LatestsNews
# আবরার ফাহাদ হত্যা মামলা বিচারের জন্য প্রস্তুত# আবুধাবির ‘সাসটেইনেবিলিটি অ্যাওয়ার্ড’ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী# আশুলিয়ার গোকুলনগরে জঙ্গি আস্তানা ঘিরে রেখেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী# আমেরিকা যাচ্ছেন শাকিব খান # হাতে ১৪টি সেলাই নিয়েই খেলতেমাঠে নেমেছেন মাশরাফি# ইরানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের তীব্র উত্তেজনা# পোশাক খাতের বাইরে সম্ভাবনাময় অন্যখাতে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় ঘাটতি আছে।# ঢাকার বিদায় বিপিএল থেকে# ঢাকা সিটি নির্বাচনে সরকার হস্তক্ষেপ করবে না : সেতুমন্ত্রী# মধ্যপ্রাচ্য বা পশ্চিম এশিয়ায় কোনও ধরনের সংঘাত হলে বিশ্বের জন্য একটা বিপর্যয়কর অবস্থা অপেক্ষাকরছে : পুতিন# চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপ-নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে# ড. ইউনূসকে আদালতে হাজিরের নির্দেশ# সিটি করপোরোশন নির্বাচনে মন্ত্রী-এমপিদের প্রচার নিষিদ্ধ করতে পরিপত্র জারির দাবি জানিয়ে ইউও নোট লিখেছেন নির্বাচন কমিশনার# সিঁড়ি দিয়ে হেঁটে ওঠা-নামার উপকারিতা# ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা নেয়ার অভিযোগ ভিকারুননিসায়# জীবন বাঁচাতে সাগরে ঝাঁপিয়ে পড়লেন অস্কারজয়ী অভিনেতা লিওনার্দো ডি–ক্যাপ্রিও# এখনই আর্নেস্তো ভালভার্দেকে বিদায় করছে না বার্সেলোনা কর্তৃপক্ষ# উত্তেজনার বিষবাষ্প ছড়িয়ে পড়ে মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে# ২০২০ সালে প্রবৃদ্ধি হবে আড়াই শতাংশ : বিশ্বব্যাংক# ইশরাক হোসেনের বাসায় গিয়ে নৌকায় ভোট চাইলেন আওয়ামী লীগের সমর্থিত মেয়র প্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস
আজ বৃহস্পতিবার| ২৩ জানুয়ারী ২০২০
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

গোপালগঞ্জে চলছে অতিথি পাখি নিধনের মহোৎসব ! হারাচ্ছে পরিবেশের ভারসাম্য : প্রশাসন নীরব



গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : প্রকৃতিতে শীতের আমেজ শুরু হলেই রঙ-বেরঙয়ের অতিথি পাখির কলতানে মুখরিত হতো গোপালগঞ্জে বিল অঞ্চল গুলো। শীত মওসুম জুড়েই দেখা যেত সাদা বক, বালিহাঁস, মাছরাঙ্গা, সারস, পানকৌরীসহ দেশি বিদেশি অসংখ্য পাখি। খাল-বিল, জলাশয়গুলোতে পুঁটি, খলসে, মাছ খাওয়ার লোভেই নানা প্রজাতির অতিথি পাখি ঝাঁকে ঝাঁকে আশ্রয় নিতো চলন বিলে। দিগন্ত জুড়া উন্মুক্ত হাওয়ায় পাখা মেলে এক বিল থেকে আরেক বিলে উড়াউড়ি করত। অপরূপ রুপে সেজে উঠতো প্রকৃতি। মাছ আছে, দিগন্ত জোড়া বিল আছে, আসছে অতিথি পাখিও। কিন্তু এক শ্রেণির স্বার্থন্বেশি মহল পাখির এমন অবাধ বিচরণে কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বিষটোপ-পড়শিসহ নানা প্রকার ফাঁদ পেতে নির্বিচারে শিকার করছে এ সব অতিথি পাখি। বাঁশের খুটি, কলা পাতা, খেজুর ডাল বেতের পাতা। এ সব উপকরণ দিয়ে বিশেষ কায়দায় তৈরি করা ফাঁদ ৬ থেকে ৭ ফিট উঁচু। ফাঁদের সামনে বাঁশের মগডালে রাখা বক হাতে শিকারি দল বেঁধে উড়ে যাওয়া বক শিকার করছে। এ ভাবেই প্রতিদিন শিকারিরা বিলের বিস্তৃর্ণ ফসলের মাঠে সারি সারি করে ফাঁদ পেতে এবং বিষটোপ ও বড়শি দিয়ে সাদা বক, বালিহাঁস, মাছরাঙ্গা, সারস, পানকৌরীসহ নানা প্রকার অতিথি পাখি শিকার করছে। প্রতিদিন বিকাল থেকে গভীর রাত আর ভোর থেকে সকাল আটটা পর্যন্ত এসব পন্থায় পাখি শিকার চলছে। শুধু তাই নয়, প্রশাসনের সামনে প্রকাশ্যে হাটে নেয়া হচ্ছে বিক্রির জন্য। রাতের শেষ প্রহর থেকে সকাল আটটা পর্যন্ত শিকার করা হয়েছে এসব পাখি। কেউ কেউ হাট-বাজারে ফেরি করেও বিক্রি করছে এসব পাখি। অথচ প্রশাসন রয়েছে নীরব দর্শকের ভুমিকায়। তারা সব কিছু দেখেও না দেখার ভান করে এড়িয়ে যাচ্ছে। প্রতিটি বক ১২০ টাকা থেকে ১৫০ টাকা, বালিহাস ৪শ থেকে ৫শ টাকা এবং তেলকুচ পাখি ৩০০ খেকে ৪০০ টাকা এবং চাকলা পাখি প্রতিটি ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন পাখি শিকারি জানান, তারা গোপালগঞ্জে বিভিন্ন বিলের ফসলের মাঠে মাঠে খুঁটি পুঁতে কলাপাতা, খেজুর ডাল দিয়ে বিশেষ কায়দায় তৈরি করা ফাঁদের সামনে একটি বাঁশের মগডালে রাখা হয় শিকারি বক। আকাশ দিয়ে বকের ঝাঁক নির্মিত ফাঁদের ওপর দিয়ে দল বেঁধে উড়ে যাওয়ার সময় শিকারি তার শিকারি বকটিকে নাচাতে থাকে। এক পর্যায়ে শিকারি বকটি ডাকাডাকি শুরু করলে উড়ন্ত বকের ঝাঁকটি বিশেষ ভাবে নির্মিত ঘরের (ফাঁদ) ওপর বসে। এ সময় তারা ভেতর থেকে একে একে বক গুলোকে ধরে ধরে খাঁচায় ভরে। এছাড়া বিশেষ কায়দায় বিষটোপ দিয়েও এসব অতিথী পাখি শিকার করা হচ্ছে।

গোপালগঞ্জ অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি, সাংবাদিক জয় বলেন, শুধু যে  পানকৌড়ি, বালি হাঁস, বক পাখি শিকারির ফাঁদে আটকা পড়ছে তা নয়। শীতের আগমনে এ অঞ্চলে ঝাঁকে ঝাঁকে আশ্রয় নেওয়া নানা প্রজাতির অতিথি পাখি শিকার করছে এক শ্রেণির স্বার্থন্বেশি মহল। বছরের পর বছর ধরে এসব পন্থায় বক শিকার করে বাজারে বিক্রি হলেও পাখি শিকার রোধে কার্যত কোন আইনী ব্যবস্থার প্রয়োগ দেখা যাচ্ছে না। এতে ক্রমশ্য বাড়ছে পাখি শিকার। তাছাড়া পাখি শিকারে প্রশাসনের দুর্বল অভিযান ও নজরদারি না থাকায় এ বছর পাখির আগমন কমে গেছে। এতে নষ্ট হচ্ছে এ অঞ্চলের সৌন্দর্য্য। শিকারিদের হাত থেকে পাখি শিকার বন্ধ না করলে গোপালগঞ্জের বিল গুলোতে এক সময় কোন পাখির আগমন ঘটবে না বলে মনে করে তিনি।

একই সাথে পাখি শিকার বন্ধে আরো সচেতনতা বাড়ানো উচিত বলে মনে করছেন স্থানীয় সচেতন মহল।

এ ব্যাপারে গোপালগঞ্জ বন বিভাগের কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, পাখি শিকার রোধে আমরা এ বছর এখনো কোন অভিযান করি নাই। শুনেছি পাখি শিকার চলছে, হয়তো খুব শিঘ্রই পাখি শিকার বন্ধে অভিযান চালানো হবে।

 


1