LatestsNews
# গুলশান-১ এর ডিএনসিসি মার্কেটে মেয়াদোত্তীর্ণ শিশু খাদ্য # এডিসের লার্ভা ধ্বংসে বাড়ি বাড়ি অভিযানে নগরবাসীর অসহযোগিতার অভিযোগ# চামড়া নিয়ে টানাপোড়েন থামছেই না - নিয়মিত ক্রেতাদের তৎপরতা দেখা যায়নি। # কাশ্মীর ইস্যুতে মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বিবৃতি প্রকাশ# দাবি-দাওয়া মানলেই মিয়ানমারে ফিরবে রোহিঙ্গারা# ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিচারকের কক্ষে বিরিয়ানি খান রাজসাক্ষী জজ মিয়া# গাইবান্ধার ঝিনুকের তৈরী চুন উৎপাদনকারি যুগি পরিবারগুলো এখন বিপাকে# শিক্ষা নীতিমালা অনুমোদন করায় মোবারক হোসেন প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের অভিনন্দন# এডিস মশার দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের জন্য বাংলাদেশ সফরে আসছেন উচ্চ পর্যায়ের বিদেশি বিশেষজ্ঞ প্রতিনিধিদল। # শেখ হাসিনাকে ভারত সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। # মেঘনা নদীর ভাঙন গাফিলতি করা সেই প্রকৌশলীকে কী শাস্তি দেওয়া হয়েছে? : প্রধানমন্ত্রী# সংসদ সদস্য না হয়েও বিলাসবহুল গাড়িতে শুল্কমুক্ত সুবিধা পেলেন মুহিত# দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) দুর্নীতির বস্তাভর্তি টাকাসহ হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা গ্রেপ্তার# নায়াখালীতে সিএনজিচালিত ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে নারী-শিশুসহ আহত ১২# পচা মাছ মজুদ ও বিক্রির দায়ে স্বপ্ন এক্সপ্রেস সুপার শপকে জরিমানা# ভারতীয় দলের ওপর হামলার শঙ্কা, পিসিবিকে মেইল# ২০২৩ সালের মধ্যে দেশের ৬৬ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুপুরের খাবার পাবে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা# মিন্নির জামিন শুনানি, যা বললেন হাইকোর্ট# ভারতের বহুল আলোচিত ইসলামিক বক্তা ডা. জাকির নায়েক এবার মালয়েশিয়ায় নিষেধাজ্ঞার মুখে# নেত্রীকে মুক্ত করতে ব্যর্থ বিএনপি এখন বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে মন্তব্য : ওবায়দুল কাদের।
আজ শনিবার| ২৪ আগস্ট ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

পলাশী পাড়া সমাজ কল্যাণ সমিতির সূর্যের হাসি ক্লিনিকে চলছে অনিয়ম ।রোগীদের দুর্ভোগ



মেহেরপুর প্রতিনিধি : ইউএনএইচসিআর ও ইউকেএইচ এর অর্থায়নে পরিচালিত মেহেরপুরের গাংনী শহরের বাঁশবাড়িয়া পলাশী পাড়া সমাজ কল্যান সমিতির সূর্যের হাসি ক্লিনিকে চলছে নানা অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনা। ডেলিভারীসহ প্রতিটি বিভাগে বাড়তি টাকা আদায়ের কারণে দুরদুরান্ত থেকে আসা সাধারণ রোগীদের চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে। তাছাড়া ক্লিনিকে ২জন ডাক্তার থাকার নিয়ম থাকলেও সেখানে কর্মরত আছে একজন । তাকেও সঠিক সময়ে চেম্বারে পাওয়া যায় না । সেখানে ১জন ডাক্তার দিয়ে সেবা দেওয়া হয় । নার্স দিয়ে চলছে অপারেশনসহ ক্লিনিকের সব কাজ। অপারেশন থিয়েটারে নেই পর্যাপ্ত যন্ত্রপাতি। অপরিপক্ষ অদক্ষ টেকনিশিয়ান দ্বারাই পরিচালিত হচ্ছে সেবামূলক এ প্রতিষ্ঠানটি। ক্লিনিক কর্তৃক যে ফার্মেসী রয়েছে সেখানেও চলছে গলাকাটা বাণিজ্য। তাছাড়া রোগীদের জন্য নির্ধারিত এ্যাম্বুলেন্সটি রোগী পরিবহনের কাজে ব্যবহার হয়না। নিজ ডাক্তার ও অধিকাংশ সময় বাইরে ভাড়া দেওয়া হয়। এসব নানান সমস্যার কারণে এই সেবা মূলক প্রতিষ্ঠানটিতে প্রতিদিন সাধারণ রোগীদের প্রতিনিয়ত ভোগান্তি ও হয়রানীর শিকার হতে হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ৩টার সময় ক্লিনিকে গিয়ে দেখে যায়, কোন রোগী নাই। তবে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায় ,সূর্যের হাসি ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় অনেক রোগীর মৃত্যু হয়েছে। ক্লিনিকে সেবার মান খারাপ হওয়ায় রোগীরা মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। ক্লিনিকটি প্রায় বন্ধের পথে । সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে, এই ক্লিনিকে ডাক্তারের মধ্যে রয়েছে ডা. আব্দুল্লাহ ইয়ামিন পিয়াল । ডাক্তার নিয়মিত উপস্থিত থেকে রোগীদের সেবা দিয়ে আসলেও অন্যান্য কোন ডাক্তারকে চেম্বারে পাওয়া যায়না বলে অভিযোগ একাদিক রোগীদের। নির্ধারিত সিডিউলে ডিউটি করেন না তারা। ১০ শয্যার এ ক্লিনিকে ৬জন নার্স দিয়ে চলছে ডেলিভারী থেকে শুরু করে পুরো কার্যক্রম। কমিশনের আশায় ডেলিভারী রোগী আসলেই ভর্তির শুরুতে অপারেশন করার জন্য চাপ প্রয়োগ করে নার্স সহ সংশ্লিষ্ট সবাই। আর স্বাভাবিক ডেলিভারী হলেও রোগীর অভিভাবকদের ধরিয়ে দেওয়া হয় লম্বা একটি বিল। এতে রয়েছে নর্মাল ডেলিভারী চার্জ বাবদ এক হাজার ৭শ’ টাকা, ওটি চার্জ আটশ’ টাকা, নার্স, আয়ার বকশিস ও অন্যান্য আনুসঙ্গিক বিল বাবদ ৮শ’পঞ্চাশ টাকা। নর্মাল ডেলিভারী রোগীদের কাছ থেকে যে পরিমাণ টাকা নেওয়া হয়, তার ৩-৪ গুণ বেশী টাকা চার্জ করা হয় অপারেশন করা রোগীদের কাছ থেকে। যে কারণে গরীব-অসহায় রোগীরা সেবার বদলে প্রতিনিয়ত হয়রানীর শিকার হচ্ছে বলে ভুক্তভোগী রোগীরা জানায়। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত রোগীদের মধ্যে সাবিনা খাতুন নামের এক প্রসূতির স্বামী মনিরুল ইসলাম ,ও অন্যান্য নিহত প্রসূতির স্বামী মিজানুর রহমান জানান, যখন প্রসূতিরা প্রসব যন্ত্রণায় কাতরাতে থাকে ঠিক ওই সময়ে একজন ডাক্তার পাওয়া যায়না। নার্সদের সিদ্ধান্তে চলে পুরো চিকিৎসা। তারা আরো বলেন, ইতো পূর্বে নার্সদের ভুল চিকিৎসায় আমার স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে।এছাড়াও উপজেলার করমদী,ঝোড়পাড়া, হাড়াভাঙ্গা,গাড়াডোব গ্রামে প্রায় ৬ জন শিশুসহ রোগী মারা গেছে। ডেলীভারী রোগী আসার সাথে সাথে অপারেশন করার জন্য চাপ দেয় নার্সরা। তাছাড়া বাঁশবাড়িয়া গ্রামের হতদরিদ্ররোগী রমেছা খাতুন জানান, বিনামূল্যে ওষুধ দেওয়ার কথা থাকলেও তা পাওয়া যায়না। অভিযোগ উঠেছে, ক্লিনিকের নার্সদেরও সঠিক সময়ে পাওয়া যায়না। বকশিসের আশায় বসে থাকে তারা।ডাকলে বিরক্তি ভাব দেখায় অনেক সময় সাধারণ রোগী ও রোগীর অভিভাবকদের সাথে অসৌজন্যমূলক ব্যবহার করে।প্রসূতিদের সেবা নিশ্চিত করতে তাদের নিয়োজিত মাঠকর্মীরাও সঠিক দায়িত্ব পালন করেনা। নির্ভরযোগ্য সুত্রে জানা গেছে, গর্ভবতীদের অপরেশনের মাধ্যমে ডেলিভারী করাতে পারলে প্রতিটি অপরেশনে ক্লিনিকের সংশ্লিষ্টরা কমিশন পায়। যা অ¯ী^কার করেছেন ক্লিনিক ব্যবস্থাপক । প্রতিবেদক ফোনের মাধ্যমে ক্লিনিকের বিভিন্ন অনিয়ম ও রোগীদের কাছ থেকে বাড়তি টাকা আদায় ইত্যাদি ব্যাপারে পলাশী পাড়া সমাজ কল্যাণ সমিতির সূর্যের হাসি ক্লিনিকের ম্যানেজার বদরুদ্দোজা প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি বলেন, গর্ভবতী অপারেশনের রোগীদের নিকট থেকে ৮হাজার ৮শ’ টাকা নেওয়া হয়। তবে নিয়ম অনুযায়ী টাকা নেওয়া হয়। অতিরিক্ত কোন টাকা নেওয়ার বিধান নেই । সবার নির্ধারিত বেতন রয়েছে। ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যুর ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি আরো বলেন, আমি শুনেছি একজনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের কিছু জনবল সংকট রয়েছে। জনবল সংঙ্কটের কারণে সঠিকভাবে সেবা দিতে একটু কষ্ট হচ্ছে। তবে তিনি অনিয়মের সাথে জড়িত নন। অভিযোগ রয়েছে, ব্যবস্থাপকের বিরুদ্ধেও। দীর্ঘ দিন ধরে বহাল তবিয়তে থাকার সুবাদে তিনি গড়ে তুলেছেন একচ্ছত্র আধিপত্য। উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে খুশি করার জন্য অতিরিক্ত বিল নেয় বলে অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। যে কারণে সেবার পরিবর্তে সাধারণ রোগীরা হয়রানীর শিকার হচ্ছে বলে জানা গেছে। সরেজমিন দেখা গেছে, ক্লিনিকের ডেলিভারী কক্ষগুলো খুব ছোট ছোট। চারিদিকে ময়লা আর্বজনা পড়ে রয়েছে। গাদাগাদি করে রাখা হয়েছে রোগীদের। সিঁড়িতে প্রচুর ময়লা। নেই কোন ডাস্টবিন। এ ব্যাপারে ক্লিনিকের পিডি বিপ্লব হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে বর্তমান ক্লিনিকের ভারপ্রাপ্ত পিডি আব্দুল বারির সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে মোবাইলটি বন্ধ ছিলো।


1