LatestsNews
# ভবিষ্যতে দেশের সব নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা।# দক্ষিণ আফ্রিকাকে জিততে দিলেন না উইলিয়ামসন# খুলনার শিরোমণি বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালের ডাক্তার-ষ্টাফদের দুই দফা দাবীতে অবস্থান ধর্মঘট পালিত# নড়াইলে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে লোহাগড়ায় মানববন্ধন# নওগাঁয় ২ লাখ ৩২ হাজার জাল টাকা উদ্ধার, গ্রেফতার-১# দিনাজপুর বিরলে দেওয়ানজীদিঘী পুকুরে পোনা মাছ অবমুক্তকরণ # শার্শায় অস্ত্র-গুলিসহ আটক ১ # গাজীপুর শ্রীপুরে পল্লী বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটার বন্ধের দাবীতে মানববন্ধন# নোয়াখালীতে ভুয়া চিকিৎসককে আদালতের নির্দেশে কারাগারে প্রেরণ# জমি সংক্রান্ত পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষের বাড়ি ভাংচুর সহ গাছকর্তন # বেনাপোলে সড়ক দুর্ঘটনায় ট্রান্সপোর্ট ব্যবসায়ী নিহত# এবছর শিক্ষা খাতে বাজেটের আকার বাড়লেও তা শতাংশে কমেছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।# পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে বাংলাদেশি ও চীনা শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষে ৮ চীনা শ্রমিক আহত হয়েছেন।# দেশে ফলের উৎপাদন বাড়াতে প্রতিনিয়ত চলছে নানা গবেষণা- কৃষকদের উৎসাহিত করতে যত আয়োজন# মোবাইল ফোনে বাংলায় এসএমএস (মেসেজ) পাঠালে খরচ অর্ধেক ছাড় দেয়া হবে।# বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য হলেন সেলিমা ও টুকু# মানুষের খাদ্য তালিকার প্রাণীর এসব খাবার এ যেন মানুষ মারার কারখানা# রাজধানীর বায়তুল মোকাররম মার্কেটে আগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে।# আমিরাতে প্রথম বাংলাদেশির গোল্ডেন ভিসা অর্জন# 'মোবাইল রিচার্জে শুল্ক বাড়ানোয় ক্ষতিগ্রস্ত হবে ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা'
আজ বৃহস্পতিবার| ২০ জুন ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

জামালপুর পৌর সভার ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট বিষয়ক সাংবাদিক সভায় তুপের মুখে পৌর মেয়র



মিঠু আহমেদ, জামালপুর 4TV :  জামালপুর পৌর সভার ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট বিষয়ক সাংবাদিক সভায় প্রশ্নবানের তুপের মুখে পড়েন পৌর মেয়র মির্জা সাখাওয়াতুল আলম মনি। সাংবাদিকদের কোন প্রশ্নের জবাব তিনি দিতে পারেননি। প্রতিটিই প্রশ্ন তিনি শাক দিয়ে মাছ ডাকার মতো এড়িয়ে যান। প্রতি বছরের ন্যায় এবারও বিশাল আকারের একটি বাজেট উপস্থাপন করেন। বাজেটে আয় ধরা হয়েছে ১৬৮,২৫,৩৪,৬৮৯.০৭ (একশত আটষষ্টি কোটি পচিশ লাখ চৌত্রিশ হাজার ছয়শত উননব্বই টাকা সাত পয়সা), বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের ব্যায় ধরা হয়েছে ১৬৫,৬৮,১১,৪৮২ (একশত পয়ষট্টি কোটি আটষট্টি লাখ এগার হাজার চারশত বিরাশি)। গতকাল বুধবার সকালে জামালপুর পৌরসভার হলরুমে তিনি সাংবাদিকদের কাছে এ বাজেট প্রেস করেন।

 

সাংবাদিকরা বলেন, জামালপুর পৌরসভা হচ্ছে একটি প্রথম শ্রেণীর পৌর সভা হওয়া স্বত্তে¡ও কেন সাধারণ নাগরিকরা ১ম শ্রেণীর পৌরসভার সুফল ভোগকরতে পারছে না। মশা নিধনের জন্যে গত বছরের দেয়া বরাদ্ধ গেল কোথায়, জেলার কোথাওতো মশা নিধনের স্প্রে করা হয়নি, পৌর শহরের প্রতিটি এলাকার রোড লাইট কেন বিকল, ড্রেনেজ ব্যবস্থা কেন উন্নত করা হচ্ছে না। একটু বৃষ্টি হলেও রাস্তায় কেন কোমর পানি জমে থাকে, জেলা শহরের প্রতিটি রাস্তাই কেন ভাঙাচুড়া, সেগুলো বছরের পর বছর পড়ে থাকলেও মেরামতের কেন উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না। লাইসেন্স বিহীন গাড়ি চলে কেমনে, ১৫ হাজার অটোর মধ্যে লাইসেন্স রয়েছে মাত্র ৩ হাজার অটোর, কেন যানজট নিরসনে উদ্যোগ নেওয়া হয় না, নতুন শহর উন্নয়নের প্রকল্পের বাজেট থাকলেও উন্নয়ন কেন করা হয়নি, কিছু কিছু ওয়ার্ডে ড্রেনগুলি থাকলেও সেগুলি প্রায় ৩০-৩৫ বছর যাবৎ বন্ধ করে ফেলেছে স্থানীয়রা, প্রতিটি রাস্তার ফুটপাত কেন দখল করে রাখা হয়েছে, পথচারীরা হেটে যেতে পারেনা? আপনার পৌরসভার মাধ্যমে যে রাস্তাগুলি করা হয় তা ছয়মাসও টিকেনা কেন? তাহলে আপনিই বলেন, প্রতিবছর যে বিশাল আকারের বাজেট করা হয় সেগুলি যায় কোথায়? একশত পয়ষট্টি কোটি আটষট্টি লাখ এগার হাজার চারশত বিরাশি টাকা আপনি কোথায় ব্যয় করবেন?  নাকি শুধু কাগজে কলমেই রয়ে যাবে। গত অর্থ বছরেও বিশাল আকারের বাজেট থাকলেও পৌর শহরে উল্লেখযোগ্য দৃশ্যমান তেমন কোন কাজ  করা হয়নি। 

 

পৌরবাসীরা জানান, জামালপুর পৌর সভার প্রতি বছরই বিশাল বিশাল বাজেট পাশ করা হয় শুনে আসছি। কিন্তু দৃশ্যমান কোন কাজ এখনও চোখে পড়েনি। যা করা হয় তা শুধু নামে মাত্র করা হয়। বাকীসব কাগজে কলমেই রয়ে যায়। আমরা সব ধরনের নাগরিক সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত রয়েছি।  

 

 

পৌর মেয়র মির্জা সাখাওয়াতুল আলম মনি বলেন, গতবছরের বাজেটে বরাদ্দের কাজগুলি আস্তে আস্তে করার চেষ্টা করছি। এছাড়াও গত ও বর্তমান বছরের বাজেটের কাজগুলিও পর্যায় ক্রমে করার ব্যবস্থা করবো। বৃষ্টির জন্যে রাস্তা ও ড্রেনের কাজগুলিও করা সম্ভব হচ্ছে না। মশা নিধনের বরাদ্ধ চলতি বাজেটের সাথে সমন্বয় করা হয়েছে, রোড লাইটগুলিও সব সচল করা হবে, তৃতীয় শহর উন্নয়ন প্রকল্পের কথা বলতেই তিনি পাশ কাটিয়ে সাংবাদিক সভার সমাপ্ত ঘোষণা করেন। 

 


1