LatestsNews
# আমিরাতে প্রথম বাংলাদেশির গোল্ডেন ভিসা অর্জন# 'মোবাইল রিচার্জে শুল্ক বাড়ানোয় ক্ষতিগ্রস্ত হবে ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা'# কামারখন্দ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী শহিদুল্লাহ সবুজ নির্বাচিত# লাকসামে স্কুলছাত্রী ধর্ষনের শিকার, ধর্ষনকারী গ্রেপ্তার# দেশে সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়া কঠিন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম।# রাজধানীতে বিশৃঙ্খলভাবে দেয়াল লিখন ও গাছে বিজ্ঞাপন লাগালে কঠোর ব্যবস্থা'# পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের শেষ বা পঞ্চম ধাপের ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে এখন চলছে গণনা।# খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি নির্ভর করছে আদালতের ওপর।# রাজধানীর কল্যাণপুরের রাজিয়া পেট্রোল পাম্পে আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে।# সালথায় জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহে বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্র শিক্ষকদের মাঝে পুরস্কার বিতরন# ঝিনাইদহে মসজিদের মোয়াজ্জিনকে কুপিয়ে ও গলাকেটে হত্যা !# অবশেষে বড় অংকের অর্থের বিনিময়ে মিশরের ইজিপ্ট এয়ার থেকে লিজ নেয়া নষ্ট দুটি উড়োজাহাজ ফেরত দেয়া হচ্ছে।# শুধু সেমির আশা বাঁচিয়ে রাখার জন্যই নয়, দলের আত্মবিশ্বাস ফিরে পাওয়ার জন্য জয়ই দরকার ছিল# রাজশাহীতে জমে উঠেছে হরেক রকম আমের বেচাকেনা।# রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় ব্যর্থ বলে দায় স্বীকার করেছে জাতিসংঘ।# ২৩ উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে# নোয়াখালী সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রথমবারের মতো ইভিএম পদ্ধতীতে ভোট গ্রহণ # নোয়াখালীর হাতিয়ায় অস্ত্র ও গুলিসহ শীর্ষ জলদস্যু ফরিদ কমান্ডারকে গ্রেপ্তার করেছে কোস্টগার্ড# বেনাপোলে হুন্ডি করে অর্থ পাচারের অভিযোগে ৩ পুলিশ ক্লোজড # নড়াইলে শিক্ষার্থীদের গুলি করে হত্যার হুমকিতে ৪ জনের নামে মামলা দায়ের
আজ বুধবার| ১৯ জুন ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

টাঙ্গাইলে মা ও শিশু কল্যাল কেন্দ্রে ভুল চিকিৎসায় নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ



অন্তু দাস হৃদয়, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি :

টাঙ্গাইল পৌর শহরে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে ভুল চিকিৎসায় এক নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে।

ভুক্তভোগীরা হাসপাতালে গিয়ে কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানালেও তারা কর্ণপাত না করে বরং বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছেন।

জানাযায়, গত ১৮ নভেম্বর শনিবার টাঙ্গাইলের সদর উপজেলার করটিয়া ইউনিয়নের ধুলটিয়া গ্রামের মোঃ আলমগীরের স্ত্রী রোজিনা বেগম সন্তান জন্মদানের জন্য টাঙ্গাইল মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে ভর্তী হন।

সন্তান জন্মদানে দেহের স্বাভাবিক সক্ষমতা না থাকায় রোগীকে সিজারিয়ানের মাধ্যমে বাচ্চা (ছেলে) প্রসব করানো হয়। বাচ্চা প্রসবের পর শিশুটির ঠান্ডা জনিত সমস্যা থাকায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে রেফার্ড করেন।

টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১ দিন থাকার পর শিশুটি সুস্থ হওয়ায় (১৯ নভেম্বর) সোমবার দুপুরে পুনরায় মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে নিয়ে যেতে বলে। এবং সেই সাথে একটি ব্যবস্থা পত্র দিয়ে দেন। ব্যবস্থাপত্রে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল থেকে শিশুটিকে ২৫০ সম ইনজেকশন দুই বেলা পুশ করার কথা লিখে দেয়া হয়। এবং ইনজেকশনটি মাংসে পুশ করার জন্য বাংলায় স্পষ্ট করে নির্দেশনা দেয়া হয়।

কিন্তু সোমবার রাত ১০ টার দিয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত নার্স সেলিনা বেগম নিজে ইনজেকশন পুশ না করে তার বদলে অশিক্ষিত অদক্ষ ডায়নার্স মর্জিনাকে দিয়ে ইনজেকশনটি কেনোলার মাধ্যমে ব্রেইনে পুশ করান। যার ফলে কোমলমতির শিশুটি কয়েকবার হেচকি দিয়ে মারা যায়। এমন অভিযোগ শিশুটির বাবা মোঃ আলমগীর হোসেনের।

ঘটনাস্থলে থাকা ও প্রত্যক্ষদর্শী শিশুটির দাদি সূর্য বানু ও নানি রাজেদা বেগম জানান, ডায়নার্স মর্জিনাকে কেনোলার মাধ্যমে ইনজেকশন পুশ করার ব্যাপারে বারবার নিষেধ করা হলেও তিনি আমাদের কথা শোনেন নি। বরং আমরা নিষধ করায় আমাদের সাথে অসৌজন্য মুলক আচরণ করেছে। ঘটনার আগ পর্যন্তও শিশুটি সুস্থ ছিলো। বারবার ওর মায়ের বুকের দুধ পান করছিল। কিন্তু ইনজেকশন পুশ করার সাথে সাথে কয়েকবার হেচকি দেয়। আমরা তাৎক্ষনিক বুঝতে পারেনি। তার কয়েক ঘন্টা পর যখন ওর মা ওকে বুকের দুধ পান করানোর জন্য ঘুম থেকে উঠে তখন শিশুটির কোন সাড়া না পেয়ে হাসপাতালে কর্তব্যরতদের বিষয়টি জানানো হয়। তারা এসে শিুশুটিকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

আমাদের শিশুটিকে ভুল চিকিৎসার মাধ্যমে হত্যা করা হয়েছে। নার্স সেলিনা ও ডায়ানার্স মর্জিনার  বিচার চাই। যাতে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসে আর কারো বুকের মানিক কে না হারাতে হয়।

তবে অভিযুক্ত নার্স সেলিনা বেগম ও ডায়নার্স মর্জিনা বেগম তাদের বিরুদ্ধে সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তারা বলছেন সঠিক চিকিৎসাই তাদের দেয়া হয়েছে। এতে কেউ মারা গেল আমরা কি করবো।

নিহত শিশুটির পিতা আলমগীর হোসেন জানান,  সেলিনা বেগম ও ডায়নার্স মর্জিনা বেগম আমার সন্তানের মৃত্যুর জন্য দায়ি। তারা যদি ব্যবস্থাপত্রের নির্দেশনা মোতাবেক  ইনজেকশন পুশ করতো তাহলে আমার সন্তান মারা যেতো না। আমি সঠিক বিচার পেতে আইনের আশ্রয় নেবো।

এ দিকে নেক্কারজনক ও চাঞ্চল্যকর এ ঘটনার সংবাদ পেয়ে হাসপাতালে গেলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, এখানে কর্তব্যরত ডাক্তার ও নার্সদের খুঁজে পাওয়া যায়না। নার্সরা রোগীদের সাথে দূব্যবহার করেন। তাদের দায়িত্ব অবহেলার কারনেই এখন এমন ঘটনা ঘটছে।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উচিৎ হবে সরকারের স্বাস্থ্য সেবার গৌরব টিকিয়ে রাখতে এসব অভিযুক্তদের চাকুরিচ্যুত করা। তা না হলে সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করবে নামধারি এসব চিকিৎসা সেবিরা।

এ ব্যাপারে মা ও শিশু কল্যাল কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা মেডিকেল অফিসার মমতাজ বেগম জানান, শিশুটির মৃত্যুর খবর আমি শুনেছি।

তবে, হাসপাতালের করো দায়িত্বে অবহেলা বা কারো ভুল চিকিৎসা যদি এমন ঘটনা ঘটে থাকে তাহলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 


1