LatestsNews
# ‘বুলবুল’ কেড়ে নিল সাতজনের প্রাণ# সোমবারের জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষাও স্থগিত# বীরের মতো লড়েও সিরিজ জেতাতে পারলেন না নাঈম# ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ কেড়ে নিল ১০ জনের প্রাণ# সরকার হটানোর জন্য বিএনপি তৈরি হচ্ছে: ফখরুল# ব্যাংক ঋণ পরিশোধে পুরুষের চেয়ে এগিয়ে নারী: বাণিজ্যমন্ত্রী# জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা শুরু শনিবার# ধানমন্ডিতে বাড়ির মালিক-গৃহকর্মীকে গলাকেটে হত্যা # আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারীদের মধ্যে ১৫০০ জনেক চিহ্নিত করা হয়েছে # রপ্তানি করতে না পারায় ভারতে পেঁয়াজের বাজারে ধ্বস!# আল-জাজিরায় বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সারদের সফলতার গল্প# আজ থেকে ৯ ইঞ্চির ছোট সাইজের ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ থাকবে# ব্যাংকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত সার্ভিস চার্জ ফ্রি# যুক্তরাষ্ট্রে ‘সঙ্কটাপন্ন’ খোকার জীবন শেষ ইচ্ছেটিও পূরণ হচ্ছে না পাসপোর্ট না থাকায়# সড়কে শৃঙ্খলা আনতেই নতুন আইন : কাদের# 'দেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতেই ভোলার ঘটনা ঘটানো হয়েছে'# ন্যাম সম্মেলন শেষে দেশের পথে প্রধানমন্ত্রী# এমপিওভুক্তিতে অসঙ্গতি, বিকালে সংবাদ সম্মেলনে আসছেন শিক্ষামন্ত্রী# সরকারের গুণগানে দেশে নতুন বুদ্ধিজীবী শ্রেণীর উদয় হয়েছে : গয়েশ্বর# সিটি ব্যাংক ও বিকাশের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর
আজ মঙ্গলবার| ১২ নভেম্বর ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

শোকাবহ জেলহত্যা দিবস আজ



বাংলাদেশের ইতিহাসের কলঙ্কময় দিন ৩ নভেম্বর – ১৯৭৫'র এ দিনে জেলখানায় বর্বর হত্যাকাণ্ডের শিকার হন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম কাণ্ডারি, চার জাতীয় নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী ও এএইচএম কামারুজ্জামান। বাঁধাগ্রস্ত হয় সদ্য স্বাধীন দেশের গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রা, প্রতিক্রিয়াশীলদের আঘাতে জর্জরিত হয় মুক্তিযুদ্ধের চেতনা।

প্রতিকূল আইনি জটিলতা পেরিয়ে দীর্ঘ প্রায় চার দশক পর মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি হলেও এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়ে গেছে হত্যাকাণ্ডের রাজনৈতিক কুশীলবরা।

পঁচাত্তরের ১৫ আগষ্ট, সপরিবারে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর, দেশে যখন মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শক্তির দাপট, ক্ষমতায় প্রতিক্রিয়াশীলরা, তারই তিন মাসের মাথায় আবারো আঘাত আসে মুক্তিযুদ্ধের কাণ্ডারিদের ওপর। ৩ নভেম্বর, ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নির্মম হত্যাযজ্ঞের শিকার হন বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দানকারী চার জাতীয় নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী ও এ এইচ এম কামারুজ্জামান।

কারাগারের নিরাপত্তা সেলে রাতের অন্ধকারে ঘটে এ বর্বর হত্যাকাণ্ড। বঙ্গবন্ধুর বিশ্বস্ত সহচর, মুক্তিযুদ্ধসহ বাঙালির সকল আন্দোলন-সংগ্রামের এই পুরোধা ব্যক্তিত্ত্বদের হত্যা করে দেশকে নেতৃত্বশূন্য করতে চেয়েছিল প্রতিক্রিয়াশীল চক্র। যে শক্তি বাংলাদেশের জন্ম মেনে নিতে পারেনি তারাই ঘটায় এ হত্যাকাণ্ড।

জেল হত্যাকাণ্ড ছিল মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাংলাদেশের এগিয়ে চলার ওপর উপর্যুপরি আঘাত। বিচারহীন থাকার দীর্ঘ অপেক্ষা কেটে গেলেও এখনো সেই বিভীষিকায় আপ্লুত হন শহীদ চার নেতার স্বজনেরা।

দুই দশকেরও বেশি সময় এ হত্যাকাণ্ডের কোনো বিচার হয়নি। ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে জেলহত্যার বিচার শুরু করে। দীর্ঘ প্রায় চার দশক পর বিচার শেষ হলেও, এ হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যে যে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র ছিল তা আজও উন্মোচিত হয়নি। এজন্য কমিশন গঠনের দাবি জানান জাতীয় চার নেতার স্বজনেরা।


1