LatestsNews
# বেনাপোলে সড়ক দুর্ঘটনায় ট্রান্সপোর্ট ব্যবসায়ী নিহত# এবছর শিক্ষা খাতে বাজেটের আকার বাড়লেও তা শতাংশে কমেছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।# পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে বাংলাদেশি ও চীনা শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষে ৮ চীনা শ্রমিক আহত হয়েছেন।# দেশে ফলের উৎপাদন বাড়াতে প্রতিনিয়ত চলছে নানা গবেষণা- কৃষকদের উৎসাহিত করতে যত আয়োজন# মোবাইল ফোনে বাংলায় এসএমএস (মেসেজ) পাঠালে খরচ অর্ধেক ছাড় দেয়া হবে।# বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য হলেন সেলিমা ও টুকু# মানুষের খাদ্য তালিকার প্রাণীর এসব খাবার এ যেন মানুষ মারার কারখানা# রাজধানীর বায়তুল মোকাররম মার্কেটে আগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে।# আমিরাতে প্রথম বাংলাদেশির গোল্ডেন ভিসা অর্জন# 'মোবাইল রিচার্জে শুল্ক বাড়ানোয় ক্ষতিগ্রস্ত হবে ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা'# কামারখন্দ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী শহিদুল্লাহ সবুজ নির্বাচিত# লাকসামে স্কুলছাত্রী ধর্ষনের শিকার, ধর্ষনকারী গ্রেপ্তার# দেশে সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়া কঠিন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম।# রাজধানীতে বিশৃঙ্খলভাবে দেয়াল লিখন ও গাছে বিজ্ঞাপন লাগালে কঠোর ব্যবস্থা'# পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের শেষ বা পঞ্চম ধাপের ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে এখন চলছে গণনা।# খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি নির্ভর করছে আদালতের ওপর।# রাজধানীর কল্যাণপুরের রাজিয়া পেট্রোল পাম্পে আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে।# সালথায় জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহে বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্র শিক্ষকদের মাঝে পুরস্কার বিতরন# ঝিনাইদহে মসজিদের মোয়াজ্জিনকে কুপিয়ে ও গলাকেটে হত্যা !# অবশেষে বড় অংকের অর্থের বিনিময়ে মিশরের ইজিপ্ট এয়ার থেকে লিজ নেয়া নষ্ট দুটি উড়োজাহাজ ফেরত দেয়া হচ্ছে।
আজ বুধবার| ১৯ জুন ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

ঝিনাইদহ-২ আসনে কে পাবেন মনোনয়ন টিকিট



জাহিদুর রহমান তারিক,ঝিনাইদহঃ
ঝিনাইদহ-২ (সদর ও হরিণাকুন্ডু) আসনটি পুনরুদ্ধারের জন্য মরিয়া হয়ে আছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। গত নির্বাচনে এ আসন থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক নূরে আলম সিদ্দিকীর ছেলে স্বতন্ত্র প্রার্থী তাহজীব আলম সিদ্দিকী সমি। সাম্প্রতিক সময়ে তিনি আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন। আওয়ামী লীগের প্রার্থী সফিকুল ইসলাম অপু ২০০৮ সালের নির্বাচনে চারবারের এমপি বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থী মসিউর রহমানকে হারিয়ে চমক দেখালেও গত নির্বাচনে নিজেই ধরাশয়ী হয়েছিলেন। এ অবস্থায় আওয়ামী লীগের দুই সম্ভাব্য প্রার্থী তাহজীব আলম সিদ্দিকী সমি ও সফিকুল ইসলাম অপুর পাশাপাশি বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী মসিউর রহমান আগামী নির্বাচনে বিজয়ের জন্য রীতিমতো মুখিয়ে আছেন। সম্ভাব্য প্রার্থীদের লড়াই রীতিমতো জমে উঠেছে। এ আসনে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী চারজন। তারা হলেন-বর্তমান এমপি তাহজীব আলম সিদ্দিকী সমি, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি সফিকুল ইসলাম অপু, সহ-সভাপতি নাসের শাহরিয়ার জাহেদী ও সাধারণ সম্পাদক সাইদুল করিম মিন্টু। বিএনপির প্রার্থী তিনজন। তারা হলেন-জেলা বিএনপির সভাপতি ও চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মসিউর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম এ মজিদ ও জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি মীর রবিউল ইসলাম লাবলু। জাতীয় পার্টির একক প্রার্থী দলের জেলা সভাপতি ড. হারুন অর রশিদ।

বর্তমান এমপি তাহজীব আলম সিদ্দিকী সমি আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন। তার ব্যক্তিগত সহকারী কামাল হোসেন জানান, তাহজীব আলম সিদ্দিকী সমি তৃণমূল নেতা-কর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়, সভা-সমাবেশ ও জনসংযোগ শুরু করেছেন; দলীয় কর্মকান্ডেও সক্রিয় হয়েছেন। গত নির্বাচনের স্বতন্ত্র এই প্রার্থী মনে করছেন, আগামীতে দলের মনোনয়ন পেলে তিনি খুব সহজেই নির্বাচনী বৈতরণী পেরোতে পারবেন। গত নির্বাচনে তাহজীব আলম সিদ্দিকী সমির প্রতিদ্বন্দ্বী সফিকুল ইসলাম অপুও থেমে নেই। আবারও দলের মনোনয়ন পাওয়ার জন্য তিনি মরিয়া হয়ে চেষ্টা করছেন। স্থানীয় রাজনীতিতে তিনি সৎ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন। বিএনপির শক্তিশালী প্রার্থী মসিউর রহমানকে তিনি পরাজিত করেছিলেন। গত নির্বাচনে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে তার জয় ছিনিয়ে নেওয়া হয়েছে। এবারও তার প্রত্যাশা, তিনিই দলের মনোনয়ন পাবেন। এ আসনে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকার শীর্ষে রয়েছেন চারবারের সাবেক এমপি মসিউর রহমান। তিনি বলেন, চার দফায় এমপি নির্বাচিত হয়ে তিনি এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। বর্তমানে জেলা শহরসহ পার্শ্ববর্তী এলাকায় উন্নয়নের যে চিত্র দেখা যাচ্ছে, তার সবকিছুই তিনি করেছেন।

জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম এ মজিদ জানিয়েছেন, সরকারের ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে মসিউর রহমান প্রার্থী হতে না পারলে তিনি এ আসনে বিএনপির মনোনয়ন চাইবেন। এ ব্যাপারে তার কাছে কেন্দ্রীয় নির্দেশনা রয়েছে বলেও তিনি দাবি করেন। বিএনপির আরেক সম্ভাব্য প্রার্থী মীর রবিউল ইসলাম লাবলু বলেছেন, রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়নের কাছে পরাজিত হয়ে তিনি জেলা পর্যায়ের রাজনীতি থেকে সরে যেতে বাধ্য হন। তার সাংগঠনিক দক্ষতায় ঈর্ষান্বিত হয়ে একটি মহল ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে তাকে স্থানীয় রাজনীতি থেকে সরিয়ে দেয়। এখন দলের তৃণমূল নেতা-কর্মীরা পরিবর্তন চান। আর সেই নেতা-কর্মীদের অনুরোধেই তিনি প্রার্থী হতে চাইছেন।
জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি ড. হারুন অর রশিদ মনে করেন, তার দল একক কিংবা জোটবদ্ধভাবে নির্বাচন করলে তিনি মনোনয়ন পাবেন। ১৯৭৩ সালের নির্বাচনে এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে জয়ী হয়েছিলেন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা নূরে আলম সিদ্দিকী। এর পর থেকে দীর্ঘ কয়েক বছর এ আসন আওয়ামী লীগের হাতছাড়া হয়ে ছিল। ১৯৭৯ সালের নির্বাচনে জয়ী হয়েছিলেন মওলানা নুরুন্নবী ছামদানি। ১৯৮৪ ও ১৯৮৬ সালের নির্বাচনে জাতীয় পার্টির আশরাফুল আবেদীন আশা ও আনোয়ার জাহিদ নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৯১ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত আসনটি বিএনপির প্রার্থী মসিউর রহমান নির্বাচিত হন। তবে ২০০৮ সালের নির্বাচনে মসিউর রহমানকে হারিয়ে বিজয়ী হয়েছিলেন আওয়ামী লীগের সফিকুল ইসলাম অপু।


1