LatestsNews
# বহিষ্কার যেন স্থায়ী হয়: আবরারের বাবা# ফের উত্তপ্ত বুয়েট, নতুন করে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ# ‘আবরার হত্যাকে কেন্দ্র করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায় অশুভ শক্তি’# এজাহারভুক্ত বুয়েটের ১৯ আসামিকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বুয়েট কর্তৃপক্ষ।# ‘পাগলা মিজানে’র বাসা থেকে ৬ কোটি ৭৭ লাখ টাকার চেক উদ্ধার# আবরার হত্যায় কারো সংশ্লিষ্টতা থাকলেই গ্রেফতার# বুয়েটে প্রশাসন সতর্ক থাকলে আবরার হত্যা হতো না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী# আবরার হত্যা: অমিত-তোহা ৫ দিনের রিমান্ডে# বুয়েটে সব ধরনের রাজনীতি নিষিদ্ধ: উপাচার্য# আবরার হত্যার প্রতিবাদে বিএনপির কর্মসূচি# স্কুলছাত্রী রিশা হত্যায় ওবায়দুলের মৃত্যুদণ্ড# আমি তো অন্যায় করিনি, পদত্যাগ করবো কেন : বুয়েট ভিসি# আবরার হত্যা মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করা হবে : আইনমন্ত্রী# আবরারকে হত্যার কথা স্বীকার করলেন সকাল# আবরারের হত্যাকারীরা উপযুক্ত শাস্তি পাবে: আইনমন্ত্রী# বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ চান আনিসুল হক# সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, অপরাধীদের শাস্তি পেতেই হবে। # আবরার হত্যাকে পুঁজি করে সাম্প্রদায়িক রাজনীতি হচ্ছে: শিক্ষা উপমন্ত্রী# সময়মত চিকিৎসা পেলে বেঁচে যেত আবরার !# গ্রামের বাড়িতে নেয়া হয়েছে আবরারের মরদেহ, পারিবারিক কবরস্থানে দাফন আজ
আজ মঙ্গলবার| ১৫ অক্টোবর ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় মুন্সীগঞ্জ বাংলাবাজারে বসতবাড়ী দখলের পায়তারা



স্টাফ রিপোর্টার: মুন্সীগঞ্জ সদর থানার বাংলাবাজার এলাকায় রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় বসতবাড়ী দখলের পায়তারায় এলাকায় চাপাক্ষোভ বিরাজ করছে। মহেষপুর পশ্চিম কান্দি গ্রামের মোঃ মোবারক মিঝি গংদের বসতভিটি দখল করার পায়তারা করছে স্থানীয় আওয়ামিলীগ নেতা ইসমাইল ও বাতেন সিকদার গং। এমনই এক অভিযোগের ভিত্তিতে অনুসন্ধানে যায় এমসিটিভির একটি টিম। ঘটনার সত্যতাও পায় এমসিটিভির এই টিম। এলাকারা বেশ কিছু বখাটে ও মাদক ব্যবসায়ী মিলে মোবারক গংদের বসতভিটা দখলের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এই চক্রটি। শুধু একটি বাড়ীই নয় এই রকম আরো একাািধক বাড়ী দখলের পায়তারা করছে এই চক্রটি। অনুসন্ধানে জানা যায়, ভিটি বাড়ী নান্নু মিজি ক্রয়য়ের পূর্বে আরো কয়েকবার বিক্রি হয়। সর্ব শেষে ১৯৮৬ সালে নান্নূ মিঝি ক্রয় করেন হাকিম আলী খাঁ ও রফিকউদ্দিনের নিকট হতে। দলিল মূলে ক্রয় করে দীর্ঘ দিন বসবাস করে আসছেন নান্নু মিজি ও তার পরিবার। অন্য একটি সূত্র থেকে জানা যায়, মোট জমির কিছু অংশ খাস খতিয়ানে রহিয়াছে। আর উক্ত ভূমি নান্নু মিজিই ভোগ দখল করে আসছেন। আর সেই ভোগ দখলকৃত ভূমি একজন নব্য আওয়ামীলীগ হয়ে দখল করার পায়তারা চালিয়ে আসছে দীর্ঘদিন ধরে এমনই অভিযোগ পাওয়া গেছে অনুসন্ধানে। যেখানে মূল দলিল মূলে নাম জারিকৃত হওয়া ভূমি দলিল থাকা স্বত্বেও ইসমাঈল ও বাতেন সিকদার গং একের পর এক নিরীহ লোকদেরকে ভয় ভিতি দেখিয়ে মোটা অংকের চাঁদা আদায়ের জন্য বিভিন্ন অজুহাত খুঁজতেছে। এমন অভিযোগ করেছে নান্নু মিজির পরিবার। মৃত: নূর মোহাম্মদের স্ত্রী লাকী আক্তার (২৫) জানান, আমার স্বামী মারা যাওয়ার পর থেকেই আমি বাবা বাড়িতে আছি। তবে রাত গভীর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই স্থানীয় সন্ত্রাসী কানা রফিক, জসিম উদ্দিন, সালাউদ্দিন গংরা অকারণেই আমাদের ঘরের টিনের বেড়ায় ধাক্কাধাক্কির পাশাপাশি বেড়ার টিন বাড়ীর আঘাতে টেপ পরে আছে এবং বাড়ী ছেড়ে যাওয়ার জন্য গালিগালাজ করে। এ বিষয়ে স্থানীয় বাসিন্দা মরিয়ম বেগম, স্বামী- হারুন-অর-রশীদ জানান ইসমাঈল ও বাতেন গং মিলে এলাকার বেশ কিছু সন্ত্রাসী আমাদের জায়গা-জমি ও ভিটিবাড়ি দখলের পায়তাঁরা করছে। রাতবিরাতে নেশাগ্রস্থ লোকেরা বাড়ির উঠানে এসে বাড়ি ছাড়ার হুমকি দিয়ে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। স্থানীয় সন্ত্রাসী ঈসমাইল সরকার, বাতেন সিকদার, বাবুল মোল্লা ও রফিক গং মরিয়ম বেগমকেও হুমকি দিয়ে বলেন, হিন্দুদের জমি দখল কইরা অনেক খাইছোস এইবার তাড়াতাড়ি জায়গা ছাড়। যেখানে সাইন বোর্ডে লিখা আছে মোকদ্দমা নং ১ম যুগ্ম জেলা জজ আদালত দেওয়ানি মামলা নং ৫৪৭/২০১৪ বাদী মোঃ হযরত আলী মুন্সী বিবাদী মোঃ তাজুল ইসলাম গং মৌজ্জা চর বানিয়াল, খতিয়ান নং ২৪৮, সিএস ৩০১,৬৪৬,৭৫৩,৭৬০ আর এস খতিয়া ২৮৬,১৭৭৫,১৭২০ চলমান মামলাতে কি করে ইসমাঈল ও বাতেন সিকদার গং আমাকে এই বাড়ী থেকে উচ্ছেদের জন্য বার বার হুমকী দিয়ে যাচ্ছে? এমনই প্রশ্ন করেন মরিয়ম বেগম। এ বিষয়ে চর বানিয়ালের মহেশপুর পশ্চিমকান্দি বাসিন্দা, মাসুদ রানা বলেন, ইসমাঈল ও বাতেন সিকদার গং নান্নু মিঝির ভিটি বাড়ী ও মরিয়ম বেগমের খরিদা ভূমি দখল করে নেওয়ার পরিকল্পনা করছে। প্রায় ৩০ বছর যাবৎ ক্রয় সুত্রে ভোগ দখল করে আসছেন নান্নু মিজি। আর সেই ভূমি নকল ওয়ারিশ সাজিয়ে অর্থ আদায়ের মতলব আটছেন নব্য আওয়ামীলীগ নামধারী নেতা। এলাকার বেশ কিছু মাদক সেবনকারী, সন্ত্রাসী ও একাধিক মামলার আসামীদের নিয়ে এলাকায় নৈরাজ্য সৃষ্টি করছে বলে জানান তিনি। অভিযোগ কারী নান্নু মিজির ছেলে মোঃ মোবারক হোসেন বলেন, পাওয়ার অফ এটর্নি নিয়ে ক্ষমতার জোড়ে আমার জমি, বসতভিটে, বাড়ি দখল করতে চায় এই সন্ত্রাসী ভূমিদস্যু গ্রুপটি। এ বিষয়ে থানায় যোগাযোগ করা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে, নান্নু মিজির ছেলে মোবারক আরো জানান, থানায় অভিযোগ করিনি তবে কোর্টে দেওয়ানি মামলা করেছি। আমরা সাধারণ লোক আর অভিযুক্তরা স্থানীয়রা নব্য আওয়ামীলীগ পরিচয়দানকারী সন্ত্রাসী। আওয়ামীলীগের নব্য সন্ত্রাসীরা আমাদের মেরে ফেলারও হুমকি-ধামকি দিয়ে যাচ্ছে। ফলে আমরা পরিবারের সকল সদস্য চরম আতংকে দিনতিপাত করছি। অন্য এক প্রশ্নের জবাবে মোবারক মিজি জানান আমার পিতা অসুস্থ্য আমি নিজে বাদী হয়ে কোর্টে দেওয়ানি মামলা করেছি। গত ১৭ই নভেম্বর বাংলাবাজারে গেলে জনু মিজি ৩২ (আমার বড় ভাই) কে মারধর করে রফিক, সালাউদ্দিন, বাতেন সিকদার সহ আরো কয়েকজনকে মারধর করে এবং উলঙ্গ করে ছেড়ে দিয়েছে এমন অভিযোগ করা হয়েছে দেওয়ানি মামলায়। এমন বিষয় বাদীর কথার পরিপ্রেক্ষিতে এলাকার নব্য সন্ত্রাসী বলে চিহ্নিতদের সাথে কথা বলার চেষ্টা করেও সম্ভব হয়নি। তাদের সেল ফোনের নাম্বারও বন্ধ পাওয়া গেছে। প্রধান অভিযুক্তদের মধ্যে বাতেন সিকদারের ০১৭১২৫২২১১ সেল ফোনে একাধিকবার ফোন দিলে রিং বাজলেও তিনি তার সেলফোনটি রিসিভ করেননি। এ বিষয়ে ইসমাঈল সিকদার জানান আমার বাড়ী হতে অনেক খানি দুরেই মোঃ নান্নু মিঝির বাড়ী। তবে আমি আওয়ামীলীগের সভাপতি তাই বাংলাবাজারের সকল ওয়ার্ডে আমার দেখাশুনা করতে হয়। আমি কোন সন্ত্রাসীদের নিয়ে চলি না, আর আমার দলে মাদক সেবনকারী কোন নেতা-কর্মী নেই। আমার ইউনিয়নে কোন সন্ত্রাসীদের ঠাই নাই। নান্নু মিজির জমির কোন কাগজ বা দলিল দেখাতে পারে নাই এমন অভিযোগ করে তিনি বলেন আমার লোক জনের মাধ্যমেই উক্ত জমির ক্রয়-বিক্রয় হয়। কার নামে জমির দলিল হয় এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কোন নাম বলতে পারেন নাই। তবে পরে জানাবেন বলে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি ইসমাঈল জানিয়েছেন। নান্নু মিজির মতো মরিয়ম বেগমেরও এই জমির কোন দলিলপত্র নাই। যদি বৈধ্য কাগজপত্র তারা দেখাতে পারে তবে জমি ও বসতভিটা তাদেরই থাকবে। তাদের কাছে দলিলাদি থাকলে আমার কোন লোকজন সে জমি বা বসতভিটায় যাবে না এমনটিই বলেন আওয়ামীলীগ নেতা ইসমাঈল । এ বিষয় বাংলাবাজার ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম মতুর্জাাকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে কয়েকদফা বিচারে বসা হয়েছে কিন্তু কোন ফয়সালা করা সম্ভব হয়নি। জেলা আওমীলীগদের কথাই বাংলাবাজারের নেতারা মানে না, সেখানে আমার কথা এখানকার নেতারা কি মানবে? আমার বিচারের রায় না মানলে আমার কিছুই বলার নাই। বাতেন সিকদার ও ইসমাঈল শহর নেতাদের কারণে আমাদের বাংলাবাজার ইউনিয়নে নানা অপকর্ম করে যাচ্ছে এলাকায়। কিন্তু বিশেষ করে এই বিচারের বিষয় নিয়ে মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের নেতাদের কাছে একাধিক বার যাওয়া হয়েছে। বিচার প্রার্থীরা বিচার না পেলে আমার কিছু বলার নাই, করারও নাই। তারা দলীয় প্রভাব খাটিয়ে এলাকার মানুষের ঘুম নষ্ট করছে বলেও জানান ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম মতুর্জা। বাংলাবাজার ইউনিয়নের বর্তামান চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন পীর জানান, আমার আগের চেয়ারম্যান এই রকম কিছু বিচার আচার করছেন। এই বিষয় আমার কাছে তেমন কোন অভিযোগ কেউ দেননি। যদি স্থানীয়ভাবে উভয় গ্রুপ ইউনিয়ন পরিষদের আদালতে সালিশে বসেন তবে আমি এর ন্যায়বিচার করার চেষ্টা করতে পারি। যদিও এলাকার রাজনৈতিক পরিবেশ একটু ঘোলাটে, কেউ কারো কথা শুনে না বলেও বর্তমান চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন পীর অভিযোগ করেন।


1