LatestsNews
# আমিরাতে প্রথম বাংলাদেশির গোল্ডেন ভিসা অর্জন# 'মোবাইল রিচার্জে শুল্ক বাড়ানোয় ক্ষতিগ্রস্ত হবে ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা'# কামারখন্দ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী শহিদুল্লাহ সবুজ নির্বাচিত# লাকসামে স্কুলছাত্রী ধর্ষনের শিকার, ধর্ষনকারী গ্রেপ্তার# দেশে সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়া কঠিন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম।# রাজধানীতে বিশৃঙ্খলভাবে দেয়াল লিখন ও গাছে বিজ্ঞাপন লাগালে কঠোর ব্যবস্থা'# পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের শেষ বা পঞ্চম ধাপের ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে এখন চলছে গণনা।# খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি নির্ভর করছে আদালতের ওপর।# রাজধানীর কল্যাণপুরের রাজিয়া পেট্রোল পাম্পে আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে।# সালথায় জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহে বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্র শিক্ষকদের মাঝে পুরস্কার বিতরন# ঝিনাইদহে মসজিদের মোয়াজ্জিনকে কুপিয়ে ও গলাকেটে হত্যা !# অবশেষে বড় অংকের অর্থের বিনিময়ে মিশরের ইজিপ্ট এয়ার থেকে লিজ নেয়া নষ্ট দুটি উড়োজাহাজ ফেরত দেয়া হচ্ছে।# শুধু সেমির আশা বাঁচিয়ে রাখার জন্যই নয়, দলের আত্মবিশ্বাস ফিরে পাওয়ার জন্য জয়ই দরকার ছিল# রাজশাহীতে জমে উঠেছে হরেক রকম আমের বেচাকেনা।# রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় ব্যর্থ বলে দায় স্বীকার করেছে জাতিসংঘ।# ২৩ উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে# নোয়াখালী সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রথমবারের মতো ইভিএম পদ্ধতীতে ভোট গ্রহণ # নোয়াখালীর হাতিয়ায় অস্ত্র ও গুলিসহ শীর্ষ জলদস্যু ফরিদ কমান্ডারকে গ্রেপ্তার করেছে কোস্টগার্ড# বেনাপোলে হুন্ডি করে অর্থ পাচারের অভিযোগে ৩ পুলিশ ক্লোজড # নড়াইলে শিক্ষার্থীদের গুলি করে হত্যার হুমকিতে ৪ জনের নামে মামলা দায়ের
আজ বুধবার| ১৯ জুন ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

বৈধ বালুর অবৈধ ব্যবসা জমজমাট ! সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে, ভূমিধস ও নদী ভাঙ্গনের আশংকা



আসাদুজ্জামান সাজু, লালমনিরহাট
লালমনিরহাটে তিস্তা, ধরলা ও সানিয়াজান নদী থেকে কোনো প্রকার ইজারা ছাড়াই অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের উৎসব চলছে। ওই সব নদী থেকে অবাধে প্রতিদিন শত শত ট্রাক বালু পরিবহন করা হচ্ছে বিভিন্ন স্থানে। বালু ব্যবসাকে কেন্দ্র করে প্রভাবশালীদের নিয়ে গড়ে উঠেছে একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট। অবাধে ও অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের ফলে তিস্তা নদীর তীরবর্তী এলাকায় বসত-বাড়িসহ আবাদি জমি দেবে ভূমিধস ও নদী ভাঙ্গনের আশংকা দেখা দিয়েছে। মাঝে মধ্যে দুই এক বার প্রশাসন থেকে বালু উত্তোলন বন্ধে অভিযান পরিচালনা করা হলেও বালু ব্যবসায়ীরা স্থান পরির্বতন করে আবারও বালু উত্তোলন শুরু করছে।

জানা গেছে, জেলার পাটগ্রাম উপজেলায় ধরলা নদী, হাতীবান্ধা উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সানিয়াজান ও তিস্তা নদী, কালীগঞ্জ উপজেলার তুষভান্ডার ইউনিয়নের কাশিরাম গ্রামের মুন্সিবাজার এলাকায়, আদিতমারী উপজেলার বিভিন্ন স্থানে তিস্তা, সদর উপজেলায় ধরলা ও তিস্তা নদী থেকে কোনো প্রকার ইজারা ছাড়াই অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। প্রতিদিন শত শত ট্রাক বালু চলে যাচ্ছে জেলার বিভিন্ন স্থানে। বালু ব্যবসাকে কেন্দ্র করে প্রভাবশালীদের নিয়ে গড়ে উঠেছে একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট। ওই সিন্ডিকেটে জড়িয়ে পড়েছে জেলার এক উপজেলা চেয়ারম্যানসহ কয়েকজন ইউনিয়ন চেয়ারম্যানও। প্রশাসনের পক্ষ থেকে বালু ব্যবসা বন্ধ করে দেয়া হলেও কয়েকদিন পর স্থান পরিবর্তন করে আবার অগের মতই চলতে থাকে অবৈধ এই ব্যবসা। ফলে ওই সিন্ডিকেটের মাধ্যমে বালু ব্যবসার নামে প্রতি সপ্তাহে লক্ষ লক্ষ টাকা ভাগাভাগি হচ্ছে। এ ভাবে চলছে গোটা জেলা জুড়ে অবৈধ বালু উত্তোলনের জমজমাট ব্যবসা।

গত রোববার কালীগঞ্জ উপজেলার তুষভান্ডার ইউনিয়নের কাশিরাম গ্রামের মুন্সিবাজার এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, ৪/৫ টি ট্রাক ওই এলাকায় তিস্তা নদী থেকে দীর্ঘ দিন ধরে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করছে। প্রতি দিন ভোর থেকে মধ্য রাত পর্যন্ত চলছে বালু উত্তোলন। ওই এলাকার লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, স্থানীয় সাবেক এক ইউ-পি সদস্যের নেতৃত্ব একটি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে চলছে বৈধ বালুর অবৈধ জমজমাট ব্যবসা। ওই ইউ-পি সদস্য ক্ষমতাধর হওয়ায় ও এক চেয়ারম্যানের কাছের লোক বলে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছে না। একই অবস্থা জেলার পাটগ্রাম, হাতীবান্ধা, আদিতমারী ও সদর উপজেলাতেও। বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসন দেখেও না দেখার ভান করে চলছে। নদী গুলো থেকে কোনো প্রকার ইজারা ছাড়াই অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করে অনেকেই কোটি কোটি টাকার মালিক হলেও এক দিকে সরকার বিপুল পরিমান রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অন্যদিকে গভীর গর্ত করে বালু উত্তোলন করায় বর্ষা মৌসুমে নদী ভাঙ্গন ভয়াবহ রুপ নিতে পারে। নদী গর্ভে বিলীন হতে পারে নদীর তীরবর্তী বসত-বাড়িসহ ফসলী জমি। এ ছাড়া খোলা ট্রাকে বালু পরিবহন ও স্তূপ করে রাখা বালুর কারণে স্বাস্থ্যগত সমস্যার মুখে পড়ে এলাকাবাসী।

অথচ ২০১০ সালের বালুমহাল আইনে বলা আছে, বিপণনের উদ্দেশ্যে কোনো উন্মুক্ত স্থান বা নদ-নদীর তলদেশ থেকে বালু বা মাটি উত্তোলন করা যাবে না। এ ছাড়া গুরুত্বপূর্ণ সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা অথবা আবাসিক এলাকা থেকে বালু ও মাটি উত্তোলন নিষিদ্ধ। এ আইন অমান্য করলে সেই ব্যক্তি বা তাহাদের সহায়তাকারী কোন ব্যক্তির অনূর্ধ্ব ২ বৎসর কারাদন্ড বা ৫০ হাজার টাকা হইতে ১০  লক্ষ টাকা পর্যন্ত অর্থদন্ড বা উভয় দন্ডে দন্ডিত হইবেন। এ ছাড়া এই আইনের অধীন অপরাধ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক ভ্রাম্যমান আদালত বা বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বিচার করা যাবে।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শফিউল আরিফ জানান, উন্মুক্ত স্থান বা নদ-নদীর তলদেশ থেকে অবৈধ ভাবে বালু বা মাটি উত্তোলনের কোনে সুযোগ নেই। তারপরও যদি কেউ অবৈধ ভাবে ওই সব কার্যক্রম চালান তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। পাশাপাশি প্রতিটি উপজেলায় ভ্রাম্যমান আদালত এসব বন্ধে কাজ করছে।


1