LatestsNews
# গুলশান-১ এর ডিএনসিসি মার্কেটে মেয়াদোত্তীর্ণ শিশু খাদ্য # এডিসের লার্ভা ধ্বংসে বাড়ি বাড়ি অভিযানে নগরবাসীর অসহযোগিতার অভিযোগ# চামড়া নিয়ে টানাপোড়েন থামছেই না - নিয়মিত ক্রেতাদের তৎপরতা দেখা যায়নি। # কাশ্মীর ইস্যুতে মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বিবৃতি প্রকাশ# দাবি-দাওয়া মানলেই মিয়ানমারে ফিরবে রোহিঙ্গারা# ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিচারকের কক্ষে বিরিয়ানি খান রাজসাক্ষী জজ মিয়া# গাইবান্ধার ঝিনুকের তৈরী চুন উৎপাদনকারি যুগি পরিবারগুলো এখন বিপাকে# শিক্ষা নীতিমালা অনুমোদন করায় মোবারক হোসেন প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের অভিনন্দন# এডিস মশার দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের জন্য বাংলাদেশ সফরে আসছেন উচ্চ পর্যায়ের বিদেশি বিশেষজ্ঞ প্রতিনিধিদল। # শেখ হাসিনাকে ভারত সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। # মেঘনা নদীর ভাঙন গাফিলতি করা সেই প্রকৌশলীকে কী শাস্তি দেওয়া হয়েছে? : প্রধানমন্ত্রী# সংসদ সদস্য না হয়েও বিলাসবহুল গাড়িতে শুল্কমুক্ত সুবিধা পেলেন মুহিত# দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) দুর্নীতির বস্তাভর্তি টাকাসহ হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা গ্রেপ্তার# নায়াখালীতে সিএনজিচালিত ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে নারী-শিশুসহ আহত ১২# পচা মাছ মজুদ ও বিক্রির দায়ে স্বপ্ন এক্সপ্রেস সুপার শপকে জরিমানা# ভারতীয় দলের ওপর হামলার শঙ্কা, পিসিবিকে মেইল# ২০২৩ সালের মধ্যে দেশের ৬৬ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুপুরের খাবার পাবে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা# মিন্নির জামিন শুনানি, যা বললেন হাইকোর্ট# ভারতের বহুল আলোচিত ইসলামিক বক্তা ডা. জাকির নায়েক এবার মালয়েশিয়ায় নিষেধাজ্ঞার মুখে# নেত্রীকে মুক্ত করতে ব্যর্থ বিএনপি এখন বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে মন্তব্য : ওবায়দুল কাদের।
আজ শনিবার| ২৪ আগস্ট ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

জামালপুর পৌর সভার ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট বিষয়ক সাংবাদিক সভায় তুপের মুখে পৌর মেয়র



মিঠু আহমেদ, জামালপুর 4TV :  জামালপুর পৌর সভার ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট বিষয়ক সাংবাদিক সভায় প্রশ্নবানের তুপের মুখে পড়েন পৌর মেয়র মির্জা সাখাওয়াতুল আলম মনি। সাংবাদিকদের কোন প্রশ্নের জবাব তিনি দিতে পারেননি। প্রতিটিই প্রশ্ন তিনি শাক দিয়ে মাছ ডাকার মতো এড়িয়ে যান। প্রতি বছরের ন্যায় এবারও বিশাল আকারের একটি বাজেট উপস্থাপন করেন। বাজেটে আয় ধরা হয়েছে ১৬৮,২৫,৩৪,৬৮৯.০৭ (একশত আটষষ্টি কোটি পচিশ লাখ চৌত্রিশ হাজার ছয়শত উননব্বই টাকা সাত পয়সা), বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের ব্যায় ধরা হয়েছে ১৬৫,৬৮,১১,৪৮২ (একশত পয়ষট্টি কোটি আটষট্টি লাখ এগার হাজার চারশত বিরাশি)। গতকাল বুধবার সকালে জামালপুর পৌরসভার হলরুমে তিনি সাংবাদিকদের কাছে এ বাজেট প্রেস করেন।

 

সাংবাদিকরা বলেন, জামালপুর পৌরসভা হচ্ছে একটি প্রথম শ্রেণীর পৌর সভা হওয়া স্বত্তে¡ও কেন সাধারণ নাগরিকরা ১ম শ্রেণীর পৌরসভার সুফল ভোগকরতে পারছে না। মশা নিধনের জন্যে গত বছরের দেয়া বরাদ্ধ গেল কোথায়, জেলার কোথাওতো মশা নিধনের স্প্রে করা হয়নি, পৌর শহরের প্রতিটি এলাকার রোড লাইট কেন বিকল, ড্রেনেজ ব্যবস্থা কেন উন্নত করা হচ্ছে না। একটু বৃষ্টি হলেও রাস্তায় কেন কোমর পানি জমে থাকে, জেলা শহরের প্রতিটি রাস্তাই কেন ভাঙাচুড়া, সেগুলো বছরের পর বছর পড়ে থাকলেও মেরামতের কেন উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না। লাইসেন্স বিহীন গাড়ি চলে কেমনে, ১৫ হাজার অটোর মধ্যে লাইসেন্স রয়েছে মাত্র ৩ হাজার অটোর, কেন যানজট নিরসনে উদ্যোগ নেওয়া হয় না, নতুন শহর উন্নয়নের প্রকল্পের বাজেট থাকলেও উন্নয়ন কেন করা হয়নি, কিছু কিছু ওয়ার্ডে ড্রেনগুলি থাকলেও সেগুলি প্রায় ৩০-৩৫ বছর যাবৎ বন্ধ করে ফেলেছে স্থানীয়রা, প্রতিটি রাস্তার ফুটপাত কেন দখল করে রাখা হয়েছে, পথচারীরা হেটে যেতে পারেনা? আপনার পৌরসভার মাধ্যমে যে রাস্তাগুলি করা হয় তা ছয়মাসও টিকেনা কেন? তাহলে আপনিই বলেন, প্রতিবছর যে বিশাল আকারের বাজেট করা হয় সেগুলি যায় কোথায়? একশত পয়ষট্টি কোটি আটষট্টি লাখ এগার হাজার চারশত বিরাশি টাকা আপনি কোথায় ব্যয় করবেন?  নাকি শুধু কাগজে কলমেই রয়ে যাবে। গত অর্থ বছরেও বিশাল আকারের বাজেট থাকলেও পৌর শহরে উল্লেখযোগ্য দৃশ্যমান তেমন কোন কাজ  করা হয়নি। 

 

পৌরবাসীরা জানান, জামালপুর পৌর সভার প্রতি বছরই বিশাল বিশাল বাজেট পাশ করা হয় শুনে আসছি। কিন্তু দৃশ্যমান কোন কাজ এখনও চোখে পড়েনি। যা করা হয় তা শুধু নামে মাত্র করা হয়। বাকীসব কাগজে কলমেই রয়ে যায়। আমরা সব ধরনের নাগরিক সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত রয়েছি।  

 

 

পৌর মেয়র মির্জা সাখাওয়াতুল আলম মনি বলেন, গতবছরের বাজেটে বরাদ্দের কাজগুলি আস্তে আস্তে করার চেষ্টা করছি। এছাড়াও গত ও বর্তমান বছরের বাজেটের কাজগুলিও পর্যায় ক্রমে করার ব্যবস্থা করবো। বৃষ্টির জন্যে রাস্তা ও ড্রেনের কাজগুলিও করা সম্ভব হচ্ছে না। মশা নিধনের বরাদ্ধ চলতি বাজেটের সাথে সমন্বয় করা হয়েছে, রোড লাইটগুলিও সব সচল করা হবে, তৃতীয় শহর উন্নয়ন প্রকল্পের কথা বলতেই তিনি পাশ কাটিয়ে সাংবাদিক সভার সমাপ্ত ঘোষণা করেন। 

 


1