LatestsNews
# টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল চালক নিহত, আহত ২# সেলিম ওসমানের টাকা পেলেননা মাঠ পর্যাযের কর্মরত সাংবাদিকরা# টঙ্গীতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ গণধর্ষণ ও হত্যা মামলার প্রধান আসামি নিহত# সুপার সাইক্লোন আম্পানের প্রভাবে উপকূলীয় ৭ জেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়েছে।# সংকতে কমিয়ে ৩# সিরাজগঞ্জে করোনা উপসর্গনিয়ে মৃত্যু : দাফন করলো পুলিশ# নোয়াখালী জেলার সাংবাদিকদের ঈদ উপহার দিলেন প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী# সুন্দরবনে উপকূলের মানুষ ঘূর্নিঝড় আম্ফান আতংকে মংলা সমুদ্র বন্দর ৭ নম্বর বিপদসংকেত# সিরাজগঞ্জে তেল বোঝাই ট্রাক খাদে পড়ে স্বামী স্ত্রীসহ নিহত ৩ আহত ৫# ১০ নম্বর বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে যা জানালো আবহাওয়া অফিস# প্রধানমন্ত্রীর দেয়া দুস্থদের টাকাতেও ভাগ বসিয়েছেন দলের নেতারা: রিজভী# স্বাস্থ্যকর্মীদের ১০ বছরের গোল্ডেন ভিসা উপহার দিচ্ছে দুবাই# উদ্বোধন হলো দেশের সবচেয়ে বড় বসুন্ধরা করোনা হাসপাতাল# টঙ্গীতে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ# টঙ্গীতে সরকারি হাসপাতালের নার্সকে গুলি করে হত্যার প্রতিবাদে কর্মবিরতি# একটি শ্রমিক বান্ধব প্রতিষ্ঠানের গল্প# নোয়াখালীতে অসহায় এতিম শিশুদের বাহারী আইটেমের ইফতার খাওয়ালেন পুলিশ সুপার।# ঝিনাইদহের এই প্রথম করোনা জয়ী আরাফাতের বাড়িতে গিয়ে প্রধান মন্ত্রীর উপহার সামগ্রী ও ফুলেল শুভেচ্ছা জানালো ইউএনও# ঝিনাইদহ শহরের দুই মার্কেটে পুলিশের অভিযান ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা# মহেশপুরে গৃহবধুকে কুপিয়ে হত্যা
আজ সোমবার| ২৫ মে ২০২০
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

টঙ্গীতে ইয়াবার ভয়াবহ বিস্তার, আসক্ত হচ্ছে তরুণ,তুরুনিরা



রবিউল ইসলাম,টঙ্গী Channel 4TV :
গাজীপুরের টঙ্গীতে ক্রেজি মেডিসিন বা ইয়াবার ভয়ঙ্কর বিস্তার ঘটেছে। এতে আসক্ত হচ্ছে উঠতি বয়সি তরুণ তুরুনীরা। মাদক সিন্ডিকেটের ছড়িয়ে থাকা শক্তিশালী জালের মাধ্যমে সহজে ছড়িয়ে পড়ছে ইয়াবা  মরণনেশায়।ইয়াবার সর্বনাশা থাবায় হাজার হাজার পরিবারের সন্তানের জীবন আজ বিপন্নের পথে। এমন সন্তানদের যনো মায়ের কান্না এখন ঘরে ঘরে। অথচ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নাকের ডগা দিয়ে প্রসার ঘটছে ইয়াবা ব্যবসার। সমাজের কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি ও রাজনীতিক কিছু ব্যাত্তি এই ব্যবসার সাথে সরাসরি জড়িত রয়েছে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র ও তথ্য অনসন্ধানে জানা যায়, সমাজের প্রভাবশালী ব্যক্তি, রাজনৈতিক নেতা এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কিছু অসৎ সদস্যের সমন্বয়ে গঠিত শক্তিশালী সিন্ডিকেট ইয়াবা ব্যবসার নিয়ন্ত্রন করছে। যে কারণে কোন ভাবেই ইয়াবার আগ্রাসন রোধ করা যাচ্ছে না। প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম ধ্বংস করে মাদক ব্যবসার সিন্ডিকেট হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। জেলার সর্বত্রই এখন হাত বাড়ালেই পাওয়া যায় ‘ক্রেইজি ড্রাগ’ ইয়াবা। মোবাইল ফোনে অর্ডার দিলেই মুহুর্তেই হাতে চলে আসছে হরেক রঙের ইয়াবা ট্যাবলেট। ইয়াবা মিলছে এখন গাজীপুরের প্রতেকটি এলাকায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কিছু অসৎ সদস্য ও স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের সহযোগীতায় সুচারুভাবে চলছে এই ইয়াবার ব্যবসা।
জানা গেছে, স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী, তরুণ-তরুণী শুধু নয়, ব্যবসায়ী, চাকরিজীবীদের একটি বড় অংশও এখন ইয়াবায় আশক্ত। সহজলভ্যতার কারণেই ইয়াবা আসক্তির সংখ্যা দিনে দিনে বাড়ছে বলে মনে করছে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর । ১৫ থেকে ৫০ বছর বয়সী নারী-পুরুষ মাদক সেবন করছে। তবে ১৬ থেকে ৩০ বছর বয়সী মাদকসেবীর সংখ্যাই বেশি।
চিকিৎসকরা বলেন, মানবদেহের জন্য সবচেয়ে বেশি ক্ষতিকর নেশা দ্রব্যের মধ্যে ইয়াবা অন্যতম একটি। ইয়াবা অর্থ হলো ক্রেজি মেডিসিন বা পাগলা ওষুধ। মেথ্যাম ফিটামিন, উত্তেজক পদার্থ ক্যাফিনের সঙ্গে হেরোইন মিশিয়ে তৈরি করা হয় ইয়াবা। এ নেশা দ্রব্য হেরোইনের চেয়ে ভয়াবহ। তাদের মতে, ইয়াবা সেবন করার পর সাধারণত নির্ঘুমতা, চাঞ্চল্যতা ও শরীরে উত্তেজনা দেখা দেয়। ক্রমান্বয়ে আসক্ত হওয়ার পর এটা মনব শরীরে নানা প্রকার ক্ষতি করে থাকে। মনে হতাশা, বিষাদ, ভয়, অনিশ্চয়তার উদ্ভব হতে পারে। এ ছাড়া এটি সেবনকারীকে আচরণগতভাবে সহিংস করে তুলতে পারে।
 অপরাধ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অপরাধীরা ক্রমশ সহিংস হয়ে উঠছে ইয়াবার প্রভাবেই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানে ইয়াবার খুঁচরা ব্যবসায়ীরা মাঝে মধ্যে গ্রেফতার হয়। কিন্তু মূল হোতারা থেকে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। এতে করে ঠেকানো যাচ্ছে না ইয়াবা ব্যবসা। বানের পানির মতো ঢুকছে ইয়াবার চালান। আর যারা গ্রেফতার হচ্ছেন তাদের আটকিয়ে রাখা সম্ভব হচ্ছে না। আইনের ফাঁক গলে তারা বেরিয়ে আসছে কারাগার থেকে। আবার ফিরছে ইয়াবা ব্যবসায়।
স্থানীয় সুনামধন্য একজন আইনজীবীর সাথে কথা হলে তিনি জানান, মাদক ব্যবসা ও ব্যবহারে জড়িত ব্যক্তিদের আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা ধরে আদালতে পাঠানো পর জামিনে মুক্তি পাচ্ছে। জামিনযোগ্য সব ধারা পরিবর্তন করে অজামিনযোগ্য করা এখন সময়ের দাবি। তা না হলে এ অপরাধ কমবে না, কমবে না মাদক ব্যবসায়ীদের নেটওয়ার্কও।
তবে এব্যারে টঙ্গী মডেল থানার র্ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা,ফিরুজ তালুকদার জানা. মাদকের বিরুদ্ধে আমরা সজাগ রয়েছি প্রতিনিয়তো আমরা মদকের বিরুদ্ধে অবিজান চালাছি।আমার সমাজ থেকে মাদক নামক বিষটা নিমুল করার জনো আপরান চেষ্টা করছি আসা করি আমারা টঙ্গী কে মাদক মুক্ত করতে পারবো


1