LatestsNews
# সামান্য তর্কের জেরে প্রাণ হারালো এক কারখানা শ্রমিক। # উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবেই প্রিয়া সাহা অসত্য বক্তব্য দিয়েছেন দেশে ফিরলেই তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।# দেশদ্রোহী বক্তব্যের জন্য প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতেই হবে : কাদের# বেনাপোল সীমান্তে ভারতীয় রুপিসহ আটক ১ # কুষ্টিয়ায় বন্দুকযুদ্ধে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত অস্ত্র,গুলি ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার # বৃষ্টিতে না ভিজতে গাছতলায় আশ্রয়, বজ্রপাতে ৮ শিশুর মৃত্যু# ডিজিটাল গরু' ফেসবুকে ভাইরাল হবিগঞ্জের ‘শিক্ষিত গরু’! # অস্ট্রিয়ায় বিমান বিধ্বস্তে ৩ জনের মৃত্যু# ই মিটিশন চালু হওয়ায় পাল্টে যাচ্ছে গাংনী ভুমি অফিসের চিত্র# নেত্রকোনায় ব্যাগ থেকে শিশুর মাথা উদ্ধারের ঘটনাটি হত্যাকাণ্ড।# শ্রীলঙ্কা সফরই ক্যারিয়ারের শেষ বিদেশ সফর টাইগার অধিনায়ক মাশরাফী বিন মুর্তজার।# বাংলাদেশ থেকে যাওয়া রোহিঙ্গার প্রশ্নে ‘অবাক’ উত্তর ট্রাম্পের # ধর্ষককে বিদেশ থেকে দেশে ফিরিয়ে আনছেন যে নারী আইপিএস# নুহাশপল্লীতে নানা আয়োজনে হুমায়ূন আহমেদকে স্মরণ ও ৭ষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হচ্ছে।# পদ্মা সেতুতে বলির গুজবে বাড়ছে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা।# টাঙ্গাইলে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে তলিয়েছে আরও ২০ গ্রাম# রিফাত হত্যা মামলার তিন নম্বর আসামি রিশান ফরাজীর পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর "# আইনি লড়াই ছাড়া বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির কোনো বিকল্প পথ নেই মন্তব্য তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।# ডেঙ্গু মোকাবিলায় সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল করেছে উত্তর সিটি করপোরেশন।# মুন্সীগঞ্জে শারীরিক প্রতিবন্ধী ও দারিদ্রতা দমাতে পারেনি জুলিয়ার পড়াশোনা
আজ শনিবার| ২০ জুলাই ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

সরেজমিন প্রতিবেদন পর্ব - ০১ ফেনীতে মালিক সমিতির টোকেন বানিজ্যে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে অনুমোদনহীন সিএনজি



বেশীরভাগ চালকদের নাই লাইসেন্স। এম. রফিকুল ইসলাম (চট্টগ্রাম) : ফেনীতে মালিক সমিতির স্টীকারে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে অনুমোদনহীন সিএনজি। এসব সিএনজির নেই কোন প্রকার পারমিট ও বিআরটিএর কোন ছাড়পত্র। তবুও বিভিন্ন মহলকে ম্যানেজ করে মহিপাল হতে নোয়াখালী সড়কে বহাল তবিয়তে চলছে ছয় শতাধীকেরও বেশী অনুমোদনহীন সিএনজি। কিন্তু অনুমোদনহীন সিএনজি মালিক ও চালকরা স্থানীয় একটি মহলকে ম্যানেজ করে চালিয়ে যাচ্ছে যেখানে খুশি সেখানে। যেন দেখার কেউ নেই। অবিভাবকহীন নগরে সকাল থেকে অবৈধ সিএনজি চালিত গাড়ী গুলো দেখা যায় অনেক বেশি। এসব গাড়ী লোকাল যাত্রির পাশা-পাশি মাদকের চালান সরবরহ করে থাকে বলে জানা গেছে। এছাড়া বিভিন্ন স্থান থেকে লোকল যাত্রি উঠিয়ে ছিনতাইকারীদের কবলে ঠেলে দেয় এসব ভয়ঙ্কর চালকরা। সূত্রে জানিয়েছে, ফেনীতে অধিকাংশ সিএনজি চালকরা গ্যরেজ মালিকদের ম্যানেজকরে সন্ধ্যার পর গাড়ী চালায়। সবার মুখে মুখে প্রচালিত সিএনজি চালকরা খুবই বেপরোয়া । বেশিীরভাগ ড্রাইভারদের বয়স অনেক কম। পাশাপাশি তাদের কারো কাছে নেই ড্রাইভিং লাইসেন্স। অবৈধ চালকদের কার্মকান্ডে বৈধ চালকরা বিভিন্ন জটিলতায় পরেণ। এজন্য অনেক চালক ক্ষোভ প্রকাশ করেণ। সরেজমিনে দেখা গেছে, রুট পারমিট না থাকা সত্ত্বেও কোন যাদুবলে চলছে ফেনীর রাস্তায়। এমন প্রশ্নে সটকে পড়লেন এক চালক। কিন্তু অন্যএক চালকের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, মহিপাল সিএনজি মালিক সমিতির টোকেনের মাধ্যমে বোঝাপড়া করেই চালাচ্ছেন এসব সিএনজি। আবার কেউ কেউ এমন প্রভাশালীদের ছায়ায় আছেন যে, প্রতিদিন সকালে অফিসে নামিয়ে দিয়ে আসার বিনিময়ে পুলিশে ধরলে তার নাম বলেন। এতে কাজও হয়, ছেড়ে দেয় পুলিশ। তাদের মধ্যে এক চালক জানালেন, প্রতি মাসে মালিক সমিতির টোকেনের মাধ্যমে ফেনীর মহিপাল থেকে ছুটে চলে মহিপাল - নোয়াখালী সড়কে। অল্প বয়স্ক ড্রাইভারদের বেপোরোয়াভাবে গাড়ী চালানোর ধরুন হারহামেশাই দূঘটনার স্বীকার হচ্ছে যাত্রীরা। এ সকল ড্রাইভারদের সাথে যাত্রীরা কথা বল্লেই শুনতে হয় বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তির নাম। ট্রাফিক বিভাগের কর্মকর্তাদের সামনেই এ সকল সিএনজি গুলো চলাচল করলেও তারা যেন এ ধরনের অনুমোদনহীন সিএনজি সর্ম্পকে কিছুই জানে না। অবশ্য এসব বিষয়ে ফেনী জেলা টিআই প্রশাসক মীর গোলাম ফারুক জানান, আমরা এসকল গাড়ীগুলো প্রায়শই আটক করি এবং সিএনজি গুলোর বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়। পরবর্তীতে গাড়ীর মালিক পক্ষ জরিমানা দিয়ে মামলা তুলে নিয়ে আবারও রাস্তায় নেমে পড়ে। টোকেন বানিজ্যের বিষয়ে ফেনী পুলিশ সুপার এস.এম জাহাঙ্গীর আলম সরকার বলেন আমাদের পুলিশ ও পুলিশের কোন কর্মকর্তা এ ধরনের কোন কাজে জড়িত নয়, আর যদি কোন রকম প্রমান পাওয়া যায়, তখন তার বিরুদ্ধে কঠোরতম ব্যবস্থা নেয়া হবে। অনুমোদনহীন সিএনজি ও টোকেন বানিজ্যের বিষয়ে ফেনী বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালক প্রকৌশলী সৈয়দ আইনুল হুদা চৌধুরী ও মটরযান পরিদর্শক মাহবুব রাব্বানী জানায়,কে বা কারা টোকেনের মাধ্যমে এসকল গাড়ী চাল্লাচ্ছে তা আমরা অবগত নই। কিন্তু আমরা মাঝে মাঝে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে এ সকল অনুমোদনহীন সিএনজি গুলোর বিরুদ্ধে অভিযান করে থাকি এবং মামলা দিয়ে থাকি তারপরেও এ গাড়ী গুলোর বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না। টোকেনের সন্ধান : আমাদের প্রতিবেদক অনুমোদন সিএনজি গুলোর বিষয়ে খবর নিয়ে জানতে পারে ফেনীর মহিপালে সিএনজি মালিক সমিতির দেয়া টোকেন গুলো জাহাঙ্গীর ও হানিফের মাধ্যমে পরিচালিত হয়।গতকাল দুপুরে জাহাঙ্গীর ও হানিফের মুঠোফোনে কথা হলে জাহাঙ্গীর জানায়, মহিপাল সিএনজি স্ট্যান্ডে হানিফের কাছে গেলে টোকেন পাওয়া যাবে। হানিফের মুঠোফোনে কথা হলে হানিফ জানায়, প্রতিটি গাড়ী প্রথমবা লাইনে ঢুকতে হলে ১/২ হাজার টাকা দিতে হয় এবং প্রতি সিএনজির জন্য মাসিক ৫০০ টাকা করে দিলে টোকেন পাওয়া যাবে। হানিফের কাছে আমরা জানতে চাই যে, ট্রাফিক পুলিশ যদি ঝামেলা করে, তখন হানিফ জানায় আমাদের টোকেন থাকলে কোন প্রকার ঝামেলা হবে না।


1