LatestsNews
# শ্রীমঙ্গলে ৬ ডিসেম্বর মুক্ত দিবস বধ্যভ‚মি-৭১ প্রাঙ্গণে মুক্তিযুদ্ধের যাদুঘর করার দাবি # শার্শার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পৌছে গেছে নতুন বই# খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে চিকিৎসকদের অবাধ ও নিরপেক্ষ প্রতিবেদন দাখিল নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন বিএনপি# মুজিববর্ষের (২০২০) অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ঢাকা আসবেন মোদি, প্রণব ও সোনিয়া# মহেশপুরের ঐতিহ্যবাহী ইছামতি নদী দখল করে মাছ চাষ # আজ যশোর মুক্ত দিবস# ইনজেকশন দেওয়ার পর প্রসূতির মৃত্যু, স্বজনদের অভিযোগ ভুল চিকিৎসা# প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা বলছে চলতি মাসেই বসছে মেট্রোরেলের লাইন# সব জল্পনার অবসান সৃজিত-মিথিলার বিয়ে সন্ধ্যায়# ভুটানকে ১০ উইকেটে হারাল বাংলাদেশ# সিদ্ধেশ্বরীতে হত্যার শিকার তরুণীর পরিচয় জানা গেছে মিলেছে ধর্ষণের পর হত্যার আলামত# গণধর্ষণের পর পশু চিকিৎসককে নির্মমভাবে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত চারজনই পুলিশের গুলিতে নিহত । # নোয়াখালী হাতিয়ায় অস্ত্র ও গুলিসহ গ্রেপ্তার-১# অভাবের সঙ্গে যুদ্ধ করে অবহেলিত ফাতেমা এখন স্বাবলম্বী# ঝিনাইদহে অসহায় নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ # কালীগঞ্জে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ৮ সদস্য আটক# প্রশিক্ষণ আমাদের জ্ঞান ও কাজের দক্ষতা বাড়ায় - উপসচিব মোহাম্মদ শওকত ওসমান# নোয়াখালীতে এলজি ও দেশীয় অস্ত্রসহ ডাকাত গ্রেফতার# নোয়াখালীতে প্রথমবারের মতো খোলাবাজারে পেঁয়াজ বিক্রি করছে টিসিবি# শ্বাসরুদ্ধকর ও সংকটময় সেই ১২ ঘণ্টা
আজ রবিবার| ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

চীনা ঋণের চোরাবালিতে আটকে যাচ্ছে বাংলাদেশ?



 

‘বেল্ট অ্যান্ড রোড’ প্রকল্পের আগে ও পরে বাংলাদেশসহ অর্থনৈতিক দিক থেকে তুলনামূলক দুর্বল দেশগুলোকে চীনের আর্থিক সহায়তা করার বিষয়টি একই সঙ্গে চীন ও সাহায্যপ্রাপ্ত দেশগুলোর জন্য উপকারী। কিন্তু সাহায্য নিতে গিয়ে দেশগুলো ঋণের আরও গভীর ফাঁদে জড়িয়ে যাচ্ছে কিনা, এমন আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন অনেকে।

বাংলাদেশ চীনের ‘ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড’ (ওবোর) প্রকল্পের বড় এক স্বত্ত্বভোগী। ভৌগলিক অবস্থান আর জ্বালানী আমদানি বিষয়ক সম্পর্কের জন্য চীনের এ প্রকল্পের অংশীদার বাংলাদেশ।

গত বছরের অক্টোবর মাসে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের বাংলাদেশ সফরের সময় দুই দেশের প্রতিনিধিত্বকারী প্রতিষ্ঠানগুলো প্রায় ১৩শ’ ৬০ কোটি মার্কিন ডলারের বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সংক্রান্ত চুক্তি সই করে। এছাড়া আরও দু’হাজার কোটি ডলারের ঋণচুক্তি সই হয়।

দু’দেশের সরকারপ্রধানের উপস্থিতিতে এই ঋণচুক্তিকে প্রথমে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সফট লোন বা নমনীয় ঋণ বলে উল্লেখ করা হয়।

কিন্তু বাস্তবে দেখা যায়, চুক্তি হওয়ার পর থেকেই এই ‘নমনীয়’ ঋণকে চীন সেটাকে ‘বাণিজ্যিক’ ঋণে রূপান্তর করার জন্য বাংলাদেশের ওপর চাপ সৃষ্টি করছে। কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে, সরকার থেকে সরকারের কাছেই এই ঋণগুলো যাবে, এমন কোনো প্রতিশ্রুতি চুক্তিতে দেয়া ছিল না।

এত বিশাল পরিমাণ অর্থ বাণিজ্যিক ঋণে রূপান্তর করা হলে তার বোঝা বহন ও শোধ করা খুব বেশি ব্যয়বহুল হয়ে যাবে। তাই তখন থেকেই বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে এর কড়া প্রতিবাদ জানানো হচ্ছে। এখনো বিষয়টি নিয়ে মীমাংসা হয়নি।

বাংলাদেশ ছাড়াও চীনের ঋণের ‘চোরাবালি’তে আটকে আছে অন্য অনেক দেশ। যার মধ্যে শ্রীলঙ্কার নাম বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। ২০১৫ সালে ক্ষমতায় আসা দেশটির বর্তমান সরকার তার পূর্বসূরীর মতোই চেয়েছে চীনের আর্থিক সহায়তার ওপর নিজেদের নির্ভরশীলতা কমিয়ে আনতে। কিন্তু এখন পর্যন্ত সফল হয়নি।

দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কা বর্তমানে ৬ হাজার ৪শ’ কোটি মার্কিন ডলার ঋণের তলায় আছে। ঋণ শোধের বোঝাটা সরকারি খাতের ওপর বিশাল চাপ ফেলছে। সরকারের ৯০ শতাংশ রাজস্বেই এই ঋণ শোধের পেছনে চলে যাচ্ছে। মোট ঋণের মধ্যে আর্থিক সহায়তা হিসেবে চীনের কাছে দেশটির ঋণ ৮শ’ কোটি ডলার বলে জানিয়েছে দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট সিঙ্গাপুর

চীনের ঋণের তালিকায় মালয়েশিয়ার অবস্থানও ভালো নয়। দেশটির বিরোধী দলগুলো অনেক আগে থেকেই চীনের অর্থসাহায্যের ওপর সরকারের অতিনির্ভরতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে আসছে। বিশ্বব্যাংক ও মালয়েশিয়ার পরিসংখ্যান বিভাগের দেয়া তথ্য অনুসারে, ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত বেশ কিছু রাষ্ট্রনিয়ন্ত্রিত চীনা প্রতিষ্ঠান মালয়েশিয়ার নানা অবকাঠামো প্রকল্পে ৩ হাজার ৫৬ কোটি ডলারেরও বেশি বিনিয়োগ করেছে।

চীনের এই আর্থিক সহায়তা দেয়ার বিষয়টিকে বিশ্লেষকদের অনেকেই সমালোচনা করে বলছেন, এর মধ্য দিয়ে সাময়িক সুবিধার আশ্বাস দিয়ে তুলনামূলক দুর্বল অর্থনীতির দেশগুলোর ওপর নিজের আর্থিক প্রভাব বাড়িয়ে ক্ষমতা বিস্তারের চেষ্টা করছে অর্থদাতা দেশটি। এতে সাহায্য পাওয়া দেশগুলো চীনের ঋণের বোঝার তলে চাপা পড়ে তার ওপর গলা চড়াতে পারবে না।

তবে অনেক বিশেষজ্ঞের আবার ধারণা, শুধু শুধু ক্ষমতা বাড়ানো চীনের উদ্দেশ্য নয়। ভারতের সঙ্গে সম্পর্কের টানাপোড়েনের সূত্র ধরে দেশটির তুলনায় আঞ্চলিক শক্তি বৃদ্ধি চীনের বড় একটি লক্ষ্য।


1