LatestsNews
# শ্রীমঙ্গলে ৬ ডিসেম্বর মুক্ত দিবস বধ্যভ‚মি-৭১ প্রাঙ্গণে মুক্তিযুদ্ধের যাদুঘর করার দাবি # শার্শার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পৌছে গেছে নতুন বই# খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে চিকিৎসকদের অবাধ ও নিরপেক্ষ প্রতিবেদন দাখিল নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন বিএনপি# মুজিববর্ষের (২০২০) অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ঢাকা আসবেন মোদি, প্রণব ও সোনিয়া# মহেশপুরের ঐতিহ্যবাহী ইছামতি নদী দখল করে মাছ চাষ # আজ যশোর মুক্ত দিবস# ইনজেকশন দেওয়ার পর প্রসূতির মৃত্যু, স্বজনদের অভিযোগ ভুল চিকিৎসা# প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা বলছে চলতি মাসেই বসছে মেট্রোরেলের লাইন# সব জল্পনার অবসান সৃজিত-মিথিলার বিয়ে সন্ধ্যায়# ভুটানকে ১০ উইকেটে হারাল বাংলাদেশ# সিদ্ধেশ্বরীতে হত্যার শিকার তরুণীর পরিচয় জানা গেছে মিলেছে ধর্ষণের পর হত্যার আলামত# গণধর্ষণের পর পশু চিকিৎসককে নির্মমভাবে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত চারজনই পুলিশের গুলিতে নিহত । # নোয়াখালী হাতিয়ায় অস্ত্র ও গুলিসহ গ্রেপ্তার-১# অভাবের সঙ্গে যুদ্ধ করে অবহেলিত ফাতেমা এখন স্বাবলম্বী# ঝিনাইদহে অসহায় নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ # কালীগঞ্জে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ৮ সদস্য আটক# প্রশিক্ষণ আমাদের জ্ঞান ও কাজের দক্ষতা বাড়ায় - উপসচিব মোহাম্মদ শওকত ওসমান# নোয়াখালীতে এলজি ও দেশীয় অস্ত্রসহ ডাকাত গ্রেফতার# নোয়াখালীতে প্রথমবারের মতো খোলাবাজারে পেঁয়াজ বিক্রি করছে টিসিবি# শ্বাসরুদ্ধকর ও সংকটময় সেই ১২ ঘণ্টা
আজ শুক্রবার| ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
# ঝিনাইদহে সেনা সদস্য হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন# নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :দেশের প্রথম শ্রেণীর অনলাইন টিভি চ্যানেল"চ্যানেল ফোর নিউজ" যা খুব দ্রুতই স্যাটেলাইট টেলিভিশনে রুপান্তরিত হতে যাচ্ছে। উক্ত চ্যানেলের জন্য নিম্ন বর্ণীত বিভাগসমুহে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ১ জন করে ব্যূরো প্রধান এবং বর্ণীত বিভাগগুলোর প্রতি জেলা ও থানাসমুহে ১ জন করে জেলা ও থানা প্রতিনিধি দ্রুত ও জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। বিভাগসমুহ :চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা , রাজশাহী , রংপুর - অাগ্রহীগণকে শিক্ষাগত যোগ্যতা, জাতিয়তা NID, পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ১ কপি ছবি ও অভিজ্ঞতার প্রমানপত্রসহ পূর্ণ জীবন বৃত্

রাণীনগরে প্রচন্ড গরমে মৌসুমী ফল ব্যবসায়ীরা বিপাকে



রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি 4TV 

নওগাঁর রাণীনগরে অব্যহত তাপদাহ ও গরম আবহাওয়ার কারণে কাঁচা-পাকা আম সহ অন্যান্য মৌসুমী ফল তারিতারি পেঁকে যাওয়ায় বিক্রয়ের আগেই দোকানে পঁচে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। সঠিক মূল্যে বিক্রয় করতে না পেরে পঁচা আম, আনারস ও লিচু নিয়ে রাণীনগরের ক্ষদ্র মৌসুমী ফল ব্যবসায়ীরা বিপাকে পড়েছে। একদিকে তারা যেমন আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে অন্য দিকে মান-সম্পূর্ণ ফল ক্রেতাদের দিতে না পেরে ব্যবসাও সঠিক ভাবে করতে পাড়ছে না। প্রক্রিয়াকরণ ও সংরক্ষণের ব্যবস্থা না থাকায় আম চাষিরাও বিপাকে পড়ছে। হিমাগারে আম রাখার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করতে পাড়লে স্থানীয় আম চাষি ও ব্যবসায়ীরা লাভবান হতো। আম আমাদের দেশে মৌসুমী রসালো ফল হিসেবে গুরুত্ব পেলেও শিল্প জাত পূর্ণ হিসেবে কার্যকর গবেষনা সরকার পর্যায় থেকে আজও নেওয়া হয়নি। ফলে পুরো আমের মৌসুমে অল্প সময়ের মধ্যেই রসালো আম বাজার থেকে তারাতারি বিদায় হয়ে যায়। যার কারণে চাষি পর্যায়ে এবং আম ব্যবসায়ী কেউ আর্থিক ভাবে লাভবান হতে পাড়ছে না। ধান উৎপাদনের জেলা নওগাঁ হলেও বর্তমানে সাপাহার, পোরশা, নিয়ামতপুর ও মান্দা উপজেলায় চাষি পর্যায়ে আমের চাষ দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই এলাকাগুলো থেকে স্থানীয় মৌসুমী ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সুস্বাদু মান-সম্পূর্ণ আম সরবারহ হচ্ছে।
রাণীনগর সদরের রেলওয়ে ষ্টেশন মোড়, উপজেলা বাসস্ট্যান্ড, রেল গেট, আবাদপুকুর বাজার, কুজাইল বাজার ও বেতগাড়ী বাজার সহ উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে স্থানীয় মৌসুমী ফল ব্যবসায়ীরা মৌসুমের রসালো সুস্বাদু আম, জাম, লিচু, কাঁঠাল সহ নানান জাতের ফল ব্যবসার জমজমাট বাজার গড়ে উঠেছে। আম পঁচনশীল হওয়ার কারণে দোকানে মজুদ করে ধরে রাখা সম্ভব হয় না। ফলে উপযুক্ত সংরক্ষণের অভাব ও পরিবহন ব্যবস্থার কারণে প্রচুর আম নষ্ট হয়। যার ফলে ব্যবসায়ীদের কম দামে তা বিক্রি ছাড়া অন্য কোন পথ থাকে না। এই অবস্থায় আম চাষি ও ব্যবসায়ীরা মনে করছেন, এই উপজেলায় আম সংরক্ষণের ব্যবস্থা থাকলে উভয়েই লাভবান হতো।
উপজেলার ষ্টেশন মোড়ের ফল ব্যবসায়ী সেলিম হোসেন জানান, আমি দীর্ঘদিন ধরে মৌসুমি ফল ব্যবসা করি। প্রতি বছর বিশেষ করে আমের মৌসুমে ভাল একটা ব্যবসা হয়ে থাকে। চলতি মৌসুমে লাগাতার গরমের কারণে কাঁচা-আধা পাকা ও পাকা আম দোকানে নিয়ে আসতে না আসতে বিক্রির সুযোগ না পেতেই আম গুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ফলে লাভ তো দূরের কথা লসের ঘানি মাঝে মধ্যে টানতে হচ্ছে। বর্তমানে রাণীনগরে ভাল নাগ ফজলী আম ৩০ টাকা, ল্যাংরা ৩০ টাকা, নকনা ৩০, খিরসাপাত ৩৫ প্রতি কেজি ধরে বিক্রি হচ্ছে। তবে বেচা-বিক্রির পরিস্থিতি খুবই মন্দা, ক্রেতা নেই বললেই চলে। ক্রেতার সংখ্যা কমে যাওয়ার কারণে চাহিদা মত আম বিক্রি করতে না পারাই দিনদিন আম আরো বেশি নষ্ট হচ্ছে। এখানে যদি একটি আম সংরক্ষনের ব্যবস্থা থাকতো তাহলে চাষি ও ব্যবসায়ী উভয়েই লাভবান হতো। আমি বর্তমানে জেলার পোরশা ও সাপাহার থেকে আম নিয়ে আসি। এই আম গুলো রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের আমের চেয়ে ভাল মানের। অব্যহত গরমের কারণে ব্যবসা ঠিক রাখতে এখন বিপাকে পড়েছি।


1