LatestsNews
# আমিরাতে প্রথম বাংলাদেশির গোল্ডেন ভিসা অর্জন# 'মোবাইল রিচার্জে শুল্ক বাড়ানোয় ক্ষতিগ্রস্ত হবে ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা'# কামারখন্দ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী শহিদুল্লাহ সবুজ নির্বাচিত# লাকসামে স্কুলছাত্রী ধর্ষনের শিকার, ধর্ষনকারী গ্রেপ্তার# দেশে সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়া কঠিন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম।# রাজধানীতে বিশৃঙ্খলভাবে দেয়াল লিখন ও গাছে বিজ্ঞাপন লাগালে কঠোর ব্যবস্থা'# পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের শেষ বা পঞ্চম ধাপের ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে এখন চলছে গণনা।# খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি নির্ভর করছে আদালতের ওপর।# রাজধানীর কল্যাণপুরের রাজিয়া পেট্রোল পাম্পে আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে।# সালথায় জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহে বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্র শিক্ষকদের মাঝে পুরস্কার বিতরন# ঝিনাইদহে মসজিদের মোয়াজ্জিনকে কুপিয়ে ও গলাকেটে হত্যা !# অবশেষে বড় অংকের অর্থের বিনিময়ে মিশরের ইজিপ্ট এয়ার থেকে লিজ নেয়া নষ্ট দুটি উড়োজাহাজ ফেরত দেয়া হচ্ছে।# শুধু সেমির আশা বাঁচিয়ে রাখার জন্যই নয়, দলের আত্মবিশ্বাস ফিরে পাওয়ার জন্য জয়ই দরকার ছিল# রাজশাহীতে জমে উঠেছে হরেক রকম আমের বেচাকেনা।# রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় ব্যর্থ বলে দায় স্বীকার করেছে জাতিসংঘ।# ২৩ উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে# নোয়াখালী সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রথমবারের মতো ইভিএম পদ্ধতীতে ভোট গ্রহণ # নোয়াখালীর হাতিয়ায় অস্ত্র ও গুলিসহ শীর্ষ জলদস্যু ফরিদ কমান্ডারকে গ্রেপ্তার করেছে কোস্টগার্ড# বেনাপোলে হুন্ডি করে অর্থ পাচারের অভিযোগে ৩ পুলিশ ক্লোজড # নড়াইলে শিক্ষার্থীদের গুলি করে হত্যার হুমকিতে ৪ জনের নামে মামলা দায়ের
আজ বুধবার| ১৯ জুন ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

গাংনীর ধানখোলা ইউপি সদস্য কামরুলের দুর্নীতিতে এলাকার মানুষ অতিষ্ঠ



মেহেরপুর প্রতিনিধিঃ তিনি সকল কাজের কাজি তবে সে কাজে তার লাভ থাকতেই হবে। তার লাভ না থাকলে তিনি বাদে অন্যরা সব পাজি হয়ে যান। এমনই বহুল পরিচিত এক ইউপি সদস্য কামরুল ইসলাম। মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ধানখোলা ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড এর মেম্বর। তিনি চিৎলা গ্রামের উমর আলির ছেলে। মেম্বর নির্বাচিত হওয়ার আগে থেকে কামরুল ইসলাম একটি বীমা কোম্পানীর সাথে জড়িত রয়েছেন। পরে তিনি ধানখোলা ইউপি’র ৪ নং ওয়ার্ড মেম্বর নির্বাচিত হন। মেম্বর নির্বাচিত হওয়ার আগে তিনি খুব একটা দুর্নীতি করতেন না নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে তিনি দুর্নীতি করা শুরু করেন। মেম্বর কামরুল ইসলাম বয়স্ক, বিধবা সহ মাতৃকালিন ভাতা’র টাকা প্রদানের নামে অনেকের কাছে ঘুষ দাবি করেছেন। ঘুষ না দিলে  মেম্বর কামরুল ইসলাম সরকারি ভাতা পাওয়ার যোগ্য ব্যাক্তিকে এর সুবিধা থেকে বঞ্চিত করেন বলে এলাকার একাধিক সুত্রে জানা গেছে। শুধু তাই নয় সম্প্রতি দুস্থ গরীব মানুষদের জন্য সরকারি বরাদ্দকৃত টিউবওয়েল দিতে গিয়েও তিনি ২ হাজার টাকা করে নিয়েছেন বলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেন। অবশ্য এ অভিযোগ মেম্বর কামরুল ইসলাম অস্বীকার করে বলেন আমার কাছে মাত্র ২টি টিউবয়েল বরাদ্দ দিয়েছে গরীবদের দেওয়ার জন্য  এর জন্য কারোর কাছে টাকা দাবি করা হয়নি তবে টিউবওয়েল বসানোর জন্য দেড়শ’ খানা ইটের কথা বলা হয়েছে। এদিকে মেম্বর কামরুল এ প্রতিবেদককে দু’টো টিউবয়েল বরাদ্দর কথা বললেও অন্য এক প্রতিবেদককে তিনি ৩টি টিউবওয়েলের কথা স্বীকার করেন তবে এ পর্যন্ত চারটি টিউবওয়েলের কথা জানা যায়। ধানখোলা ইউপি সুত্রে জানা যায়, ৪ নং ওয়ার্ডে ৪টি টিউবওয়েল বরাদ্দ করা হয়েছে তবে টিউবওয়েল বসানোর সম্পূর্ণ খরচ সরকারের এখান থেকে কারোর কাছ থেকে টাকা নেওয়া যাবে না। শুধু টাকায় নয় তিনি টিউবওয়েল বসানোর কংক্রিট করার জন্য দুস্থদের কাছ থেকে আরো দেড়শ থেকে দু’শ ইট ক্রয় করার কথাও বলেন যা সরকারি নিয়ম বহির্ভুত বলে জানা যায়। মেম্বর কামরুল ইসলামের ফিরিস্তি এখানেই শেষ নয়। সম্প্রতি চিৎলা গ্রামের দঃ পাড়ার উম্মত আলি ভেটুলের ছেলে আরিফ একই জেলার মুজিবনগর উপজেলার ভবের পাড়া এক মেয়েকে বিয়ের প্রলোভনে তার বাড়িতে নিয়ে আসে এবং ৭ দিন রাখার পর মেম্বর কামরুল ইসলামকে হাত করে কৌশলে  অভিভাবকের আপত্তির অজুহাত তুলে সেই মেয়েকে বাবার বাড়ি ফেরত পাঠায়। যদিও মেয়েটি যেতে চাননি তার পরও তাকে সুকৌশলে জোর করে তাকে ফেরত পাঠানো হয়। অবশ্য এক্ষেত্রে মেয়েটির অভিভাবকদের কাছ থেকে লেখাপড়া করে স্বাক্ষর করে তাকে ফেরত দেয়। স্থানীয়রা এ মিমাংসায় সমর্থন না করলেও কাজটি মেম্বর কামরুলের কৌশলে জায়েজ হয়েছে বলে অনেকের ধারণা।
জানতে চাওয়া হলে ভুক্তোভুগি মেয়েটির উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান বলেন এমন একটি অভিযোগ আমার কাছে জানানো হয়েছিলো। বিষয়টি সুষ্ঠ বিচার করে দেওয়ার জন্য কিন্তু পরে আর আমার সাথে কেউ যোগাযোগ করেননি। এ বিষয়ে মেম্বর কামরুল ইসলাম বলেন, ছেলে মেয়ে দুজনে পছন্দ করে। পরে বিয়ের জন্য মেয়েটি ছেলের বাড়িতে চলে আসে কিন্তু তাদের বিয়ের বয়স না হওয়ায় মেয়েটিকে তার অভিভাবকের হাতে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।


1