LatestsNews
# পচা মাছ মজুদ ও বিক্রির দায়ে স্বপ্ন এক্সপ্রেস সুপার শপকে জরিমানা# ভারতীয় দলের ওপর হামলার শঙ্কা, পিসিবিকে মেইল# ২০২৩ সালের মধ্যে দেশের ৬৬ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুপুরের খাবার পাবে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা# মিন্নির জামিন শুনানি, যা বললেন হাইকোর্ট# ভারতের বহুল আলোচিত ইসলামিক বক্তা ডা. জাকির নায়েক এবার মালয়েশিয়ায় নিষেধাজ্ঞার মুখে# নেত্রীকে মুক্ত করতে ব্যর্থ বিএনপি এখন বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে মন্তব্য : ওবায়দুল কাদের। # ফিল্মি স্টাইলে মেহেদিকে ছিনিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা, গ্রেফতার ৪# মুন্সীগঞ্জে প্রতিদিন শাপলা তুলে লাখ টাকা আয় করে কৃষক শ্রেণীর লোকেরা# ব্যাচেলর খ্যাত সালমান খান অবশেষে বিয়ের জন্য নায়িকা পাত্রী খুঁজে পেয়েছেন# সন্ত্রাসীদের অতর্কিত হামলায় ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আহত # নকশা জালিয়াতির অভিযোগে কাসেম ড্রাইসেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাসভীর-উল-ইসলামকে গ্রেফতার।# ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে নার্স ও স্টাফদের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা# রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করতে মিয়ানমারকে আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ।# হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর জাতীয় পার্টির বিভক্তি আরো স্পষ্ট হয়ে উঠছে।# ডেঙ্গু মোকাবিলায় সতর্কতা ও সচেতনতা আরো বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা# ঈদের আগে পরে মোট ১৩ দিনে এবার সড়ক, নৌ ও রেল পথে ২৪৪টি দুর্ঘটনায় মোট ২৫৩ জন নিহত ও ৯০৮ জন আহত।# গাইবান্ধা আধুনিক হাসপাতালের বেহাল অবস্থা # ভারতে নিহত মাইনুল ও তানিয়া মরদেহ দেশে আনা হয়েছে# যেভাবে চামড়ার দাম কমানো হয়েছে তা দূরভিসন্ধিমূলক:মসিউর রহমান রাঙ্গা।# বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে রূপপুরে নির্মাণাধীন পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প দেশের দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধ।
আজ মঙ্গলবার| ২০ আগস্ট ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

রাবিতে ‘অমানবিক’ র‌্যাগ, আতঙ্কে ক্যাম্পাস ছাড়লো শিক্ষার্থী!



রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ক্রপ সায়েন্স এন্ড টেকনলজি বিভাগের প্রথম বর্ষের এক শিক্ষার্থীকে ্যাগিংয়ের নামেঅমানবিকনির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। বিভাগের সিনিয়রদের নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে আতঙ্কে ক্যাম্পাস ছেড়ে চলে গেছে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত তাকে ্যাগ দেয়া হয় বলে অভিযোগ সেই শিক্ষার্থীর

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর নাম ফাহাদ বিন ইসমাঈল। তিনি ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে ¯্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষে ভর্তি হয়েছিলেন। তার বাড়ি নারায়ণগঞ্জে। এদিকে ছেলেকে ্যাগিংয়ের কথা শুনে অসুস্থ্য হয়ে পড়েছেন সেই শিক্ষার্থীর মা। তিনি এখন ঢাকার ধানমন্ডি পপুলার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে জানা গেছে

ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থী অভিযোগ, প্রথম বর্ষের পরিচিতি ক্লাসের দিনে আমি স্যুট পরে এসেছিলাম যা বিভাগের সিনিয়রদের দৃষ্টিকটু মনে হয়। এদিন আমাকে হুমকি দেয়া হয় যে আমাকে ্যাগ দেয়া হবে। পরের দিন ক্লাসে আমাকে দাঁড় করিয়ে আমি বেশি স্মার্ট হয়ে গেছি, আমার চুল বড়, আমাকে ন্যাড়া করতে হবে, এরকম নানা কথা বলেন তারা। এরপর আমার জামাকাপড় খুলে আমাকে তারা নির্যাতন করে আর আমার বাবা মাকে নিয়ে গালিগালাজ করে। এসময় তৃতীয় বর্ষের আল আমীন নামের এক বড় ভাই আমাকে হুমকি দিয়ে বলেন, এই বিভাগে তোমার ভালো রেজাল্ট করার সুযোগ নেই। এখন তোমার বাঁচার কোন রাস্তা নাই

বিভাগের শিক্ষকদের বিষয়ে জানিয়েছেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, সেকেন্ড ইয়ারের ভাইয়ারা আমাকে হুমকি দিয়েছিলেন বিভাগে না যেতে। গেলে আমার খুবই খারাপ হবে। তারপরও আমি বৃহস্পতিবার আমি ক্লাসে যাই। সেখানে আল আমীন ভাইসহ দ্বিতীয় বর্ষের - জন ভাই-আপু আমাকে ্যাগ দেয়া শুরু করে। তারা আমাকে কৃষি অনুষদের ভবনের ভেতরে আটকে রেখে দুপুর ১২টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত আমাকে নানাভাবে নির্যাতন করে। তারা আমার প্যান্ট, শার্ট খুলতেও বাধ্য করেছিল

তিনি আরও বলেন, বিকেল ৪টার পর ওই ভাইয়া আর আপুরা আমাবে ভবনের বাইরে মাঠের মধ্যে নিয়ে আসে। সেখানে তারা আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। সারাদিন তারা আমাকে না খাইয়ে রেখেছিল। এরপর রাত ৭টার দিকে তারা আমাকে ছেড়ে দেন। মেসে গিয়ে ঘটনাটি আমার মাকে বললে তিনি মা ভয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। তিনি এখন হাসপাতালে। এরপর আমার বাবা আমাকে বলে এখন আর এখানে পড়ার দরকার নেই। তারা আমাকে বাড়িতে ডেকে পাঠায়

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আল-আমীন দাবি করেন, এসবের সঙ্গে তিনি জড়িত নন। দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ওই শিক্ষার্থীর কিছু একটা ভুল বুঝাবুঝি হয়েছিল। আমি তাদের কাছে বিষয়টি শুনেছি মাত্র

দি¦তীয় বর্ষের অভিযুক্ত কয়েকজন শিক্ষার্থীর দাবি, প্রথম বর্ষের সেই শিক্ষার্থীকে তারা ্যাগ দেননি। ইসমাঈল নামের সেই শিক্ষার্থী প্রথম বর্ষের ফেসবুক গ্রুপে বিভাগের বড় আপুদের নিয়ে বাজে কমেন্ট করেছিল। এটা তারা প্রথমবর্ষের অন্য শিক্ষার্থীর কাছ থেকে জানতে পারেন। এজন্য ইসমাঈলশাসনকরা হয়েছিল যেন সে পরবর্তীতে আর কখনো এমন কমেন্ট না করে

বিষয়ে ক্রপ সায়েন্স এন্ড টেকনলজি বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম বলেন, আমি বিষয়টি জানি না। যদি সত্যি এমন ঘটনা ঘটে তাহলে তদন্ত করে ঘটনাটির সঙ্গে জড়িতদের যথাযথ শাস্তি প্রদান করা হবে

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, আমি বিষয়টি বিভাগের সভাপতিকে জানিয়ে জড়িতদের

বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলব। যদি তারা যথাযথ পদক্ষেপ না নেয় তবে বিশ্ববিদ্যালয় যথাযথ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেবে


1