলমের ভাষ্য, ঢাকায় দেশি গরুর মাংস ৪৭৫ টাকা এবং ভারতীয় গরুর মাংস ৪৫০ টাকায় বিক্রি করার কথা। কিন্তু সেটা কেউ মানছে না সব মাংসই ৪৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ভালো মাংস ৫০০ থেকে ৫২০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি করা হচ্ছে। তাই আমরা জেলা প্রশাসনকে বলেছি, আপনারা গরুর হাট মনিটরিং করেন। তারপর চিন্তা করেন কত টাকা দাম নির্ধারণ সম্ভব। তিনি বলেন, ‘আমরা তো একটা নির্দিষ্ট দামের মধ্যেই মাংস বিক্রি করছি। শনিবার আমাদের ব্যবসায়ীদের মিটিং আছে। জেলা প্রশাসনও হাট মনিটরিং করতে চেয়েছে। তারপর দেখা যাক কি হয়।’
রাজশাহী জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শরীফ আসিফ রহমান বলেন, মাংস ব্যবসায়ীদের সঙ্গে সভা করেছি। কিন্তু তারা দাম নির্ধারণে রাজি হয়নি। শনিবার তারা নিজেরা সভা করে সিদ্ধান্ত জানাতে চেয়েছে। আগামী রোববার নির্ধারিত মূল্যের তালিকা দোকানগুলোতে টাঙিয়ে দেওয়া হবে।


1