LatestsNews
# গুলশান-১ এর ডিএনসিসি মার্কেটে মেয়াদোত্তীর্ণ শিশু খাদ্য # এডিসের লার্ভা ধ্বংসে বাড়ি বাড়ি অভিযানে নগরবাসীর অসহযোগিতার অভিযোগ# চামড়া নিয়ে টানাপোড়েন থামছেই না - নিয়মিত ক্রেতাদের তৎপরতা দেখা যায়নি। # কাশ্মীর ইস্যুতে মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বিবৃতি প্রকাশ# দাবি-দাওয়া মানলেই মিয়ানমারে ফিরবে রোহিঙ্গারা# ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিচারকের কক্ষে বিরিয়ানি খান রাজসাক্ষী জজ মিয়া# গাইবান্ধার ঝিনুকের তৈরী চুন উৎপাদনকারি যুগি পরিবারগুলো এখন বিপাকে# শিক্ষা নীতিমালা অনুমোদন করায় মোবারক হোসেন প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের অভিনন্দন# এডিস মশার দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের জন্য বাংলাদেশ সফরে আসছেন উচ্চ পর্যায়ের বিদেশি বিশেষজ্ঞ প্রতিনিধিদল। # শেখ হাসিনাকে ভারত সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। # মেঘনা নদীর ভাঙন গাফিলতি করা সেই প্রকৌশলীকে কী শাস্তি দেওয়া হয়েছে? : প্রধানমন্ত্রী# সংসদ সদস্য না হয়েও বিলাসবহুল গাড়িতে শুল্কমুক্ত সুবিধা পেলেন মুহিত# দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) দুর্নীতির বস্তাভর্তি টাকাসহ হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা গ্রেপ্তার# নায়াখালীতে সিএনজিচালিত ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে নারী-শিশুসহ আহত ১২# পচা মাছ মজুদ ও বিক্রির দায়ে স্বপ্ন এক্সপ্রেস সুপার শপকে জরিমানা# ভারতীয় দলের ওপর হামলার শঙ্কা, পিসিবিকে মেইল# ২০২৩ সালের মধ্যে দেশের ৬৬ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুপুরের খাবার পাবে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা# মিন্নির জামিন শুনানি, যা বললেন হাইকোর্ট# ভারতের বহুল আলোচিত ইসলামিক বক্তা ডা. জাকির নায়েক এবার মালয়েশিয়ায় নিষেধাজ্ঞার মুখে# নেত্রীকে মুক্ত করতে ব্যর্থ বিএনপি এখন বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে মন্তব্য : ওবায়দুল কাদের।
আজ রবিবার| ২৫ আগস্ট ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

শ্রীপুরে ক্ষেতে পোকার আক্রমণ কৃষকরা আগুনে পুড়াচ্ছে ধান গাছ



শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধিঃ
সারাদেশে এখন ধান কাটার ধুম। নবান্ন উৎসবের প্রস্তুতি চলছে বিভিন্ন এলাকায়। কিন্তু গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার গোদারচালা গ্রামের কৃষক আলতাফ হোসেনের চোখে মুখে বিষাদের ছায়া। কিভাবে সামনের দিন গুলো খেয়ে পড়ে বাঁচবেন। তাঁর কোন কূল কিনারা পাচ্ছেন না তিনি। কারণ তাঁর একমাত্র সম্বল চার বিঘা জমির আমন ধান পোঁকার আক্রমনে নষ্ট হয়ে গেছে।

একাধিকবার কীটনাশক ছিটিয়েও তিনি ফসল রক্ষা করতে পারেননি। একই এলাকার আরেক কৃষক হুমায়ুন কবির জানান, আমনে এরোগের আক্রমণ এত তীব্র যে ধান গাছ মরে খড়ে পরিণত হয়ে যায়। এসব খড় গবাদিপশুও খায় না। কীটনাশক দিয়ে সামলাতে না পেরে অনেকে আক্রান্ত ধান খেত আগুণে পুড়িয়ে দিচ্ছে।

আলতাফ হোসেন ও হুমায়ুন কবিরের মতো শ্রীপুর বহু কৃষক এবার ধান ঘরে তুলতে পারছেন না। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বাদামী খাস ফড়িং ও ব্যাকটেরিয়াল লিফ ব্লাইটেড (বিএলবি)র হাত থেকে ধান ক্ষেত রক্ষা করতে না পেরে বাকী জমি সুরক্ষিত রাখার জন্য আক্রান্ত অংশ পুড়িয়ে দিচ্ছে কৃষকেরা। অন্তত ২০জন কৃষক জানিয়েছেন তারা গড়ে চার বিঘা জমির ধান পুড়িয়ে দিয়েছেন।

শ্রীপুর উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্যমতে, চলতি মৌসুমে উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় সাড়ে ১৩হাজার হেক্টর জমিতে আমন ধানের চাষ হয়েছে। এর মধ্যে ১২হাজার ৯শ’ত হেক্টর জমিতে উফসী জাত ও পঁচিশ হেক্টর জমিতে উচ্চ ফলনশীল (হাইব্রিড) এবং প্রায় ৫শ’ত হেক্টর জমিতে দেশীয় প্রজাতির ধানের চাষ হয়েছে। চলতি আমনের মৌসুমে আবহাওয়া অনূকূলে না থাকায় এবং অতিবৃষ্টির কারণে কৃষকের ধানের জমিতে বিএলবি রোগ ও বাদামী ঘাস ফড়িং এর আক্রমণ হয়েছে। কৃষকের আসাবধানতায় অনেক জায়গায় এ রোগ থেকে ধানের জমিকে রক্ষা করা যায়নি। এ পোঁকা অতি দ্রুত সময়ে ধান গাছে আক্রমণ করে, তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে এর থেকে রক্ষা পাওয়ার উপায় নেই।

কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে শ্রীপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ধানের শীষ বের আগে ও পরে ব্যাপক ভাবে রোগ দেখা দেয়। তাৎক্ষনিক ভাবে ব্যবস্থা নিয়ে অনেকে খেত রক্ষা করতে পেরেছেন। যেসব কৃষক রোগের লক্ষণ দেখে ব্যবস্থা নিতে দেরি করে ফেলেছেন তাঁরা একাধিকবার কীটনাশক প্রয়োগ করেও পোঁকার আক্রমণ থেকে ক্ষেত রক্ষা করতে পারেননি।

বিন্দুবাড়ি জিওসি গ্রামের আব্দুল হামিদ বলেন, এ সময়ে প্রতিবছর আমরা নবান্ন উৎসব পালন করি এবার পোকায় ধান নষ্ট করে দেওয়ায় আমাদের সামনে এখন অন্ধকার। কি খেয়ে বাঁচব তা ভেবে কূলকিনারা পাচ্ছি না।

মাওনা উত্তরপাড়া গ্রামের কৃষক আহাম্মদ আলী বলেন, প্রতিবছর আমরা আমন ধানের চাষ করে থাকি। এবার শুরু থেকেই ছিল প্রতিবন্ধকতা ছিল। প্রথমে বীজ সংকট, তাঁরপর আবার পোকার আক্রমণ।

সাতখামাইর গ্রামের কৃষক আব্দুস ছাত্তার বলেন, এবার পোকার আক্রমন এত বেশী ছিল যে, ফসলের মাঠে এখন ধান গাছ দাঁড়িয়ে আছে। শুধু ধান নেই। চাউলের দাম বৃদ্ধির কথা বিবেচনায় ধার দেনা করে তিন বিঘা জমিতে আমন ধান রোপন করে ছিলাম। পোকার আক্রমণে ধান না পাওয়ায় এখন শুধুই অন্ধকার।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুুয়িদ উল হাসান বলেন, ১৫-২০দিন আগেও হঠাৎ প্রচুর বৃষ্টিপাত আবার গরম পড়ায় অর্থাৎ পরিবর্তিত আবহাওয়ার কারণে (দিনে প্রচন্ড গরম ও রাতে ঠান্ডা) ধান গাছে পাতাপোড়া রোগসহ বিভিন্ন রোগ বিস্তারের উপযোগী হয়। এ ব্যাপারে কৃষকদের সতর্ক করতে আমরা ইউনিয়ন পর্যায়ে স্কোয়াড গঠণ করে কৃষকদের করণীয় সম্পর্কে পরামর্শ দিয়েছি। যারা ওই পরামর্শ মেনেছে তারা কিছুটা রেহাই পেয়েছে, যারা পালন করেনি তাদের ক্ষেতে রোগজীবানুর আক্রমণ প্রকোপ হয়ে থাকতে পারে। পরবর্তীতে যাতে ক্ষেতে ওই পোকার জীবাণু আক্রমণ করতে না পারে তার জন্য ক্ষেতের আক্রান্ত ফসল কিংবা ধান গাছের অবিশিষ্টাংশে (নাড়ার অংশে) আগুন দিয়ে দিয়েছে কৃষকরা।


1